ঢাকা, সোমবার,২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭

প্রথম পাতা

ঢাকায় জুলফিকার আলী ভুট্টো

নিজস্ব প্রতিবেদক

২১ মার্চ ২০১৭,মঙ্গলবার, ০০:০০


প্রিন্ট

জনতার মিছিল-স্লোগানে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়ার দাবি জোরালো হতে থাকে। তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের প্রতি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার জন্য জোর দাবি জানান। এ দাবিতে হাজারো মানুষের মিছিল গিয়ে মিশে বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িতে।
সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিক্ষুব্ধ লেখক ও শিল্পীরা সাহিত্য ও গণসঙ্গীতের আসরের আয়োজন করে। সারা দিন স্বাধীনতাকামী মানুষের শত শত মিছিল গিয়ে মিশে শহীদ মিনারে।
চট্টগ্রামের পোলো ময়দানে মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী বলেন, ‘জেনারেল ইয়াহিয়ার উচিত শেখ মুজিবের হাতে ক্ষমতা তুলে দিয়ে সরে পড়া। বাংলার সাড়ে সাত কোটি মানুষ শেখ মুজিবের পেছনে কাতারবন্দী। ...আমরা এ দেশকে স্বাধীন করবোই। এতে তিনি আরো বলেন, ‘মুজিব স্বাধীনতার ঘোষণা দিলে স্বাধীনতা প্রিয় বিশ্বের সকল দেশই বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেবে।’
১৯৭১ সালের এই দিন বিকেলে ইয়াহিয়া খানের সাথে আলোচনার জন্য পিপিপি নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো ঢাকায় আসেন। তিনি এসেই হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ওঠেন। বিমানবন্দর থেকে কড়া সেনা পাহারায় হোটেলে যাওয়ার পথে তিনি বাংলাদেশের প্রতিবাদী মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়েন।
এই দিন বঙ্গবন্ধুর সাথে ইয়াহিয়ার অনির্ধারিত বৈঠক হয়। প্রেসিডেন্ট ভবনের ওই বৈঠক শেষে তিনি তার বাসভবনে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সঙ্কট সমাধানের পথে তারা এগোচ্ছেন’।
স্বাধীন বাংলাদেশ শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ ২৩ মার্চ থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে উৎপাদিত পণ্য বর্জনের সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেন। জয়দেবপুরে ১৯ মার্চ জারি করা সান্ধ্য আইন ছয় ঘণ্টার জন্য প্রত্যাহার করা হয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫