ঢাকা, শুক্রবার,২৬ মে ২০১৭

শেষের পাতা

রোহিঙ্গাদের তোপের মুখে মিয়ানমার প্রতিনিধিদল

উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা

২১ মার্চ ২০১৭,মঙ্গলবার, ০০:০০


প্রিন্ট

মিয়ানমার সামরিক জান্তার নির্যাতনের শিকার হয়ে বালুখালী বস্তিতে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সাথে আলাপ করতে গিয়ে তোপের মুখে পড়ল মিয়ানমার কমিশন। গতকাল মিয়ানমার প্রতিনিধিদল বালুখালী বস্তিতে পৌঁছে সেখানে আইওএম নির্মিত গোলঘরে রুদ্ধদ্বার কক্ষে নির্যাতিত রোহিঙ্গা নারী-পুরুষের সাথে কথা বলে। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে মিয়ানমার প্রতিনিধিদল বালুখালী বস্তি ত্যাগ করে।
এ সময় বৈঠকে উপস্থিত বি ব্লকের জোবাইর, আবুল ফয়েজ ও সাদেক মাঝি মিয়ানমার কমিশনের উদ্ধৃতি দিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, তারা মিয়ানমার কমিশনের প্রশ্নের জবাবে সে দেশের সেনাসদস্যকর্তৃক রোহিঙ্গা নারী ধর্ষণ, নির্বিচারে হত্যা, শিশুদের পুড়িয়ে মারা, ঘরবাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়াসহ তাদের মালামাল লুটপাটের অভিযোগ উত্থাপন করলে মিয়ানমার কমিশন তা সরাসরি অস্বীকার করে তারা বুঝাতে চেয়েছে, রোহিঙ্গারা উসকানি দিচ্ছে।
বালুখালী বস্তির লালু মাঝি জানান, মিয়ানমারে মংডুর খেয়ারিপ্রাং গ্রামের ধর্ষিতা আমিনা খাতুন (২২), মর্জিয়া বেগম (২৪), সাবিয়া খাতুন (২৬), গুলিবিদ্ধ আব্দুল্লাহ (২৩) ও নুর মোহাম্মদ (২২) সহ প্রায় ১০-১২ জন ধর্ষিতা ও গুলিবিদ্ধ রোহিঙ্গা নর-নারী তাদের বীভৎস ঘটনার বর্ণনা দেন। মিয়ানমার কমিশন রোহিঙ্গাদের এসব অভিযোগ শুনলেও এর কোনো প্রতিকার বা সুষ্ঠু সমাধানের সঠিক সিদ্ধান্তের আশ্বস্ত করেনি। রোহিঙ্গাদের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এ সময় আইওএমসহ বিভিন্ন এনজিও সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
রোহিঙ্গা কমিশনের পক্ষে যে নেতৃবৃন্দ বালুখালী বস্তি পরিদর্শন করেছেন তার মধ্যে জ্যং মিন্ট পে, ত্যং তুই থেট, তুন মায়ার্ট, নিয়াট সোয়ে, থেট থেট ঝিন, নিয়ান নাই ম্যান। এর আগে রোববার মিয়ানমার কমিশন কুতুপালং বস্তি পরিদর্শন করতে গেলে রোহিঙ্গাদের বিক্ষোভের মুখে পড়ে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫