স্ম র ণ : কাজী কবির উদ্দীন আহমদ

চট্টগ্রামে সংবাদপত্র শিল্প বিকাশের অন্যতম অগ্রপথিক, অধুনালুপ্ত দৈনিক আজান সম্পাদক, বিশিষ্ট সমাজসেবক আলহাজ কাজী কবির উদ্দীন আহমদের মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৯৫ সালের ১৯ মে বার্ধক্যজনিত রোগে ৯৪ বছর বয়সে তিনি ইন্তেকাল করেন। মরহুম কাজী কবির উদ্দীন আহমদের সাংবাদিকতা জীবন শুরু হয় ১৯৩৭ সালে সাপ্তাহিক সত্যবার্তা পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে। খুব অল্প সময়েই তিনি পত্রিকাটিকে তৎকালীন পূর্ববাংলার একটি জনপ্রিয় সাপ্তাহিকে পরিণত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। এমনকি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও এতে লেখা পাঠিয়ে এর গৌরব বৃদ্ধি করেন। পাকিস্তান জন্ম লাভ করার পর ১৯৪৯ সালে কাজী কবির উদ্দীন দৈনিক আজান পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত এর দায়িত্বে ছিলেন। ১৯৫৭ সালে দৈনিক আজান বের করেন নিজ উদ্যোগে, যা মূলত আর্থিক সঙ্কটে পড়ে বন্ধ হয়ে যায় । কাজী কবির উদ্দীন ১৯৬৪ সালে দৈনিক ইনসাফ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। নীতিগত কারণে অল্প কিছু দিনের মধ্যেই তিনি এ পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে চট্টগ্রাম জিলা পরিষদের মাসিক পত্রিকা চট্টগ্রাম সংবাদ-এর সম্পাদনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৭২ সালের মাঝামাঝি সময়ে তিনি এ পত্রিকা থেকে অবসর গ্রহণের মাধ্যমে সাংবাদিকতা পেশা থেকে বিদায় নেন।  বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় সমান পারদর্শী কাজী কবির উদ্দীন আহমদ তৎকালীন পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক ডন, মর্নিং নিউজ, পাকিস্তান অবজারভার এবং চট্টগ্রামের স্থানীয় দৈনিক আজাদী, পূর্বকোণ  ও নয়া বাংলায় বহু প্রবন্ধ লিখেছেন।
সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য ১৯৭৯ সালে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান তার জন্য আমৃত্যু মাসিক ভাতা মঞ্জুর করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি ‘মাহবুব-উল-আলম স্বর্ণপদক’ লাভ করেন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমাজসেবায়ও তার অবদান বিশেষভাবে স্মরণযোগ্য। সুদীর্ঘ ৪০ বছর তিনি চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ছলিমপুর ও ভাটিয়ারী ইউনিয়নের ঋণ সালিসি বোর্ড, ইউনিয়ন বোর্ড ও ইউনিয়ন কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ও চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.