নতুন নাটকে পূর্ণিমা

বিনোদন প্রতিবেদক

বড় পর্দায় এখন আর খুব একটা দেখা যায় না পূর্ণিমাকে। বিশেষ দিবসের নাটকই এখন তার একমাত্র ভরসা। সেই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি তিনি এক ঘণ্টার একটি নাটকে অভিনয় করেছেন। নাম মিসেস কুক।
নাটকটি লিখেছেন ও পরিচালনা করেছেন শ্রাবণী ফেরদৌস। তিনি বলেন, ‘এটা একটা গৃহিণীর গল্প। সে গান গাইতে জানত, নাচতে পারত। বিয়ের আগে তার অনেক স্বপ্ন ছিল। কিন্তু বিয়ের পর কুক হয়ে যায়। এখান থেকে বের হতে চায় সে। নানা সামাজিক কমিটমেন্টের কারণে শেষ পর্যন্ত সফল হয়। এখানে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন আহসান হাবিব নাসিম। এ ছাড়া একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইমন।’
পূর্ণিমা বলেন, ‘এতে আমার চরিত্রের নাম রেহানা। চমৎকার চরিত্র। বর্তমান বাস্তবতায় একজন গৃহিণীর বাইরের দুনিয়ায় নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টার গল্প। শেষ পর্যন্ত সফল হয় না, কারণ বাস্তবতা।’

এ নাটকে পূর্ণিমার বিপরীতে অভিনয় করেছেন ইমন। তিনি বলেন, ‘এখানে আমার চরিত্রটি খুব মজার। আমি পূর্ণিমার দূরসম্পর্কের ভাই। আমি তাকে উৎসাহ জোগাই তার প্রতিভা কাজে লাগাতে। আমার উৎসাহে তিনি চেষ্টাও করেন। এগিয়ে যান। তারপর সামাজিক নানা কারণে তিনি আবার ফিরে আসেন আগের জায়গায়।’

বড় পর্দা ছেড়ে ছোটপর্দায় মনোযোগী হওয়া প্রসঙ্গে পূর্ণিমা বলেন, বড় পর্দা থেকে ছোট পর্দায় এসে কাজ করার অনেক উদাহরণ আমাদের এখানে রয়েছে। এর মূল কারণ, এখন ভালো মানের চলচ্চিত্র তৈরি হচ্ছে না আমাদের এখানে। যে কয়টা তৈরি হচ্ছে, সেখানে কিছু শিল্পীই ঘুরেফিরে অভিনয় করেন। তাই আগে থেকে আমরা যারা কাজ করছি, তাদের এখানে প্রস্তাব খুব একটা আসে না। যে ক’টি ছবির প্রস্তাব সাম্প্রতিক সময়ে পেয়েছি তার একটিও ভালো মানের বলে মনে হয়নি।
তিনি বলেন, আমাদের এখানে বিদেশী চলচ্চিত্রের আমদানি নিয়ে অনেক লেখা পত্রিকায় পড়ি, কিন্তু কাজ তো কিছু হচ্ছে বলে মনে হয় না। সম্প্রতি কলকাতার যে সিনেমাগুলো আমাদের এখানে এসেছে, সেগুলো নিয়ে কোনো সমালোচনামূলক লেখা না দেখে হতবাক হয়েছি। তবে যাই হোক, এখন নিয়মিত ছোট পর্দায় কাজ করতে চাই। পাশাপাশি ভালো গল্পের ছবির প্রস্তাব পেলে বড় পর্দায়ও কাজ করতে চাই।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.