ঢাকা, শনিবার,২২ জুলাই ২০১৭

ক্রীড়া দিগন্ত

গাজীকে মাটিতে নামাল কলাবাগান

উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে শেখ জামালে পরাস্ত প্রাইম ব্যাংক

ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৯ মে ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট
প্রাইম ব্যাংকের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মারুফ ও জাকির। তবে তাদের দল হেরে গেছে : বিসিবি

প্রাইম ব্যাংকের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মারুফ ও জাকির। তবে তাদের দল হেরে গেছে : বিসিবি

প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে উড়তে থাকা গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সকে মাটিতে নামিয়ে আনলো কলাবাগান। কাল তারা হারিয়েছে লিগের একমাত্র অপরাজিত দল গাজীকে। এতে করে লিগে আর কেউ অপরাজিত থাকলো না। লিগের প্রতিটা ম্যাচেই টানা জিতে চলছিল এ দলটি। টানা ৯ রাউন্ডে জয় নিয়ে একচ্ছত্র প্রধান্য বিস্তার করেছিল দলটি। সেটাতে আর থাকতে পারেনি তারা। ফতুল্লা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাতেই হেরেছে মূলত দলটি। ২২৩ রানের জবাবে উইকেটেই দাঁড়াতে পারেনি। চরম ব্যাটিং বিপর্যয় দেখিয়ে ৯৫ রানে অল আউট হয়ে যায় তারা।
 যে সব ব্যাটসম্যানরা এর আগে তুখোর ব্যাটিং করে দলকে একের পর এক সাফল্য এনে দিয়েছিলেন। কাল তাদের দৈন্যতা ছিল চোখে পড়ার মতো। এতটা ব্যর্থ হবেন তারা তা ছিল কল্পনাতীত। প্রথম ব্যাটিং করতে নেমে কলাবাগানের ওপেনার তাসামুল হকের সেঞ্চুরিতে খুব বড় স্কোর যে সংগ্রহ করেছেন তারা, তা কিন্তু নয়। ২২২ রান এটা সাদামাটাই এখন স্কোর। ৫০ ওভারে ওই রান করে কেউ জয়ের আশা সাধারণত করে না। কিন্তু কলাবাগান দলের ক্রিকেটাররা শেষ পর্যন্ত সহজ এক জয় তুললো এ ম্যাচে। ১২৭ রানের ব্যবধানে জিতেছে তারা এতে। দুই ওপেনার তাসামুল ও জসিমুদ্দিন মিলে ৫৮ রানের পার্টনারশিপ খেলে ভালো একটা ভিত গড়ার পর তাসামুল এক প্রান্তে থাকলে অন্যরা তেমন ভালো ব্যাটিং করতে পারেননি। তুষার ইমরানের ৩২, জসিমুদ্দিনের ২৮, সাদ নাসিমের ২০ রান ইনিংসের উল্লেখযোগ্য। বোলিংয়ে গাজীর পারভেজ রসুল লাভ করেন চার উইকেট ৪৪ রানে। 
এরপর ২২৩ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে গাজীর ব্যাটসম্যানরা ১৭ রান থেকেই উইকেট তুলে দিয়ে আসতে থাকেন। জহুরুল আউট হন তখন। এটা ধারাবাহিক চলতে থাকলে ৪২ রানের মধ্যে পড়ে যায় তাদের ৭ উইকেট। বড় পরাজয়ের লক্ষণ ফুটে ওঠে তখনই। শেষ পর্যন্ত ৯৫ রানেই শেষ ইনিংস ৩২.৫ ওভারে। নাদিফ চৌধুরী করেন ৪৫ রান। এ ছাড়া ওপেনার এনামুল বিজয়ের ১৬ রান উল্লেখযোগ্য। ইনিংসে আর একজন ব্যাটসম্যান রনি করেছিলেন ১১ রান। কলাবাগানের সাদ ও সনজিৎ সাহা নেন তিনটি করে উইকেট। এ ছাড়া আবুল হাসান ও তুষার ইমরান লাভ করেন দু’টি করে উইকেট। 
দিনের অপর ম্যাচে প্রাইম ব্যাংককে ২ উইকেটে হারায় শেখ জামাল উত্তেজনাপূর্ণ এক ম্যাচে। প্রথম ব্যাটিং করে ২৭০ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর সংগ্রহ করেছিল প্রাইম ব্যাংক। যার মধ্যে ছিল ওপেনার মেহেদি মারুফের ৬১ রান। রাজিব নেন দুই উইকেট। 
এরপর খেলতে নেমে শেখ জামাল দেখে শুনে ব্যাটিং করে ঠিকই পৌঁছে যায় জয়ের লক্ষ্যে ১ বল হাতে রেখে। ওপেনার ফজল মাহমুদের ৩৬ রানের ইনিংসের পর পি চোপড়ার ৪৮, সোহাগ গাজীর ৫৪, জিয়ার ৩৪ রানের ইনিংসের পর জয়ের স্বপ্ন দেখা শুরু দলটির। সেটা বাস্তবায়ন করেন ইলিয়াস সানি ও মাহমুদুল হকরা। সানি করেন ৪৪ রান। এ ছাড়া মাহমুদুল করেন অপরাজিত ২৭ রান। আরিফুল নিয়েছিলেন চার উইকেট।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫