ঢাকা, মঙ্গলবার,২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭

সিনেমা

ছবির নদীকাব্য

আলমগীর কবির

১৯ মে ২০১৭,শুক্রবার, ১৬:৩৪


প্রিন্ট

চরিত্রকে নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলায় বরাবরই পারদর্শী ফারজানা ছবি। বাস্তবতার নিরিখে গল্পের চরিত্র তার অভিনয়শৈলীতে হয়ে ওঠে প্রাণবন্ত। স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নদীকাব্যে সেটিরই পুনরাবৃত্তি হলো আবার।

নারীর ক্ষমতা, সংগ্রাম ও অশুভ শক্তির কাছে মাথা নত না করার গল্প এই চলচ্চিত্রের মূল উপজীব্য।

ফিল্ম মেকিং কোর্সের শিক্ষার্থী সুফিয়া খাতুনের গল্পে চিত্রনাট্য ও সংলাপ তৈরি করেছেন মোহাম্মদ হোসেন জেমী।

যমুনার পাড়ের জেলে পল্লীর সদ্য স্বামীহারা রেজিনার জীবন সংগ্রাম ফুটে উঠেছে এ সত্যের কাছাকাছি গল্পে। একজন নারীর সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই, তার জীবনের প্রেম ও মিথ্যা অপবাদের কাব্যই এ ছবির মূল প্রতিপাদ্য।

মুখ্য চরিত্রে অনবদ্য অভিনয় করেছেন ছবি। রেজিনা চরিত্রকে বাস্তবযোগ্য করার জন্য সীমাহীন পরিশ্রম করেছেন ছবি। তার পোশাকে, আচরণে ও সংলাপ উচ্চারণে ছবি হয়ে উঠেছিলেন যমুনা নদী পাড়ের হাজার নারীর একজন।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের অর্থায়নে, ডিজিটাল ফিল্ম মেকিং কোর্সের শেষে ২৫ জন অংশগ্রহণকারী শিক্ষানবিশ পরিচালক মোহাম্মদ হোসেন জেমীর সহকারী হিসেবে কাজ কাজ করলেন নদীকাব্যে।

মূল ধারার চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রগ্রাহক মোহাম্মদ হোসেন জেমী পরিচালিত জীবনমুখী এ ছবিতে অভিনয় করেছেন ফারজানা ছবি, আমান রেজা, আমির সিরাজী, রেহানা জলি, কিনা, মানিকগঞ্জের শিবালয় থানার দক্ষিণ তেওতা গ্রামের অনেক নারী-পুরুষ ও পিদিম থিয়েটারের বেশ কিছু কিশোর-কিশোরী। গতানুগতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের ধারা থেকে বেরিয়ে এসে পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমার উপস্থাপনার ধারায় নির্মিত হচ্ছে নদীকাব্য।

গত ৬ মে শনিবার দক্ষিণ তেওতা গ্রামের শতাধিক লোকের উপস্থিতিতে কেক কেটে নদীকাব্য ছবির মহরত ঘোষণা করেন জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো: রফিকুজ্জামান। এরপর একটানা শুটিং চলে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্ত্রী প্রমিলা দেবীর জন্মস্থান দক্ষিণ তেওতাসহ আশপাশের গ্রামে। চিত্রগ্রহণ নির্দেশনায় পঙ্কজ পালিত এবং অত্যাধুনিক ডিজিটাল সিনেমা ক্যামেরা সনি এফ ৫৫ সরবরাহসহ অন্যান্য কারিগরি সহায়তায় বিএফডিসি।

চলচ্চিত্রটি দৃষ্টিনন্দন করার জন্য এবং গ্রাম বাংলার সবুজ প্রকৃতি তুলে ধরার জন্য চিত্রগ্রহণে ব্যবহার করা হয়েছে ড্রনক্যাম।

শিল্পীদের সম্পর্কে পরিচালক মোহাম্মদ হোসেন জেমী বলেছেন, ছবির সাথে এটিই আমার প্রথম কাজ। ওর অভিনয় দেখে বারবার আমার মনে পরেছে- মাইকেল চেখভের- ‘অনুপ্রাণিত অভিনয়ের’ ছক। যার মধ্যে আছে একটি কাল্পনিক বৃত্ত, যেখানে পাওয়া যায় একজন অভিনেতার কাল্পনিক আবহ, চরিত্রায়ন ও বৈশিষ্ট্যাবলি। ছবি অভিনয়ের ছকটি নিখুঁতভাবে এঁকেছে। চরিত্রের বিন্যাস, শৈলীবোধ, সত্যবোধ, আকৃতিবোধ ও সমগ্রতাবোধ ছবি এত ভালোভাবে আয়ত্তে এনেছিল যে আমি মুগ্ধ হয়ে ওর অভিনয় দেখেছি। শুটিংয়ের দিনগুলোতেও ফারজানা ছবি থেকে বেরিয়ে পুরোপুরি রেজিনা হয়ে গিয়েছিল।

আমান রেজা নতুন হলেও পরান চরিত্রটি চ্যালেঞ্জের সাথে মোকাবেলা করেছে এবং আমার দৃষ্টিতে সফলও হয়েছে। রেহানা জলি ও আমির সিরাজী দু’জনই দক্ষ এবং চলচ্চিত্রের নির্ভরযোগ্য অভিনেতা। তাই তাদের নিয়ে কাজ করতে আমার তেমন কষ্ট হয়নি। যে যার চরিত্রে ছিল সাবলীল ও বিশ্বাসযোগ্য। দেশের বিভিন্ন মাধ্যমে প্রদর্শনসহ বিদেশে ফিল্ম ফেস্টিভালে প্রদর্শনের জন্য বর্তমানে চলচ্চিত্রটির পোস্ট প্রডাকশনের কাজ চলছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫