ঢাকা, রবিবার,১৯ নভেম্বর ২০১৭

প্রথম পাতা

আতঙ্কে আপন জুয়েলার্সে গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কারের মালিকেরা

আবু সালেহ আকন

১৯ মে ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট
আপন জুয়েলার্সে আটকা পড়েছে শত শত মানুষের স্বর্ণালঙ্কার। নারী পুরুষ নির্বিশেষে এসব মানুষ এখন চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। যদিও শুল্ক গোয়েন্দা দফতর বলেছে, গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কারের মালিকদের কাছে তা ফেরত দেয়া হবে। তাদের স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে কোনো ঝামেলা হবে না। তারপরেও আতঙ্ক কাটছে না। 
আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদারের ছেলে সাফাত ও তার বন্ধু নাঈম আশরাফ গত ২৮ মার্চ রাজধানীর বনানীর হোটেল রেইনট্রিতে দুই শিক্ষার্থীকে অস্ত্রের মুখে আটক রেখে ধর্ষণ করে। সাফাতের অপর বন্ধু সাদমান সাকিফ তাদের সহায়তা করে। এ সময় অস্ত্র ঠেকিয়ে দুই তরুণী এবং তাদের অপর দুই বন্ধু-বান্ধবীকে জিম্মি করে সাফাতের বডিগার্ড রহমত আলী ওরফে আজাদ। ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করে সাফাতের ড্রাইভার বেল্লাল। ঘটনায় গত ৬ মে ধর্ষিতাদের মধ্যে এক তরুণী বনানী থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলা দায়েরের পরই আপন জুয়েলার্সের বিরুদ্ধে ডার্টি মানির সন্ধানে নামে শুল্ক গোয়েন্দা দফতর। অভিযান চালিয়ে আপন জুয়েলার্সের ৫টি শোরুম সিলগালা করা হয়। জব্দ করা হয় ১৩ মণ স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কার এবং ৪২৭ গ্রাম ডায়মন্ড। শুল্ক গোয়েন্দা দফতর সূত্র জানায়, এর মধ্যে ১০ কেজির মতো স্বর্ণ গচ্ছিত রয়েছে। জানা গেছে, শত শত মানুষের গচ্ছিত স্বর্ণ রয়েছে আপন জুয়েলার্সে। বিভিন্ন সময় তারা তাদের স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কার গচ্ছিত রাখেন। আবার অনেকে আছেন যারা আপন জুয়েলার্স থেকে স্বর্ণালঙ্কার কিনে তা আবার মেরামতের জন্য দিয়েছেন। জব্দকৃত মালামালের মধ্যে ওই স্বর্ণ এবং অলঙ্কারও রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ক্রেতা গতকাল বলেছেন, তিনি টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য একটি অলঙ্কার আপন জুয়েলার্সের সীমান্ত স্কোয়ার শাখায় জমা দিয়ে এসেছেন। তিনি এখন কবে সেটি ফেরত পাবেন কিংবা আদৌ ফেরত পাবেন কি না তাই নিয়ে শঙ্কিত তিনি। আপন জুয়েলার্সের একাধিক শাখার কর্মচারীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, অনেকেই খোঁজখবর নিচ্ছেন তাদের স্বর্ণালঙ্কার ফেরত পাবেন কি না, তা নিয়ে। ওই কর্মচারীরা বলেন, যারা অলঙ্কার গচ্ছিত রেখেছেন তাদের খবর দিতে বলা হয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ থেকে। গচ্ছিত অলঙ্কারের মালিকদের খবর দেয়া হচ্ছে তাদের মালামাল নিয়ে যাওয়ার জন্য।
শুল্ক গোয়েন্দা দফতর থেকে জানানো হয়েছে, জব্দকৃত স্বর্ণ ও অলঙ্কারের বৈধ কাগজপত্র নিয়ে শুল্ক গোয়েন্দা সদর দফতরে হাজির হতে বলা হয়েছিল। গত বুধবার বেলা ১১টায় প্রতিষ্ঠানের তিন মালিক হাজির হয়েছিলেন শুল্ক গোয়েন্দা সদর দফতরে। শুল্ক গোয়েন্দা দফতর জানায়, জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, আপন জুয়েলার্সের প্রতিটি শাখায় রিপেয়ারিং এবং একচেঞ্জের জন্য যেসব গ্রাহক তাদের স্বর্ণ এবং অন্যান্য মূল্যবান অলঙ্কার অক্ষত অবস্থায় গচ্ছিত রেখেছিলেন তাদের আগামী সোমবার বেলা ২টায় সংশ্লিষ্ট রসিদসহ উপস্থিত হতে বলা হয়েছে। তাদের স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কার এবং অন্যান্য মূল্যবান অলঙ্কারাদি অক্ষত অবস্থায় ফেরত দেয়া হবে। আপন জুয়েলার্স তাদের গ্রাহকদের এই নির্দেশনা জানিয়ে দেবে বলে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ জানায়। 
কিন্তু এরপরেও মালিকেরা আশ্বস্ত হতে পারছেন না গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কারের ফেরতের বিষয়ে। কয়েকজন বলেছেন, এই মালামাল তারা কিভাবে ফেরত পাবেন তা নিয়ে তারা চরম দুশ্চিন্তায়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫