ঢাকা, শনিবার,২৪ জুন ২০১৭

সিলেবাস

২০১৭ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষার প্রস্তুতি : পর্বসংখ্যা-২৮

কর্ম ও জীবনমুখী শিক্ষা প্রথম অধ্যায় : মেধা, কায়িকশ্রম ও আত্ম অনুসন্ধান

নাসরীন সুলতানা সিনিয়র শিক্ষক, রমনা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নয়াটোলা, মগবাজার, ঢাকা

২১ মার্চ ২০১৭,মঙ্গলবার, ০০:০০


প্রিন্ট

সুপ্রিয় জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষার শিক্ষার্থী বন্ধুরা, শুভেচ্ছা নিয়ো। আজ তোমাদের কর্ম ও জীবনমুখী শিক্ষা বিষয়ের ‘প্রথম অধ্যায় : মেধা, কায়িকশ্রম ও আত্ম অনুসন্ধান’ থেকে একটি সৃজনশীল প্রশ্ন ও তার উত্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো।
উদ্দীপকটি পড়ে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লিখ।
লিখনপদ্ধতির আবিষ্কার মানব সভ্যতার জন্য অনেক বড় আবিষ্কার। এ আবিষ্কার এক দিকে যেমন মানুষের কঠিন মেধাশ্রমের ফল, তেমনি এর ফলে মানুষের অন্যান্য মেধাশ্রম সৃষ্ট বিজ্ঞানের আবিষ্কার, প্রাচীন জীবনযাপনের কথা, সভ্যতার কথা, ইতিহাস, বিভিন্ন দেশ ও জাতির কথা প্রাকৃতিক সম্পদের কথা সংরক্ষণ করা গেছে।
(ক) আমাদের বাংলালিপি কোথা থেকে এসেছে?
(খ) কেন লিখ পদ্ধতির আবিষ্কার হলো? ব্যাখ্যা করো।
(গ) মিসরীয় লিপিগুলো দ্বারা মানুষ কিভাবে মনের ভাব প্রকাশ করত? আলোচনা করো।
(ঘ) প্রাচীন লিখন পদ্ধতি আবিষ্কারের কী কী কারণ থাকতে পারে বলে তুমি মনে করোÑ বিশ্লেষণ করো।
উত্তর : ক. আমাদের বাংলালিপি ব্রহ্মীলিপি থেকে এসেছে।
উত্তর : খ. প্রাচীনকালে এক দেশের মানুষ যা আবিষ্কার করত তা আরেক দেশের মানুষ কিভাবে জানবে এ নিয়ে খুবই সমস্যা হতো। কোনো কিছু কাউকে জানাতে গেলে নিজে গিয়ে, না হয় দূত পাঠিয়ে জানাতে হতো। তাই আবিষ্কৃত হয় লিখন পদ্ধতি।
উত্তর : গ. মিসরীয় লিপিগুলোর অন্য নামে হচ্ছে মিসরীয় বর্ণমালা। প্রাচীনকালের শুরুর দিকে মানুষের লেখা ছিল ছবিভিত্তিক। বাস্তব জীবনের ঘটনা, গাছ-মাছ-নদী-পাহাড়, পর্বত মানুষ ইত্যাদির ছবি এঁকে তার মনের ভাব বোঝাত। এ ছাড়া এসব ছবি একের পর এক সাজিয়ে তারা একটি বাক্য তৈরি করত। এভাবেই তারা প্রাচীনকালের লিপিগুলো তথা মিসরীয় লিপি, প্রাচীন গ্রিকলিপি, প্রাচীন ভারতীয় লিপির মাধ্যমে মানুষ তাদের মনের ভাব প্রকাশ করত।
উত্তর : ঘ. প্রাচীনকাল থেকে মানুষ বিভিন্ন জিনিস আবিষ্কার করছে। এক দেশের মানুষ যা আবিষ্কার করে, আরেক দেশের মানুষ বা বহুকাল পরের মানুষ তা কিভাবে জানবে তার কোনো উপায় ছিল না, যা ছিল অনেক সমস্যার। এ ছাড়া এক যুগের মানুষ কোনো কিছু আবিষ্কার করলে বা কোনো যন্ত্র বানালে, এ যন্ত্র কিভাবে বানাতে হয় পরের যুগের মানুষের তা জানার কোনো উপায় ছিল না। তাই আবিষ্কৃত হয়েছিল লিখন পদ্ধতি অর্থাৎ এমন নানা সমস্যার সমাধান খুঁজে পাওয়ার জন্য মানুষ প্রথমে বিভিন্ন চিত্র ও পরে বিভিন্ন লিপি লিখতে শিখল আর এভাবেই আবিষ্কৃত হয় লিখন পদ্ধতি।
উপরিউক্ত আলোচনার মাধ্যমে আমি বলতে পারি যে, বিভিন্ন সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করাই ছিল প্রাচীন লিখন পদ্ধতি আবিষ্কারের একমাত্র কারণ।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫