কে এম ওবায়দুর রহমানের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

স্বাধীনতাযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বিএনপির সাবেক মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী কে এম ওবায়দুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।
১৯৪০ সালের ৫ মে ফরিদপুর জেলার অন্তর্গত নগরকান্দা থানাধীন লস্করদিয়া গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন কে এম ওবায়দুর রহমান। তার পিতার নাম খন্দকার আতিকুর রহমান এবং মাতা রাবেয়া বেগম। ছাত্রজীবনে রাজেন্দ্র কলেজের ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন ওবায়দুর রহমান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবস্থায় একবার ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং দুইবার ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬২-৬৩ শিক্ষাবর্ষে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) জিএস নির্বাচিত হন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন এবং ১৯৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থানে সত্রিয় ভূমিকা রাখেন। ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি তার নিজ নির্বাচনী এলাকা বর্তমান নগরকান্দা, সালথা ও কৃষ্ণপুর থেকে এমপি নির্বাচিত হন এবং ১৯৭৩ সালে তৎকালীন সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ এবং বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৮ সালে জাতীয়তাবাদী ফ্রন্টে যোগদান এবং জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি গঠনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। জীবনে তিনি পাঁচবার এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৮৬ সালের মাঝামাঝি সময়ে বিএনপির মহাসচিব নিযুক্ত হন এবং মৃত্যুর আগের দিন পর্যন্ত বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
তার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক বাণীতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, কে এম ওবায়দুর রহমান মনেপ্রাণে একজন গণতন্ত্রী ছিলেন এবং গণতন্ত্রে বহুমত সহিষ্ণুতার ঐতিহ্যকে মান্য করতেন। তিনি ছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্রের একনিষ্ঠ অনুসারী। স্বাধীনতাযুদ্ধে অন্যতম সংগঠকের ভূমিকা পালন করে তিনি আমাদের জাতীয় ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন। বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে স্বৈরাচারের কবল থেকে গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের প্রত্যেকটি আন্দোলন সংগ্রামে কে এম ওবায়দুর রহমানের অবদান দল ও দেশবাসী চির দিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। তিনি মরহুমের রূহের মাগফিরাত কামনা করেন।
ওবায়দুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সকাল ৮টায় স্থানীয় বিএনপির নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ মরহুমের মাজার জিয়ারত করবেন। সারা দিন কুরআন তিলাওয়াত এবং বেলা ৩টায় নগরকান্দা ডেইরি ফার্মের মাঠে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হবে। স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। আগামীকাল দুপুরে ঢাকার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হবে। বিজ্ঞপ্তি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.