ঢাকা, বুধবার,২৪ মে ২০১৭

নিত্যদিন

লে সে থো র রূ প ক থা : কে বেশি চালাক

রূপান্তর : সুফি মামুদ

১৭ মে ২০১৭,বুধবার, ০০:০০


প্রিন্ট

(গত দিনের পর)
বলি কী, তুমি জলদি নিচে নেমে এসো। এত সুন্দর খবরটার জন্য আমরা এক সঙ্গে ফুর্তি করি। আর তো পারা যাচ্ছে না রে ভাই। ওপরের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে আমার ঘাড় ব্যথা করছে। জলদি নেমে এসো।
শেয়ালের তর সইছে না আর। জিভ নিশপিশ করছে তার। পেটের ভেতর খিদাটা প্রবলতর হয়ে উঠছে ক্রমে ক্রমে। বাচ্চাগুলোও নিশ্চয় খানাদানা না পেয়ে ছটফট করছে এতক্ষণে। এই মোরগটা খেতে দারুণ হবে নিশ্চয়। কখন যে এর ঘাড় মটকানো যাবেÑ সেটাই একমাত্র চিন্তা। তার মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে শুধু এই চিন্তাই।
মোরগ কিন্তু নিচে নামলো না। শেয়ালের কথাকে পাত্তাই দিল না। একটু দূরের দিকে তাকালো। তাকিয়েই সে উল্লাসে চেঁচিয়ে ওঠে, কোঁকর কোঁ। ওই তো, ওই তো ওরা আসছে। এই এসে গেল বলে।
একটু যেন ঘাবড়ে যায় শেয়াল। ব্যাকুল হয়ে প্রশ্ন করে, মোরগ ভায়া, ওদিকটায় কী দেখছো তুমি অমন করে?
মোরগের গলায় এক ঝলক আনন্দ ফুটে ওঠে, দেখছি একদল শিকারি কুকুর এদিকটায় ছুটে আসছে। (চলবে)

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫