ঢাকা, রবিবার,২০ আগস্ট ২০১৭

উপমহাদেশ

মাঝ আকাশে জন্ম শিশুর, আজীবন বিনামূল্যে বিমানযাত্রার সুযোগ

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৯ জুন ২০১৭,সোমবার, ১৪:৫০


প্রিন্ট

মাঝআকাশেই প্রসবযন্ত্রণা উঠেছিল। অবস্থা ক্রমশ খারাপ হচ্ছি বিমানের যাত্রী ওই অন্তঃসত্ত্বার। বিমানকর্মীরা তড়িঘড়ি মেডিক্যাল এমারজেন্সি ঘোষণা করেন। সৌদি আরব থেকে ভারতে উড়ে আসা জেট এয়ারওয়েজের বিমানটিতে তখন চূড়ান্ত ব্যস্ততা। কোচির দিকে যাওয়ার কথা থাকলেও বিমানটিকে ঘুরিয়ে দেয়া হয় নিকটবর্তী মুম্বই বিমানবন্দরের দিকে।

পরিকল্পনা ছিল, কেরলের বাসিন্দা ওই নারীকে মুম্বই বিমানবন্দরে নামিয়ে প্রয়োজনীয় পরিষেবা দেয়া হবে। তবে হয়তো সে সময়ও ছিল না। বিমান তখন আরব সাগরের উপর, ৩৫ হাজার ফুট উঁচুতে। বিমানসেবিকা এবং পেশায় নার্স এক বিমানযাত্রীর সহায়তায় মাঝআকাশেই জন্ম নিল শিশু। খুশির রেশ ছড়িয়ে পড়ে বিমানের ১৬২ জন যাত্রীর মধ্যে।

জেট এয়ারওয়েজের ৯ডব্লু৫৬৯ বিমানটি দাম্মাম থেকে কোচির উদ্দেশে যাত্রা করেছিল রোববার গভীর রাতে। চিকিৎসার জন্যই কোচি আসছিলেন অন্তঃসত্ত্বা ওই মহিলা। মাঝ আকাশেই তাঁর প্রসব যন্ত্রণা ওঠে। মুম্বই বিমানবন্দরে নামিয়ে শিশু সমেত মাকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। প্রাথমিক চিকিৎসার পরে মা ও শিশু দুজনই স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানান চিকিৎসকরা।

বিমানটি কোচিতে অবতরণ করে ১২.৪৫ মিনিটে। নির্দিষ্ট সময়ের নব্বই মিনিট পরে। অবশ্য বিমানের অন্য যাত্রীদের কোনও ক্ষোভ ছিলনা সেই নিয়ে। মা ও শিশু উভয়েই সুস্থ রয়েছে, এই খবরই স্বস্তি দিয়েছিল তাঁদের। তবে গল্পের এখানেই শেষ নয়। শেষে ছোট্ট টুইস্টও আছে। মাঝ আকাশে জন্ম নেওয়ায় সারা জীবনের জন্য ওই শিশুর বিমানভাড়া মওকুব করেছে জেট এয়ারওয়েজ। শিশুর জন্ম নেয়ার এই ঘটনা তাদের বিমানে প্রথম বলেই এই উপহার জেট এয়ারওয়েজ বিমানসংস্থার পক্ষ থেকে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫