ঢাকা, বুধবার,২২ নভেম্বর ২০১৭

আগডুম বাগডুম

তুতুনের হাতে জোনাক পোকা

রবিউল কমল

০৬ মে ২০১৭,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

লোডশেডিং। অন্ধকার। জানালার পাশে বসে আছে তুতুন। দূরে জোনাক পোকা খেলা করছে। জ্বলছে আর নিভছে। জোনাক পোকারা কত স্বাধীন। স্কুলে যেতে হয় না। রাতজেগে বই পড়তে হয় না। ইশ, যদি জোনাক পোকা হতে পারতাম! খুব মজা হতো। মনে মনে এসব ভাবছে তুতুন। তখন পেছন থেকে ডাক এলোÑ
কী করছো তুতুন?
এই তো জোনাক পোকা দেখি। দেখো ওরা কত মজা করছে।
আসলে ওরা মজা করছে না।
তাহলে?
ওরা শিখছে কিভাবে উড়তে হয়, আলো জ্বালতে হয় ইত্যাদি।
ইশ, আমিও যদি জোনাক পোকা হতাম।
তাহলে?
আমিও উড়তাম, আলো জ্বালাতাম। অনেক মজা হতো।
ঠিক আছে আমি তোমাকে জোনাক বানিয়ে দেবো। তবে শর্ত আছে।
কী শর্ত?
তোমাকে আম্মুর কথা শুনতে হবে। প্রতিদিন স্কুলে যেতে হবে। আর কাসে ফার্স্ট হতে হবে।
ঠিক আছে। কিন্তু তুমি কে?
আমি জোনাকদের যুবরাজ। আমার আব্বু জোনাকের রাজা। আমিও ওখানে উড়তে শিখছিলাম। তোমাকে একা বসে থাকতে দেখে চলে এলাম।
সত্যি?
সত্যি সত্যি সত্যি। আমাকে তোমার হাতে নিলেই তুমি জোনাক হয়ে যাবে। তবে তুমি আলো জ্বালতে পারবে না।
আচ্ছা। তুমি তাহলে আমার পকেটে আসো।
ওমনি জোনাক যুবরাজ তুতুনের হাতে এলো। তুতুনও জোনাক হয়ে গেল।
এই তুতুন ওঠ। স্কুলে যাবি না। সকাল হয়েছে তো। আম্মুর ডাকে ঘুম ভাঙে তুতুনের। ঘুম থেকে উঠে তুতুন দেখে, তার হাতে কোনো জোনাক পোকা নেই। তবে জানালার পাশে একটি প্রজাপতি খেলা করছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫