ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৯ জুন ২০১৭

ক্রীড়া দিগন্ত

ব্যাটিং বোলিংয়ে উন্নতির প্রত্যাশা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৯ মে ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট
প্র্যাকটিসে নামার আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল  : সংগৃহিত

প্র্যাকটিসে নামার আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল : সংগৃহিত

শুধু মাশরাফিই কেন, যেকোনো অধিনায়কই এমন পারফরম্যান্সে হতাশ হবেন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে বাড়তি কোনো চাপ ছিল না। নিজেদের নর্মাল ম্যাচ খেলতে পারলেও ভালো কিছু করা সম্ভব ছিল। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের তারকা খেলোয়াড়দের অনুপস্থিতিতে এ ম্যাচে আরো ভালো কিছু করার ছিল প্রত্যাশা। কিন্তু ব্যাটিং-বোলিংসহ কোনো ডিপার্টমেন্টই পারেনি দায়িত্ব নিয়ে খেলতে। প্রথম ব্যাটিং করে ওই ম্যাচে ২৫৭ রান করলেও এখন আর ওয়ানডেতে এটা কোনো রানই নয়। যেকোনো ব্যাটিং লাইনের জন্য এটা টেনশনমুক্ত থেকে চেজ করার জন্য স্কোর। বোলাররা যদি এক্সট্রা কিছু দেখাতে পারতেন, তাহলেও হয়তো কিছু করা সম্ভব ছিল; কিন্তু ব্যাটসম্যানদের পর বোলাররাও ব্যর্থ।
 সাকিব ও মিরাজের ওপর যে প্রত্যাশা ছিল সেটাতে স¤পূর্ণ রূপে ব্যর্থ হয়েছেন। যেটুকু সাফল্য তা ওই পেস বোলাররাই। রুবেল হোসেন ভালো করেছেন। মুস্তাফিজও নিজ মার্কেই ছিলেন। দু-একজন বোলার ভালো করলেই নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিংলাইনকে চেপে ধরা যাবে তাও আবার স্বল্প রানের টার্গেটে এটি তো সম্ভবপর না। হয়ওনি। ফলে আয়ারল্যান্ড ম্যাচে এসব বিষয়ে উন্নতির তাগিদ এখন টিম ম্যানেজম্যান্টের। মাশরাফি নিজেও সেটি চান। কারণ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ড্রেস রিহার্সেলে যদি দুর্দান্ত কিছু না দেখানো যায়-তাহলে আইসিসির ওই টুর্নামেন্টের প্রতিটা ম্যাচের লজ্জায় পড়তে হবে। 
মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের ব্যাটিং ও বোলিং দুটো ডিপার্টমেন্টেই ঢের উন্নতির প্রয়োজন। কারণ বড় দলগুলোর বিপক্ষে এমন পারফরম্যান্স দিয়ে কাজ হবে না।’ তিনি জানান এটি নিয়ে কাজও হচ্ছে। তবে এমন পারফরম্যান্সের মধ্যেও ভালো কিছু খুঁজে পাচ্ছেন দেশ সেরা অধিনায়ক। তিনি বলেন, টপ-অর্ডারে সৌম্য সরকার রান পেয়েছেন। মুশফিক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ব্যাটেও রান এসেছে। এটি ইতিবাচক দিক। পরের ম্যাচে এদের পাশাপাশিতে অন্যরা যদি ভালো করেন তাহলে বড় স্কোর সংগ্রহ সম্ভব।’ মাশরাফি বলেন, ‘ইনিংসে তিনটি হাফ সেঞ্চুরি হলেও পার্টনারশিপ আরো বড় হওয়া উচিত ছিল। সেটি হয়ে আউট হওয়াটা দুঃখজনক। শুধু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সই নয়। ভালো পার্টনারশিপ গড়ার দিকেও মন দিতে হবে।’ 
ব্যাটসম্যানদের মতো বোলিংয়ে মুস্তাফিজের পারফরম্যান্সে খুশি অধিনায়ক। ‘চমৎকার বোলিং করেছেন সে।’ রুবেল হোসেনের বোলিংটাকেও তিনি দারুণ বলে অভিহিত করেছেন। বড় আসরে এ দুইয়ের বোলিংটা কার্যকরী হলে অনেক ক্ষেত্রে দুশ্চিন্তামুক্ত থাকা যায়।’ এ ছাড়াও অন্যদের বোলিংটাও আরো ভালো হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করে পরবর্তী ম্যাচে এ সব দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। কারণ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আগে প্রতিটা ডিপার্টমেন্টে আত্মবিশ্বাসটা বাড়ানো না গেলে তো চিন্তার কারণও!

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫