ঢাকা, শুক্রবার,১৮ আগস্ট ২০১৭

ইতিহাস-ঐতিহ্য

রাজধানীর তারকা হোটেলে ইফতার

১৯ জুন ২০১৭,সোমবার, ১৪:৪৭


প্রিন্ট

পবিত্র রমজান মাসে রোজাদারদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ ইফতার। অনেকেই চান রাজধানীর অভিজাত হোটেলগুলোতে গিয়ে ইফতার করতে। আর সে কথা মাথায় রেখেই ভোজনপ্রেমীদের জন্য প্রতি বছরের মতো এবারো রাজধানীর পাঁচ তারকা হোটেলগুলোতে রয়েছে ইফতারের নানা আয়োজন। এবার শুধু খাবারে নয়, হোটেলের পরিবেশে আনা হয়েছে নানা বৈচিত্র্য। রোজাদারদের জন্য হোটেলগুলোকে সাজানো হয়েছে বিভিন্ন আঙ্গিকে। অনেক হোটেলের পরিবেশে আনা হয়েছে আরবের আবহ। লিখেছেন আহমেদ ইফতেখার

প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও
ইফতার আয়োজনে আগে থেকেই বাংলাদেশের জনপ্রিয় হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও। মধ্যপ্রাচ্য ছাড়াও এশিয়ার বিভিন্ন দেশের জনপ্রিয় খাবার মেনু নিয়ে এ বছর ইফতার আয়োজন করেছে হোটেলটি। সোনারগাঁও হোটেলে ব্যুফে ইফতারের ব্যবস্থা আছে। ব্যুফে ইফতারের খরচ জনপ্রতি দুই হাজার ৯০০ টাকা। এ ছাড়াও বিভিন্ন ধরন ও বিভিন্ন দামে ইফতার আইটেম পাওয়া যাচ্ছে।
র‌্যাডিসন ব্লু ঢাকা
ইফতারের বিশেষ আয়োজনে র‌্যাডিসন ব্লু ঢাকা হোটেলে চলছে অ্যারাবিয়ান ইফতার ফ্যাস্টিভাল। এখানে কাবাব আইটেমকে বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের বিশেষ জুসও আছে। আরবীয় ঢঙে ইফতার, সেহেরি ও রাতের খাবারসহ আরো আকর্ষণীয় আয়োজন রয়েছে হোটেলটিতে। ইফতারের জন্য আরবের ঢঙের সাজানো তাঁবু ও জীবন্ত খেজুর গাছের সাথে মধ্যপ্রাচ্যের স্বাদে খাবার বিশেষভাবে রান্নার ব্যবস্থা। যা স্বাস্থ্যসম্মতভাবে পরিবেশন করা হচ্ছে। ওয়াটার গার্ডেন ব্র্যাসেরিতে আছে একটি আরবীয় ইফতার ব্যুফে, যাতে আছে বড়দের জন্য চার ৫০০ টাকায় এবং শিশুদের জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকায় ৬৪ রকমের খেজুর, আমদানিকৃত বিশেষ উটের ভুনা এবং উটের স্টু। এই রেস্টুরেন্টে আরো আছে খাঁটি আরবীয় রসনার খাবার, খেজুরের শরবত, এবং বিশাল আরবীয় মিষ্টির কাউন্টারসহ আরো অনেক কিছু। এখানে প্রতি বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার রাতে মাত্র দুই হাজার ৫০০ টাকায় মিলছে সেহরির সুযোগ। হোটেলে প্রবেশের পথ থেকে লবিতে আছে তাঁবু। ওয়াটার গার্ডেন ব্র্যাসেরি হোটেল লবিসহ নিয়ে তৈরি করছে চমৎকার আরবীয় আবহ। লবিতে আছে জীবন্ত খেজুরগাছ এবং সক্রিয় স্টেশন, যেখানে পাওয়া যাচ্ছে জিলাপি, খেজুরসহ আরো অনেক খাবার। তাবু সাজানো হয়েছে প্রাচ্যদেশীয় কার্পেট, পর্দা ও আরো আকর্ষণীয় অনেক কিছু দিয়ে। এ ছাড়া গাজিবো পুল সাইডের প্রাইভেট তাঁবুগুলোতে মাত্র এক লাখ টাকায় আরবীয় সাজ পোশাকে প্রাইভেট খানসামা ও বাবুর্চি দ্বারা খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে।
ওয়েস্টিন
রমজান উপলক্ষে বিশেষ ছাড়ে ইফতার, ডিনার ও সেহরি পার্টির আয়োজন করেছে ঢাকার অন্যতম অভিজাত হোটেল ওয়েস্টিন। ওয়েস্টিন হোটেলে একই সাথে ভোজনপ্রেমীরা পাচ্ছেন ইফতার, ডিনার এবং সেহরির বিশেষ বাফেট অফার। ইফতার এবং রাতের খাবারে ভোজনপ্রেমীদের জন্য খাবারের তালিকায় আছে বিভিন্ন ধরনের ঐতিহ্যবাহী খাবার। এর মধ্যে জাফরানি জিলাপি, চিকেন ডাম বিরিয়ানি, তান্দুরি কাবাব, খাসির নেহারিসহ নানা মজাদার আইটেম। আছে লাচ্ছি ও আমের জুস। এ ছাড়াও আছে বাংলাদেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী এবং সবার পছন্দের খাবার ইলিশ ভাজা। ডেসার্টের মধ্যে বাকলাভা, বাসবাউসা ও তুলুম্বাসহ নানা ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি। এসব মিলিয়ে রাতের খাবার ও ইফতারের বাফেট খরচ জনপ্রতি পড়বে পাঁচ হাজার টাকা। সেহরির বাফেট অফারে আছেÑ খাসির বিরিয়ানি, শর্ষে ইলিশ, চিকেন আচারিসহ বিভিন্ন ফ্রেশ জুস ও ডেসার্ট আইটেম। সেহরির বাফেটের জনপ্রতি খরচ পড়বে আড়াই হাজার টাকা। এ ছাড়াও কেউ যদি ভিন্ন ধরনের ইফতার এবং রাতের খাবার খেতে চান, তবে তাদের জন্য রয়েছে অনেকটা আরবীয় পরিবেশে স্পেশাল আরব দেশীয় খাবারের বাফেট অফার। খরচ পড়বে জনপ্রতি তিন হাজার ৩০০ টাকা।
লা মেরিডিয়ান ঢাকা
লা মেরিডিয়ান ঢাকায় রমজান মাসে অতিথিদের হোটেলের আন্তর্জাতিক রেস্টুরেন্টগুলোতে রয়েছে বিশেষ আয়োজন। এ রমজানের ইফতার এবং সেহরিতেও আটটি লাইভ কিচেন এবং ১১টি বুফে প্লেস বিভিন্ন খাবারের সমারোহ নিয়ে তৈরি লেটেস্ট রেসিপি রেস্টুরেন্টে বুফে ইফতার এবং রাতের খাবার এর জন্য জনপ্রতি খরচ হবে তিন হাজার ৯০০ টাকা এবং বুফে সেহরির জন্য খরচ পড়বে জনপ্রতি দুই হাজার ২০০ টাকা। রুফটপ মেডিটেরিয়ান রেস্টুরেন্ট ওলেয়াতে রয়েছে রমজান উপলক্ষে বুফে রাতের খাবারের সাথে বুফে ইফতারের জন্য ওলেয়াতে জনপ্রতি খরচ হবে তিন হাজার ৬০০ টাকা। স্কাইবল রুমে অতিথিদের জন্য রয়েল ইফতার এবং ডিনার কার্নিভাল রয়েছে সবচেয়ে বড় আয়োজন। এখানে আরব্য দেশগুলোর ইফতার গ্রহণের যে ধরন রয়েছে এখানে থাকছে ছোট ও বড় তাঁবু। জনপ্রতি চার হাজার ২০০ টাকা খরচ করে এই অফারটি উপভোগ করা যাবে। লা মেরিডিয়ান ঢাকায় ইফতারি ও রাতের খাবারের এ আয়োজন মাগরিব থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত এবং সেহরির আয়োজন মধ্যরাত থেকে ফজর পর্যন্ত থাকে। তবে ইফতারের জন্য অতিথিদের সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে রেস্টুরেন্টে চলে আসতে হবে।
আমারি ঢাকা
রমজান উপলক্ষে হোটেল আমারি ঢাকা স্পেশাল ইফতার এবং সেহেরির আয়োজন করেছে। সাথে ইফতার বক্স ও সেট মেনুর ব্যবস্থা আছে বিভিন্ন আউটলেটে। আমারি ঢাকার তিনজন আন্তর্জাতিক শেফ এশিয়ান, মধ্যপ্রাচ্য, আরবীয় এবং পার্শিয়ান খাবার পরিবেশন করছেন। অল ডে ডাইন রেস্টুরেন্ট আমায়া ফুড গ্যালারিতে আছে চারটি এশিয়ান লাইভ কুকিং স্টেশন, যেখানে ইফতার ও সেহেরির আয়োজন করা হয়েছে। এ ছাড়া অতিথিরা তাদের ইফতার ও ডিনার শেষ করতে পারবেন বিভিন্ন আরবীয় এবং কন্টিনেন্টাল ডেজার্ট দিয়ে।
আমায়া ফুড গ্যালারিতে চারটি এশিয়ান লাইভ কুকিং স্টেশন নিয়ে সেহরি বুফে আছে প্রতি বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার। এ ছাড়া বিভিন্ন করপোরেট ইফতার পার্টি এবং ব্যক্তিগত ইফতার পার্টি উদযাপন করার বন্দোবস্ত আছে আমারি ঢাকায়। রমজান ছাড়াও ঈদ উপলক্ষে হোটেল আমারি ঢাকায় আছে বিভিন্ন আয়োজন। ঈদের প্রথম তিন দিনে পরিবার ও বন্ধুদের নিয়ে উপভোগ করতে পারবেন স্লাইডার বার্গার অফার, বিশেষ স্ন্যাক কম্বো ডিল ও আমারি ঢাকার বিশেষ কুলফি। চারটি স্লাইডার বার্গার এবং একটি পছন্দ মতো মকটেল পাওয়া যাবে এক হাজার ২০০ টাকায়। স্ন্যাক কম্বো ডিল এক হাজার ১০০ টাকা ও আমারি ঢাকার স্পেশাল কুলফি পাওয়া যাবে ২৫০ টাকায়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫