প্যারিসে পুলিশের ছোড়া টিয়ার শেল তুলে পুলিশের দিকেই ছুড়ছেন এক বিক্ষোভকারী। গতকাল পুলিশি নির্যাতনের শিকার পরিবারগুলোর আহ্বানে সেখানে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় :এএফপি
প্যারিসে পুলিশের ছোড়া টিয়ার শেল তুলে পুলিশের দিকেই ছুড়ছেন এক বিক্ষোভকারী। গতকাল পুলিশি নির্যাতনের শিকার পরিবারগুলোর আহ্বানে সেখানে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় :এএফপি

পুলিশি নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্যারিসে হাজার হাজার লোকের বিক্ষোভ

আলজাজিরা ও দ্য গার্ডিয়ান

ক্রমবর্ধমান পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের রাস্তায় বিক্ষোভ মিছিল করেছেন হাজার হাজার মানুষ। বিক্ষোভ দমাতে পুলিশ মিছিলে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। স্থানীয় সময় রোববার বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করে ‘মার্চ ফর জাস্টিস অ্যান্ড ডিগনিটি’ নামে একটি সংগঠন। মিছিল শুরু হলে হাজারো মানুষের স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে এলাকা। বিক্ষোভকারীরা ‘নো জাস্টিস, নো পিস’ বা (যেখানে ন্যায় বিচার নেই সেখানে শান্তি নেই) বলে স্লোগান দেন।
তারা সাম্প্রতিক সময়ে কৃষ্ণাঙ্গসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর পুলিশি নির্যাতন বেড়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে, তা বন্ধের দাবি জানান। মিছিলে অংশ নেন ফাতিহা বোউরাস। তিনি নিজেকে একজন ক্ষতিগ্রস্তের মা পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে পুলিশি হত্যার পরিমাণ অনেক বেড়ে গেছে। এটা বন্ধ করা উচিত।’ মিছিলের সহ-আয়োজক আমাল বেনতৌসি বলেন, ‘আমরা এসব অপরাধের বিচার চাই।’ ২০১২ সালে প্যারিসে আমালের ভাই পুলিশের গুলিতে নিহত হন। এর পর থেকে তিনি ভাই হত্যার বিচার চেয়ে আন্দোলন করছেন।
বিক্ষোভের শুরু একটি ধর্ষণের ঘটনার জেরে। গত ফেব্রুয়ারির শেষ নাগাদ প্যারিসের উত্তরাংশে থিও নামে ২২ বছর বয়সী একজন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক পুলিশ সদস্যের দ্বারা ধর্ষণের শিকার হন। থিও দুই সপ্তাহ ধরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
এ ঘটনার পরে একজন পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়। অপর তিন পুলিশ নিষ্ঠুর নির্যাতনের দায়ে অভিযুক্ত হন। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ধর্ষণকে ‘দুর্ঘটনা’ বলে দাবি করা হয়। চলমান পুলিশি নির্যাতনবিরোধী আন্দোলনে থিও ‘নির্যাতিতের প্রতীক’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।
উল্লেখ্য, ফ্রান্সে কয়েক দফা সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার পর দেশটিতে দীর্ঘ দিন ধরে জরুরি অবস্থা চলছে। জরুরি অবস্থা চলমান থাকায় দেশটির পুলিশ অসীম ক্ষমতা ভোগ করছে। ২০১৫ সালের নভেম্বরে প্যারিস হামলা এবং গত বছরের জুলাইয়ে নিস শহরে ট্রাক হামলায় বহু মানুষ হতাহত হন।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.