নাজিরপুরে ইউপি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী নির্ধারণ : আ’লীগে এখনো ঐকমত্য হয়নি

দেলোয়ার হোসাইন পিরোজপুর

পিরোজপুরের নাজিরপুরের তিনটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামী ১৬ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলার ২ ইউনিয়নে ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জটিলতা ও এক ইউপিতে নির্বাচিত চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে আসন শূন্য হওয়ায় এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ইউনিয়নগুলো হলোÑ দেউলবাড়ী দোবরা, শ্রীরামকাঠী ও কলারদোয়ানিয়া।
এখন প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে ও দলীয় নেতৃবৃন্দ প্রার্থী মনোনয়ন দিতে যাচাই-বাছাইয়ে শেষ মুহূর্তের কাজ শেষ করছেন। প্রধান দুই রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) তাদের প্রার্থী নির্ধারণে ও তৃণমূলের ভোটের ওপর নির্ভর করে আগাচ্ছে। ইতোমধ্যে বিএনপির প্রার্থী নির্ধারণ হলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্ধারণে জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ এখনো সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেননি।
আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও প্রার্থী বাছাই বিষয়ে পিরোজপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি গাজী নুরুজ্জামান বাবুল ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ হাকিম হাওলাদারের সাথে আলাপে জানা গেছে, বিএনপিদলীয় প্রার্থীরা হলেনÑ দেউলবাড়ী দোবরা ইউনিয়নের ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি শাহ আলম সরকার, শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নে ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন এবং কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নে ইউনিয়ন বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক হাসনাত ডালিম। আর আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থীরা হলেনÑ দেউলবাড়ী দোবরা ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এফ এম রফিকুল আলম বাবুল, শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নে মিজানুর রহমান রিপন ও কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নে মোহাম্মদ নান্না মিয়া।
তবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দেয়া তথ্যের সাথে নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের একটি ইউপি (দেউলবাড়ী দোবরা) ছাড়া অপর দু’টি (শ্রীরামকাঠি ও কলারদোয়ানিয়া) ইউনিয়নে প্রার্থীর নামের মিল পাওয়া যায়নি।
নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশারেফ হোসেন খান দেউলবাড়ী দোবরা ইউনিয়নে দলের ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক এফ এম রফিকুল আলম বাবুলকে প্রার্থী দেয়ার কথা জানিয়েছেন। শ্রীরামকাঠী ইউপিতে ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি উত্তম কুমার মৈত্র ও কলারদোয়ানিয়া ইউপিতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আলাউদ্দিন বাহাদুরকে প্রার্থী হিসেবে সমর্থনসহ স্বাক্ষর করে জেলায় পাঠিয়েছেন বলে জানান।
এ দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ হাকিম হাওলাদার জানান, দলীয় সমর্থন পেতে একাধিক প্রার্থী রয়েছেন। আমরা বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে প্রাথমিকভাবে দলীয় সমর্থন ও প্রার্থী নির্ধারণ করেছি। দেউলবাড়ী দোবরা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এফ এম রফিকুল আলম বাবুলকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও সদ্য আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া (সদস্য) অলিউল্লাহ দলীয় প্রার্থী হতে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। এ দুই প্রার্থীর মধ্যে ভোটাভুটিতে ২০ ভোটের সমান সমান ভোট পেলেও দলের আদর্শ ঠিক রাখতে বাবুলকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। রফিকুল আলম বাবুল ছাত্রজীবন থেকেই দলের (ছাত্রলীগ) সাথে সম্পৃক্ত।
শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের প্রার্থী মিজানুর রহমান রিপন বলেন, তিনি এ ইউনিয়নের নির্বাচিত পাঁচ বারের সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে। তাকে এলাকাবাসী চায় চেয়ারম্যান হিসেবে।
তিনি আরো বলেন, শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন পরিষদে সাবেক ও বর্তমানে মনোনয়ন দেয়া রিপনের বাবা এম এ মালেক বেপারির মৃত্যুতে এখানে তার পরিবারের সদস্যরাই প্রাধান্য পাবেন। প্রয়াত এমপি সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের উদ্ধৃতি দিয়ে সাধারণ সম্পাদক বলেন, তার আসনে তার স্ত্রীকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ যে প্রার্থীর নাম (উত্তম কুমার মৈত্র) বলেছেন, তিনি তো পরেও আসতে পারবেন। এ নির্বাচনটি কেন হচ্ছে, এটাও বিবেচনায় রাখা উচিত। কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নে অপর আশাবাদী প্রার্থী থেকে ভোটে বেশি সমর্থন পেয়েছেন নান্না মিয়া।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.