ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৪ নভেম্বর ২০১৯

প্রথম পাতা

আবার বাড়ছে মগবাজার-মৌচাক ফাইওভারের নির্মাণব্যয়

সৈয়দ সামসুজ্জামান নীপু

০৩ এপ্রিল ২০১৭,সোমবার, ০০:০০


প্রিন্ট

রাজধানীর মগবাজার-মৌচাক (কম্বাইন্ড) ফাইওভারের নির্মাণব্যয় আবার বাড়ছে। এবার বাড়ছে মৌচাক অংশের (রামপুরা চৌধুরী পাড়া থেকে মালিবাগ রেল ক্রসিং-মৌচাক মোড়-মালিবাগ মোড়-শান্তিনগর ও রাজারবাগ পুলিশ লাইন) কাজের ব্যয়। প্রায় ৩ দশমিক ৯৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এ অংশের নির্মাণব্যয় বাড়ছে ১০৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা।
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মৌচাক অংশের নির্মাণব্যয় বৃদ্ধির প্রস্তাবটি ইতোমধ্যে ‘সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার কমিটি’-তে পাঠানো হয়েছে। কমিটির আগামী বুধবারের বৈঠকে অনুমোদনের জন্য এটি উপস্থাপন করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানিয়েছে।
এর আগে এ ফাইওভারের অপর দু’টি অংশের মোট ৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে নির্মাণব্যয় ২৭১ কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে। সব মিলিয়ে এ ফাইওভারের মোট নির্মাণব্যয় বাড়ছে ৩৭৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা।
নির্মাণব্যয় বাড়ার কারণ সম্পর্কে মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চার লেন বিশিষ্ট এ ফাইওভারের প্রকল্প (রামপুরা চৌধুরীপাড়া থেকে মালিবাগ রেল ক্রসিং-মৌচাক মোড়-মালিবাগ মোড়-শান্তিনগর ও রাজারবাগ পুলিশ লাইন) অংশের দৈর্ঘ্য হচ্ছে প্রায় ৩ দশমিক ৯৪ কিলোমিটার। প্রকল্প এলাকায় বিভিন্ন সেবা প্রদানকারী সংস্থার ভূগর্ভস্থ অবকাঠামো (পানি, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও স্যুয়ারেজ লাইন) স্থানান্তরযোগ্য না হওয়ায় প্রতিটি ফাউন্ডেশনের পৃথক নকশা প্রণয়ন, পাইল সংখ্যা, পাইল দৈর্ঘ্য ও পাইল ক্যাপের আকার বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সাথে ভূমিকম্প সহনের জন্য ফাইওভারে পট বিয়ারিং ও শক ট্রান্সমিশন ইউনিট সংযোজন এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ড আরোপিত ভ্যাট ও আয়কর বৃদ্ধি এবং ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী মূল্য সমন্বয় ইত্যাদি কারণে নির্মাণব্যয় বেড়েছে।
জানা গেছে, বর্তমান মৌচাক অংশ নির্মাণে ভ্যাট-ট্যাক্সসহ মূল চুক্তিতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩৪৩ কোটি ৭০ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। ভেরিয়েশন প্রস্তাব অনুযায়ী ভ্যাট-ট্যাক্সসহ এর মোট নির্মাণব্যয় বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ৪৫২ কোটি ১০ লাখ ৮৮ হাজার টাকা। অর্থাৎ ব্যয় বাড়ছে ১০৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা। ২০১৩ সালের ৬ অক্টোবর সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এর নির্মাণকাজের ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া হয়। যৌথভাবে এ কাজটি পেয়েছে এমসিসিসি ও তমা কনস্ট্রাকশন্স।
এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ক্রয় কমিটির বৈঠকে মগবাজার-মৌচাক ফাইওভারের দু’টি অংশের জন্য মোট ২৭১ কোটি টাকা নির্মাণব্যয় বৃদ্ধির পৃথক দু’টি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে বাংলামোটর থেকে মগবাজার মোড়-মৌচাক পর্যন্ত প্রায় ২ দশমিক ২১ কিলোমিটার ফাইওভারের নির্মাণেব্যয় বৃদ্ধি পায় ১৫৫ কোটি ৪১ লাখ টাকা। মূল চুক্তিতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ১৯৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। ভেরিয়েশন প্রস্তাবে এর ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ৩১৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা। ২০১২ সালের ১৭ অক্টোবর সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ ফাইওভারটি নির্মাণকাজের ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া হয়। যৌথভাবে এ কাজটি পেয়েছে এমসিসিসি-এসইএল-ইউডিসি।
অন্য দিকে সাতরাস্তা মোড় থেকে এফডিসি মোড়-সোনারগাঁও রেলক্রসিং হয়ে হলি ফ্যামিলি হাসপাতাল পর্যন্ত প্রায় ২ দশমিক ৫৬ কিলোমিটার ফাইওভার নির্মাণে ব্যয় বাড়ে ১১৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। মূল চুক্তিতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ২১২ কোটি ২৫ লাখ টাকা। ভেরিয়েশন প্রস্তাবে এর নির্মাণব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৭ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ২০১২ সালের ৩০ ডিসেম্বর সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ ফাইওভারটি নির্মাণ কাজের ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া হয়। যৌথভাবে এ কাজটি পেয়েছে সিমপ্লেক্স-নাভানা।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫