ঢাকা, বুধবার,২৩ আগস্ট ২০১৭

প্যারেন্টিং

এনার্জি বাড়াতে শিশুর ডায়েট

নিপা আহমেদ

২৪ জুলাই ২০১৭,সোমবার, ১৭:৩৯


প্রিন্ট
এনার্জি বাড়াতে শিশুর ডায়েট

এনার্জি বাড়াতে শিশুর ডায়েট

পড়ালেখা, খেলাধুলা, হুটোপুটি- এসব তো শিশুদের নিত্যদিনের কাজ। তাই প্রয়োজন হয় প্রচুর এনার্জির। দুধ, ফল, সবজির মত স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের চেয়ে আইক্রিম, চকলেটের প্রতি শিশুদের ঝোঁক বেশি থাকে। কিন্তু শিশুরা প্রতিদিন যে খাবার খায় সেই খাবার থেকে যেন পর্যাপ্ত এনার্জি জোগান দেয়া যায় সে বিষয়ে লক্ষ রাখতে হবে

ফল
শিশুর ডায়েটে রোজ একটি করে ফল রাখার চেষ্টা করুন। ফলের মধ্যে কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট, ন্যাচারাল সুগার, ভিটামিন ও মিনারেল যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। এ ছাড়া রোগ প্রতিরোধ করার জন্য ফাইটোকেমিক্যাল উপাদানও রয়েছে। নিয়মিত ফল খেলে শিশুদের এনার্জি বজায় থাকে।
ষভিটামিন সি ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে ভরা আমলকী রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে। এ ছাড়া পেঁপে, কমলালেবু, মুসাম্বি, কলাও খেতে পারে। ফ্রুট সালাদ বানিয়ে ওপরে সামান্য লেবুর রস ছড়িয়ে দিন। খেতে ভালো লাগবে, স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে।
• পেয়ারা ভিটামিন ‘সি’র দারুণ উৎস। কমলালেবু থেকে পেয়ারায় প্রায় চার গুণ বেশি ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে।
• বেল পেপার, বিশেষ করে সবুজ রঙের বেল পেপার ব্যবহার করুন। সালাদ বা স্ন্যাকস, ব্রেকফাস্ট, টিফিনে বেল পেপার দিয়ে নানা রকমের খাবার তৈরি করে দিন।
• ড্রাই ফ্রুটসের মধ্যে খেজুর, কিশমিশ, ডুমুর খেতে পারেন। ড্রাই ফ্রুটস দিয়ে স্মুদি বা সালাদ তৈরি করে খেতে পারেন।
• খাবারের সাথে একসাথে না খেয়ে আলাদা করে ফল, ভেজিটেবল, রুটি বা সালাদে বীজ জাতীয় খাবার খেতে পারে।
• তিল, পোস্ত, কুমড়োর বীজ, সূর্যমুখী বীজ, অ্যাক্টিভ থাকার জন্য উপকারী।

সবজি
সব রকমের সবজিই শিশুদের অ্যাক্টিভ থাকার জন্য ভালো।
• এনার্জির জন্য আলু খুব ভালো। তেল ছাড়া বেকড পটেটো ট্রাই করুন।
• গাজরে প্রচুর ভিটামিন এ রয়েছে। এটি ত্বক ও হাড়ের বৃদ্ধির জন্য জরুরি। খাওয়ার চেষ্টা করুন। যেমন ব্রেকফাস্টে বা মিড ইভিনিং স্ন্যাকস হিসেবে ফল খেতে পারেন।
• একসময় যেকোনো এক ধরনের ফল খাওয়ার চেষ্টা করুন।
• জুস না খেয়ে আস্ত ফল ও পাকা ফল খান। রান্না করলে ফলের মধ্যে কার্বোহাইড্রেট ও নিউট্রিয়েন্ট সল্ট নষ্ট হয়ে যায়।
• টিভি দেখতে চিপস খেতে অভ্যস্ত অনেকেই। তার বদলে টিভির সামনে এক বাটি ফল রাখুন।

বাদাম-বীজসমেত খাবার
হেলদি ফ্যাট ও প্রয়োজনীয় প্রোটিনে ভরপুর বাদাম শিশুদের অ্যাক্টিভ থাকতে সাহায্য করে, মনোযোগ বাড়ায়, স্মৃতিশক্তি ভালো করে।
• আমন্ড, পেস্তা, আখরোট, কাজুবাদাম স্ন্যাকস হিসেবে শিশুদের জন্য খুব ভালো। প্রতিদিন টিফিনে কিছু পরিমাণে বাদাম দেয়ার চেষ্টা করুন।
• ফ্ল্যাক্স সিডে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড শরীরের কোষ গঠনে সাহায্য করে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫