ঢাকা, শনিবার,১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

নির্বাচন

গণমাধ্যমের সাথে ইসির সংলাপ ১৬ ও ১৭ আগস্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৬ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৯:৪৭


প্রিন্ট

গণমাধ্যমের সাথে দুই দিনে সংলাপ করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

আগামী ১৬ ও ১৭ আগস্ট এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হবে।

রাজনৈতিক দলের সাথে সংলাপ শুরু হবে আগস্টের শেষ সপ্তাহে। আজ নির্বাচন ভবনে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

ইসি সচিব বলেন, এর আগে দেশবরেণ্য মানুষদের সাথে সংলাপ হয়েছে। খুব ভালো সংলাপ হয়েছে। অনেক সাজেশন এসেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় ১৬ ও ১৭ আগস্ট দুইদিন গণমাধ্যমের সাথে সংলাপ হবে। যেহেতু ডাকতে হয় অনেককে, ভাগ করে ডাকব সবাইকে সুযোগ দেয়ার জন্য। যদি একত্রে অনেককে ডাকি তাহলে ঠিকভাবে কথা বলা যায় না। প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া এবং যারা মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও সাংবাদিক নেতা আছেন তাদেরকে আমরা আমন্ত্রণ জানাব। এটার প্রস্তুতি চলছে। আজকে কালকের মধ্যে আমন্ত্রণপত্র সবার কাছে চলে যাবে। দুইদিনে ৬০ জনের মতো গণমাধ্যমের প্রতিনিধির সাথে আলোচনা হতে পারে।

রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে সংলাপ প্রসঙ্গে ইসি সচিব বলেন, রোডম্যাপ অনুযায়ী আগস্ট-সেপ্টেম্বরের মধ্যে রাজনৈতিক দলের সাথে সংলাপ শেষ করতে হবে। সেই হিসেবে আগস্টের শেষ সপ্তাহের দিকে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে আমরা শুরু করব। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঈদ-উল-আযহা হওয়ার কারণে সেপ্টেম্বরের ১০ তারিখের পর থেকে বাকি রাজনৈতিক দলের সাথে সংলাপ করা হবে। ঈদের আগে ছয়টি দলের সাথে সংলাপ করা হবে।

ইসি সচিব আরো বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের তালিকার শেষের দিক থেকে শুরু করব। গতবার বর্ণমালা অনুসারে এটা করা হয়েছিল। অনেকগুলো দল আছে। প্রতিদিন দুটি করে দলের সাথে সংলাপ করা হবে। সকালে একটা বিকেলে একটা করা হবে। ছোট দলগুলো ১০ জন এবং বড় দলগুলোর পরবর্তীতে আলাপ করে সংখ্যা জানানো হবে।

রাজনৈতিক কোনো নির্দিষ্ট প্রস্তাবনা তুলে ধরা হবে না উল্লেখ করে ইসি সচিব আরো বলেন, এরকম কিছু তুলে ধরা হবে না। আমরা সবার কাছে শুনব। নির্বাচন নিয়ে যেহেতু সংলাপ সেহেতু সবাই জানে কি কি বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। পত্রিকা ও মিডিয়াতে কথাবার্তাগুলো চলে এসেছে। এসবের সূত্র ধরেই পরবর্তী সংলাপগুলো হবে। সেপ্টেম্বরের পরে অক্টোবরে নির্বাচন বিশেষজ্ঞ, প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার, প্রাক্তন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নারী নেত্রীদের সাথে সংলাপ হবে। আইনশৃঙ্খলা শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে এই ধাপে সংলাপের কোনো সম্ভবনা নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সেনাবাহিনী মোতায়েন ও ‘না’ ভোটের বিষয়ে সুশীল সমাজের ঐক্যমত প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, এসব বিষয়ে কোনো ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হয়নি। পক্ষ আছে বিপক্ষ আছে। কেউ বলছে এটা করলে ভালো হয়। কেউ বলেছে এটা করা যাবে না। ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এরকম কোনো বিষয় নাই।

ইসি সচিব আরো বলেন, সবার মতামত নেয়ার পর কমিশনই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে আর কোনোটা গ্রহণ করবে না। যেকোনো ব্যক্তি মতামত জানাতে পারবেন। ই-মেইল বা চিঠির মাধ্যমে মতামত জানাতে পারবেন। নির্বাচন কমিশন খুশি প্রথমবার যে সংলাপ হয়েছে নাগরিক সমাজের সাথে। তারা মনে করছে যে এটা সফল হয়েছে। অনেকগুলো সাজেশন পাওয়া গেছে। অনেকগুলো ইনফরমেশন পাওয়া গেছে। নিজেদের প্রতি কমিশনের আস্থা বেড়েছে। আস্থার অভাব হওয়ার কথা না। নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। তাদের ওপর যে দায়িত্ব আছে তা পালন করে যাবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫