শ্রীপুরে হেরাবন আস্তানা গুঁড়িয়ে দিয়েছেন বনকর্মীরা ৬ ভক্ত আটক

গাজীপুর সংবাদদাতা

গাজীপুরের শ্রীপুরে গহিন গজারি বনে অভিযান চালিয়ে এক আধ্যাত্মিক সাধকের আস্তানা ‘হেরাবন’ গুঁড়িয়ে দিয়েছেন বনকর্মীরা। এ সময় বনকর্মীদের বাধা দেয়ায় হেরাবনের ছয় ভক্তকে আটক করা হয়েছে। তারা হলেনÑ সেকেন্দার (৬০), নজরুল ইসলাম (২৮), সাফিজ উদ্দিন (৩৫), মাহফুজ (২৪), রাসেল (২৪) ও ফজলুল হক (৪৫)।
শ্রীপুর রেঞ্জ কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার ফুলানীরছিট এলাকার শিমলাপাড়া বন বিটের গভীর বনে জয় গুরু মনিরশাহ নামে এক ব্যক্তি প্রায় ১০ বছর ধরে ‘হেরাবন’ নামে একটি আস্তানা গড়ে তোলেন। তথাকথিত আধ্যাত্মিক সাধক পরিচয়ে ওই ব্যক্তি বনবিভাগের সংরক্ষিত ওই বনের বহু প্রাকৃতিক গাছ কেটে প্রায় এক হেক্টর বনের জমি দখল করেন। গতকাল বনকর্মীরা সেখানে অভিযান চালিয়ে বনের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা কয়েকটি স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেন। এ সময় বাধা দেয়ায় হেরাবনের ছয় ভক্তকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
তিনি জানান, ওই গ্রামের আবু তালেবের মা জমিলা খাতুন তার আশ্রয়ের জন্য ৭ শতাংশ জমি লিখে দেন। পরে মনির শাহ সেখানে ‘হেরাবন’ আস্তানা গড়ে তোলেন। কিছু দিনের মধ্যে স্থানীয় ও দূর-দূরান্তের অসংখ্য ভক্ত জোটে তার। এ সময় তিনি লিখে দেয়া জমির বাইরেও বনের প্রায় ১২ বিঘা জমি দখলে নিয়ে প্রাকৃতিক বন ধ্বংস করে আস্তানার জন্য স্থাপনা গড়ে তোলেন। কিছু অংশে প্রায় এক হাজার আমের চারা রোপণ করেন। এর আগেও কয়েকবার আস্তানা উচ্ছেদের চেষ্টা করা হলে ভক্ত ও অনুসারীদের অনুরোধ ও বাধার মুখে সেই উদ্যোগ সফল হয়নি।
চলতি মাসে হেরাবন আস্তানার অবৈধ দখল ও মাদক সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি উপজেলা আইশৃঙ্খলা কমিটির সভায় আলোচনা হয়। এরপরই অভিযানটি পরিচালিত হয়। তবে জয় গুরু মনির শাহ্র নিজ মালিকানাধীন জমিতে কোনো অভিযান পরিচালিত হয়নি।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম খোকন জানান, সাধারণ মানুষের আবেগ-অনুভূতিকে পুঁজি করে প্রাকৃতিক বন ধ্বংস করে অবৈধভাবে এমন আস্তানা গড়ে তোলা হয়েছে। এর সাথে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে।
হেরাবন আস্তানার সাধক জয় গুরু মনির শাহ বলেন, বনবিভাগের লোকজন আমার জমিতে নির্মিত স্থাপনা ভেঙে দিয়েছে এবং আমার ছয় ভক্তকে আটক করে নিয়ে গেছে। এই আস্তানায় কোনো মাদক সেবন হয় না। অথচ একটি মহল মাদক ব্যবসায় ও সেবনের সাথে এ আস্তানার সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে অপপ্রচার চালিয়ে আসছিল।  

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.