মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপ সফরে ট্রাম্প

নয়া দিগন্ত ডেস্ক

দেশে ক্রমেই বিশৃঙ্খলার ঘেরাটোপে জড়িয়ে পড়তে থাকা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপে প্রথম বৈদেশিক সফরে যাচ্ছেন। এ সফরে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদেশগুলোসহ বিভিন্ন ধর্মের মানুষের মধ্যে ঐক্যের বার্তা ছড়িয়ে দিতে চান তিনি।
সফরে শুরুতেই সৌদি আরবে পৌঁছেছেন তিনি। এরপর আগামী সপ্তাহে তিনি ইসরাইল, বেলজিয়াম এবং ইতালিতে যাবেন।
এ সফরের ফলে দেশে ট্রাম্পকে ঘিরে গজিয়ে ওঠা নানা বিতর্ক থেকে সবার নজর আপাতত তার বৈদেশিক নীতির ওপর গিয়ে পড়বে বলে মনে করছে হোয়াইট হাউজ।
কূটনৈতিক অভিজ্ঞতাবিহীন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য সফরটিকে এক গুরুত্বপূর্ণ পরীা হিসেবে দেখা হচ্ছে। চলমান রাজনৈতিক প্রোপটে ট্রাম্প তার গুরুত্বপূর্ণ এ প্রথম বৈদেশিক সফর কোনো বিপর্যয় ছাড়া উতরে যেতে পারলে এটি তার সফলতা বলেই গণ্য হবে।
দেশে অনেক সমস্যার মুখে ট্রাম্প এ সফরে যাচ্ছেন। আমেরিকাকে সর্বাগ্রে রাখার বার্তা দিয়ে তিনি মিত্রদের উদ্বেগ দূর করার চেষ্টা করবেন।
ট্রাম্পের এফবিআই পরিচালক জেমস কোমিকে বরখাস্ত করার পদপে থেকে শুরু করে ফিন-রাশিয়া সম্পর্ক নিয়ে কোমিকে তার তদন্ত বন্ধ করতে বলার কথা প্রকাশ হয়ে যাওয়া এবং এরপর ট্রাম্প-রাশিয়া যোগসাজশ তদন্তে সাবেক এফবিআই প্রধান রবার্ট মুলারের নিয়োগের মতো নানা ঘটনায় ওয়াশিংটনের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।
আর কোনো প্রেসিডেন্টই ট্রাম্পের মতো এত কেলেঙ্কারি মাথায় নিয়ে প্রথম বৈদেশিক সফরে যাননি। ফলে তার সফরে এ বিষয়গুলো ছায়া ফেলবে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।
ইরানের পারমাণবিক চুক্তি সম্পর্কে ট্রাম্পের মতো নিয়ে প্রশ্ন আছে, ন্যাটোর নিরাপত্তায় ট্রাম্পের প্রতিশ্রুতি নিয়েও আছে সংশয়, প্যারিস জলবায়ু চুক্তির ব্যাপারেও ট্রাম্প অনমনীয়। ব্রাসেলস এবং সিসিলিতে ইউরোপীয় নেতাদের সাথে ট্রাম্পের বৈঠকে এ বিষয়গুলো নিয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার আশঙ্কা আছে।
তারপরও ট্রাম্পের চার মাসের টালমাটাল শাসনের পর এ সফরকে আবার নতুন করে সবকিছু ঠিক হয়ে আসা এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বকে নেতৃত্ব দেয়ার একটি সুযোগ হিসেবেই দেখছেন তার উপদেষ্টারা।
ঐক্যের বার্তা : ট্রাম্পের সফরের তিনটি উদ্দেশ্য জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচআর ম্যাকমাস্টার বলেছেন, এ তিন উদ্দেশ্য হচ্ছে, বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্ব নতুন করে দৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড় করানো। বিশ্ব নেতাদের সাথে সম্পর্ক নতুন করে গড়া। সেই সাথে আমেরিকার বন্ধুদেশগুলোসহ বিশ্বের প্রধান তিনটি ধর্মের মানুষের প্রতি একতার বার্তা ছড়িয়ে দেয়া।
সাংবাদিকদের ম্যাকমাস্টার বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির সাধারণ স্বপ্নকে ঘিরে সব ধর্মীয় বিশ্বাসের মানুষকে একতাবদ্ধ করতে চাইছেন।’
যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় প্রার্থী হিসেবে ট্রাম্প মুসলিমবিরোধী বক্তব্য দিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেছিলেন। মতা নেয়ার পর মুসলিম দেশগুলোর নাগরিকদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েও হইচই ফেলে দেন তিনি।
কিন্তু সৌদি আরব সফরকালে ট্রাম্প বিশ্বব্যাপী ইসলামের শান্তির ধারণা ছড়িয়ে দেয়ার আশা নিয়েই বক্তব্য রাখবেন বলে জানিয়েছেন ম্যাকমাস্টার।
তিনি বলেন, ট্রাম্প এ বার্তাই দিতে চান যে, যুক্তরাষ্ট্র এবং সভ্য দুনিয়ার সব মানুষই আশা করে তাদের মুসলিম মিত্ররা উগ্রবাদী এবং বিকৃত ইসলামি ভাবধারার বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিক। তা ছাড়া ইসলামের শান্তির ধারণা ছড়িয়ে দেয়ার জন্যও ট্রাম্প মুসলিম নেতাদের আহ্বান জানাবেন। বিডি নিউজ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.