জরুরি সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান আরাস্তু খান

ইসলামী ব্যাংক নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য দেয়া হচ্ছে

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের জাকাত ফান্ডে জাকাতের টাকা আছে মাত্র ২৮ কোটি টাকা। অথচ প্রধানমন্ত্রীর (পিএম) তহবিলে ইসলামী ব্যাংকের ৪৫০ কোটি টাকা দেয়ার গুজব উঠেছে, যা একেবারেই ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন খোদ ব্যাংকটির চেয়ারম্যান আরাস্তু খান। তিনি বলেন, ইসলামী ব্যাংক নিয়ে এমন অনেক বিভ্রান্তিকর তথ্য দেয়া হচ্ছে। এ থেকে গ্রাহকদের সতর্ক থাকার অনুরোধ করেছেন চেয়ারম্যান। গতকাল রাজধানীর মতিঝিলে ইসলামী ব্যাংক টাওয়ারের মোহাম্মদ ইউনুস অডিটোরিয়ামে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান। 
 চেয়ারম্যান বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ এককভাবে যে সব বক্তব্য দিচ্ছেন, তা মিথ্যা। প্রধানমন্ত্রীও এ বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। বিষয়টি জানতে আমাকে প্রধানমন্ত্রী ডেকেছেন। প্রায় ৪০ মিনিট তার সাথে কথা হয়। ব্যক্তিগতভাবে কোনো পরিচালকের বক্তব্য বোর্ডের বক্তব্য হতে পারে না। তার বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্যে বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ বিব্রত।
উল্লেখ্য, গত ১১ মে ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে জানান, তাকে পদত্যাগের জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। তার পক্ষে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ও ভাইস চেয়ারম্যানের পদে দায়িত্ব পালন করা প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন তার সরে যাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। এরপর তিনি ১৩ মে অনুষ্ঠিত ব্যাংকের পর্ষদ সভায় যোগ দেন। ওই দিনই বিকেলে তার বনানীর বাসভবনে গণমাধ্যমকে জানান, ইসলামী ব্যাংকের জাকাত ফান্ডের ৮০ ভাগ প্রধানমন্ত্রীর জাকাত তহবিলে দেয়া, শিক্ষাবৃত্তিপ্রাপ্তদের তালিকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে হস্তান্তর করাসহ বোর্ড সভার বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিয়ে কথা বলেন। 
কার্যত তার দেয়া তথ্য সঠিক ছিল না বলে সংবাদ সম্মেলনে দৃঢ়ভাবে জানানো হয়েছে। এর আগে গত বুধবারও ব্যাংকের পক্ষ থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে অনুরূপ দাবি করা হয়। সম্মেলনে ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল হামিদ মিঞাসহ ব্যাংকের কয়েকজন পরিচালক উপস্থিত থাকলেও ভাইস চেয়ারম্যান আহসানুল আলম উপস্থিত ছিলেন না। 
আরাস্তু খান জানান, ইসলামী ব্যাংকের জাকাত ফান্ডে ৪৫০ কোটি টাকা রয়েছে, বলে যে তথ্য তিনি (আহসানুল আলম) তা সঠিক নয়। মূলত ব্যাংকের জাকাত ফান্ডে সর্বমোট ৩৪৭ কোটি টাকা ছিল, এরমধ্যে এ পর্যন্ত ১৭৪ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে, আর ১৪৫ কোটি টাকা ট্যাক্স বাবদ পরিশোধের জন্য রাখা হয়েছে এবং ব্যাংকের ফান্ডে অবশিষ্ট ২৮ কোটি টাকা রয়েছে। তিনি বলেন, ইসলামী ব্যাংক একটি বেসরকারি খাতের উদ্যোগ। এ ব্যাংকটি গত বছরে ৪৫০ কোটি টাকা নিট মুনাফা অর্জন করেছে। এ অর্থ এর শেয়ারহোল্ডাররা পাবেন, সরকার নয়। তিনি আরো জানান, বোর্ড মিটিংয়ে মূলত জাকাত ফান্ডের ট্যাক্স কোন খাত থেকে দেয়া হবে, তা নিয়ে আলোচনা করা হয়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.