ঢাকা, শুক্রবার,২০ অক্টোবর ২০১৭

রকমারি

পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম দেশ: প্রিন্সিপিলিটি অব সিল্যান্ড

আহমেদ শামিল

০৮ এপ্রিল ২০১৭,শনিবার, ১৮:৪১


প্রিন্ট

পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট দেশ সিল্যান্ডের আয়তন মাত্র ৫৫০ ঘনমিটার। ইংল্যান্ডের উত্তর সাগরে এই রাষ্ট্রটির অবস্থান। দেশটির একটি রাজধানীও রয়েছে। দেশটির রাজধানীর নাম HM Fort Roughs। এই দেশটি সাগরের ওপর ভাসমান অবস্থায় রয়েছে। মাটি থেকে অনেকটা ওপরে দুটো বড় বড় স্টিলের পাইপের ওপর এই দেশটির অবস্থান। এই দেশটিতে কোনো মাটি নেই। পুরোটাই স্টিল দ্বারা তৈরি। সিল্যান্ডের জনসংখ্যা গোপন রাখা হয়েছে।
মূলত এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্যবহৃত একটি সমুদ্রবন্দর। জার্মান সেনারা যেকোনো সময় ইংল্যান্ড আক্রমণ করতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে এইচ এম ফোর্ট রাফট নামে একটি সামুদ্রিক দুর্গ নির্মাণ করে ব্রিটিশ সেনাবাহিনী। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে অন্যান্য অসংখ্য দুর্গের সাথে তারা এটাকেও পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। ১৯৬৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর ব্রিটিশ নাগরিক রয় বেটস এবং তার পরিবার এই জায়গাটির স্বত্বাধিকারী হন তারপর তারা এটাকে একটি স্বাধীন মাইক্রো রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা দেন। পৃথিবীর কোনো দেশ এখনো সিল্যান্ডকে স্বীকৃতি না দিলেও কেউ তাদের বিরোধিতা করেনি। ১৯৬৮ সালে ব্রিটিশ আদালত ঘোষণা করে, সিল্যান্ড ব্রিটিশ সমুদ্রসীমার বাইরেÑ যদিও ১৯৮৭ সালে ইংল্যান্ড তাদের সমুদ্রসীমা বাড়ালে এটি ইংল্যান্ডের সমুদ্রসীমার মধ্যে চলে আসে।
রয় বেটস নিজেকে সিল্যান্ডের প্রিন্স এবং সর্বময় কর্তা হিসেবে ঘোষণা করে। ২০১২ সালে তিনি মারা গেলে তার ছেলে মাইকেল সিল্যন্ডের নতুন প্রিন্স রিজেন্ট ও হেড অফ দ্য স্টেস্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।
একটি দেশ হিসেবে সিল্যান্ডের নিজস্ব মুদ্রা ও ডাকটিকিট রয়েছে। সিল্যান্ড ১৯৭২ সালে মুদ্রা ও ১৯৬৯ সালে ডাকটিকিট ইস্যু করা শুরু করে। সিল্যান্ডের মুদ্রার নাম সিল্যান্ড ডলার যার মূল্য মার্কিন ডলারের সমান। সিল্যান্ড সরকার পাসপোর্ট ইস্যু করলেও ১৯৯৭ সালে সেগুলোকে আবার বাতিল বলে ঘোষণা করে। সিল্যান্ডের নিজস্ব ফুটবল দলও রয়েছে।
চাইলে আপনিও ঘুরে আসতে পারেন পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম দেশটি থেকে। এজন্য আপনাকে যেতে হবে ইংল্যান্ডের উত্তর উপকূল থেকে সাগরের গভীরে ১০ কিমি.।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫