ঢাকা, বুধবার,২৩ আগস্ট ২০১৭

কম্পিউটার ও আইটি

র‌্যানসমওয়্যার থেকে সাবধান!

০৭ জুলাই ২০১৭,শুক্রবার, ২০:০৯ | আপডেট: ০৭ জুলাই ২০১৭,শুক্রবার, ২১:৩২


প্রিন্ট

সম্প্রতি বিশ্বের ৬৪টি দেশ একযোগে র‌্যানসমওয়্যার হামলার শিকার হয়েছে। এ হামলায় ব্যবহৃত পেটয়্যা বা গোল্ডেনআই র‌্যানসমওয়্যার শুধু মুক্তিপণ বা অর্থ হাতিয়ে নেয়ার জন্য কোনো সাধারণ ভাইরাস নয়। বিভিন্ন দেশের তথ্য চুরি ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এ হামলা চালানো হয়েছে।
পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যার অদ্ভুত ধরনের এক ভাইরাস। কার্যকারিতা বিবেচনায় এটি গত মাসে ছড়িয়ে পড়া ওয়ানাক্রাই ভাইরাসের চেয়ে বেশি শক্তিশালী। লিখেছেন আহমেদ ইফতেখার

হ্যাকাররা এখন যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো ও করপোরেট ব্যবসা এবং সরকারি কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বিকলাঙ্গ করে দিতে সক্ষম, তার প্রমাণ পর পর দু’টি র‌্যানসমওয়্যার হামলার ঘটনা। র‌্যানসমওয়্যার হলো প্রোগ্রাম করা একধরনের ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকর ভাইরাস, যা আক্রান্ত কম্পিউটার ডিভাইসে সংরক্ষিত ডাটা ব্লক করে দেয়। ফলে ব্যবহারকারীর পক্ষে আক্রান্ত ডিভাইস চালানো অসম্ভব হয়ে পড়ে। হ্যাকাররা ডাটা ফেরত দিতে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে মুক্তিপণ দাবি করে। চাহিদানুযায়ী অর্থ পরিশোধ করা হলে ডাটা ফেরত পাওয়া যায়।
সিসকোর সাইবার নিরাপত্তা বিভাগের জ্যেষ্ঠ কারিগরি প্রধান ক্রেইগ উইলিয়ামস শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সাধারণত অর্থ হাতিয়ে নিতে র‌্যানসমওয়্যার হামলা চালানো হয়। তবে সম্প্রতি এই প্রবণতায় পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যার অদ্ভুত ধরনের ভাইরাস যা কার্যকারিতার বিবেচনায় ওয়ানাক্রাই ভাইরাসের চেয়ে অধিক শক্তিশালী। পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যার ছড়িয়ে চালানো হামলার ধরন দেখে মনে হচ্ছে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে মুক্তিপণ বা অর্থ হাতিয়ে নিতে নয়; বরং তথ্য চুরি ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য এ হামলা চালানো হয়েছে। আর র‌্যানসমওয়্যারটির লক্ষ্যই ছিল বহুজাতিক কোম্পানি ও বিভিন্ন দেশের বড় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো। র‌্যানসমওয়্যার সাধারণত একযোগে বিভিন্ন লোভনীয় বিজ্ঞাপন ও ই-মেইলের মাধ্যমে ছড়ানো হয়। কারণ একযোগে বহুব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান আক্রান্ত হলে মুক্তিপণ হিসেবে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিতে সহজ হয় সাইবার অপরাধীদের। সাম্প্রতিক পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যার ছড়ানো হয়েছে একটি মাত্র বিজ্ঞাপন ও ই-মেইলের মাধ্যমে। এর ফলে পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যারে আক্রান্ত কোম্পানি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলোর আর্থিক লেনদেন ব্যবস্থা এবং ই-মেইল সেবা তাৎক্ষণিক বন্ধ হয়ে যায়। ভুক্তভোগী প্রতিষ্ঠানগুলো চাইলেও কোনো ধরনের আর্থিক লেনদেন করতে পারেনি। প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের তথ্যমতে, ইউক্রেন থেকে গত ২৭ জুলাই পেটয়্যা বা গোল্ডেনআই ভাইরাস বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। দেশটির সংবিধান দিবস সামনে রেখে এ হামলার উৎপত্তি।
পেটয়্যা ভাইরাসে ইউক্রেনের পাশাপাশি বিশ্বের ৬৪টি দেশ ও বিভিন্ন বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান আক্রান্ত হয়েছে। ভুক্তভোগী দেশগুলোর প্রায় সমান্তরাল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে ইউক্রেনের সঙ্গে ব্যবসায় সম্পর্ক রয়েছে, এ ধরনের কোম্পানিগুলো বেশি আক্রান্ত হয়েছে। বৈশ্বিকভাবে এ ধরনের হামলা চালানো এখন খুব সাধারণ বিষয়ে পরিণত হয়েছে। র‌্যানসমওয়্যার ছড়িয়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়া মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।
সিসকোর তথ্য নিরাপত্তা বিভাগের প্রধান স্টিভ মার্টিনো বলেন, বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানকে নিজ দায়িত্বে তাদের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সুরক্ষিত রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ অর্থ হাতিয়ে নিতে র‌্যানসমওয়্যার হামলার পরিসর বাড়ছে। পেটয়্যা র‌্যানসমওয়্যার হামলাটিও এ ধরনের চাঁদাবাজির জন্যই পরিচালিত হয়েছে। প্রাথমিকভাবে এমনটা মনে করা হলেও এর উদ্দেশ্য ভিন্ন হতে পারে। তবে উদ্বিগ্ন হওয়ার বিষয় হলো বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বহুজাতিক কোম্পানিগুলো এ ধরনের হামলা ঠেকাতে পারছে না। দুর্বল সাইবার নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্যই এমনটা হচ্ছে। সাইবার অপরাধীরা দিন দিন আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে। তারা এরই মধ্যে নিজেদের সর্বোচ্চ সক্ষমতা প্রদর্শন করেছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫