বৃষ্টিতেই অনাসৃষ্টি মঙ্গলে!

নয়া দিগন্ত অনলাইন

মঙ্গল গ্রহে এক সময় পানি ছিল তার প্রমাণ আগেই মিলেছে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের নতুন দাবি, মঙ্গলের পৃষ্ঠদেশের উপরের আকার, অববাহিকা, গহ্বর, নদীখাত হওয়ার কারণ, ভারী বৃষ্টি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, আবহাওয়ার ক্রমাগত পরিবর্তনের ফলে বৃষ্টির দাপট উত্তরোত্তর বেড়ে গিয়েছিল। যার ফলে গ্রহের পৃষ্ঠদেশের আকারে বিশাল পরিবর্তন হয়। ঠিক এই রকম পরিবর্তনই দেখা যায় পৃথিবীর মাটিতেও। মঙ্গলের সঙ্গে পৃথিবী এবং চাঁদের ভৌগলিক অবস্থানের প্রচুর মিল রয়েছে। দু’‌টি গ্রহ এবং একটি উপগ্রহেই রয়েছে নদীখাত, উপত্যকা, গহ্বর, অববাহিকা। যা তৈরি হয়েছে ভারী বৃষ্টির ফলে।
আমেরিকার জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক রবার্ট ক্র‌্যাডক এবং র‌্যাল্ফ লরেঞ্জ বলছেন, মঙ্গলের ভারী বৃষ্টি এবং গ্রহ থেকে পানি হারিয়ে যাওয়ার কারণ জানতে হলে আগে জানা প্রয়োজন কীভাবে গ্রহের আবহাওয়া পাল্টে গেল। তাদের মতে, সাড়ে চার শ' কোটি বছর আগে জন্মের সময় মঙ্গলের আবহাওয়া ছিল অন্যরকম। উচ্চচাপ বলয়ের ফলে পানি ছিল বাষ্পকণার আকারে। পরে বাতাসের চাপ এতটাই কমে যায় যে পানিকণা ভারী এবং বড় হয়ে গ্রহের পৃষ্ঠদেশে তীব্র গতিতে পড়ে মাটি, পাথর ভেদ করে ঢুকে যায়।
বিজ্ঞানীদের ধারণা, আগেকার আবহাওয়া থাকলে মঙ্গলে বৃষ্টির কণা পৃথিবীর বৃষ্টিকণা থেকে আয়তনে মাত্র এক মিলিমিটার বেশি হতো। ক্র‌্যাডক এবং লরেঞ্জের এই সমীক্ষা মঙ্গলের আবহাওয়া নিয়ে নতুন করে ভাবাচ্ছে বিজ্ঞানীদের।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.