ঢাকা, শুক্রবার,২০ অক্টোবর ২০১৭

চট্টগ্রাম

সেনবাগের বিএনপি ও যুদলের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

সেনবাগ(নোয়াখালী) সংবাদদাতা

২০ এপ্রিল ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৩:৪১


প্রিন্ট

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া বাজারে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও যুদলের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওযা, সংর্ঘষ ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হামলা ভাংচুর এবং লুটপাটেরর ঘটনা ঘটেছে। এসময় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে মোখলেসুর রহমান (৪৫) বাজারের দুই ব্যবসায়ী রাজু ও মিলনকে সোনাইমুড়ি হাসপাতালে এবং বাকিদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। খবর পেয়ে সেনবাগ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত চলে।
স্থানীয় ১নং ছাতারপাইয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আবদুর রহমান জানায়, গত ১৬ এপ্রিল রোববার সেনবাগের কেশারপাড় ইউপির স্থগিত কেন্দ্রের নির্বাচনের দিন কেশারপাড়ের কালারাইতা কেন্দ্রে গোলযোগ হলে পুলিশ গুলি চালিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। এরপর পুলিশ ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ছাতাপাইয়া ইউনিয়ন যুবদল সেক্রটারী সুমনের নামে মামলা করে। এর আগে সুমনের বাড়িতে অসামাজিক কর্মকান্ড চলছে এ খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেগমগঞ্জ ও সেনবাগ নির্বাহী অফিসারের অনুরোধে সেনবাগ থানা পুলিশ তার বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে। এসব ঘটনার জন্য সুমন আবদুর রহমান চেয়ারম্যানকে অভিযুক্ত করে। বুধবার রাতে সুমনের নেতৃত্বে একদল লোক আবদুর রহমান চেয়ারম্যান সমর্থকদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর এবং লুটপাট শুরু করলে শুরু হয় উভয়ের লোকজনের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ। সন্ধ্যা ৭টা থেকে শুরু হওয়া ওই ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে রাত ৯টা পর্যন্ত । পরে সেনবাগ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে এবং মুসলধারে বৃষ্টি শুরু হলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
যোগাযোগ করলে সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) হারুন অর রশিদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন-এঘটনায় কোন পক্ষই থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫