ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৭ জুলাই ২০১৭

প্রথম পাতা

অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক জুয়েলার্স সমিতির

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯ মে ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট
আপন জুয়েলার্সে শুল্ক গোয়েন্দাদের অভিযানের প্রোপটে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ তুলে দেশজুড়ে অনির্দিষ্টকাল ধর্মঘট ডেকেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। গতকাল বায়তুল মোকাররম মার্কেটে সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক থেকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 
সম্প্রতি আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন শোরুমে অভিযান চালিয়ে সোনা ও হিরা উদ্ধার করে শুল্ক গোয়েন্দারা। বন্ধ করে দেয় রাজধানীর পাঁচটি শো-রুম। এ ঘটনার পর আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তালা ঝুলিয়ে বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ তুলে প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি। গত ১৫ মে বায়তুল মোকাররমে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সমিতির এক জরুরি সভা করে সংগঠনটি। ওই দিন গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সংগঠনটি বিনা নোটিশে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি শোরুম বন্ধ করে দেয়ার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। সমিতির সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার ও সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা স্বারিত ওই প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অবিলম্বে হয়রানিমূলক এ অভিযান বন্ধ করে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি বন্ধ শো-রুম অবিলম্বে খুলে দেয়ার দাবি জানানো হয়।
এ দিকে শুল্ক গোয়েন্দাদের অভিযানের পর গোয়েন্দারা গণমাধ্যমকে জানান, গত পাঁচ বছর ধরে দেশে বৈধভাবে সোনা আমদানি বন্ধ থাকার পরেও কিভাবে কোত্থেকে স্বর্ণ আনছেন, সেসব জানতে চাওয়া হবে। এর জবাবে শুল্ক গোয়েন্দাদের উদ্দেশে গণমাধ্যমকে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ জানান, তার মতো করেই দেশের সবাই এ ব্যবসা করছেন। তার ব্যবসা বন্ধ করলে সবার ব্যবসাই বন্ধ করতে হবে। 
এরপর গতকাল সভা থেকে সারা দেশের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ডাকে জুয়েলার্স সমিতি। সভা থেকে জুয়েলারি ব্যবসাবান্ধব আমদানি নীতিমালা প্রণয়নের দাবি জানান তারা। জানা যায়, বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির বর্তমান সদস্য সংখ্যা সাত শতাধিক। এর বাইরে সারা দেশে হাজার দশেকের মতো গয়নার দোকান রয়েছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫