ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২২ জুন ২০১৭

বাংলার দিগন্ত

নাঙ্গলকোটে একটি ব্রিজের অভাবে ৩০ হাজার মানুষের ভোগান্তি

সাইফুল ইসলাম নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা)

২১ মার্চ ২০১৭,মঙ্গলবার, ০০:০০


প্রিন্ট
নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) : চারিতুপা গ্রামবাসীর উদ্যোগে ডাকাতিয়া নদীর ওপর নির্মিত কাঠের সাঁকো :নয়া দিগন্ত

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) : চারিতুপা গ্রামবাসীর উদ্যোগে ডাকাতিয়া নদীর ওপর নির্মিত কাঠের সাঁকো :নয়া দিগন্ত

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের মৌকারা ইউনিয়নের চারিতুপা গ্রামের লোকজনের যাতায়াতে নতুন ডাকাতিয়া নদীর ওপর ব্রিজ না থাকায় এলাকাবাসীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এলাকাবাসীর উদ্যোগে যাতায়াতের জন্য একটি কাঠের পুল নির্মাণ করলেও বর্তমানে তা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। পুলের ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে কোনোভাবে জনসাধারণ যাতায়াত করলেও ভারী কোনো যানবাহন চলাচল করতে না পারায় মালামাল আনয়নে মানুষকে অনেক কষ্ট ভোগ করতে হয়।
এলাকাবাসী জানান, উপজেলার মৌকারা ইউনিয়নের চারিতুপা গ্রামটি নতুন ডাকাতিয়া নদীর পাশে অবস্থিত। নদীর ওপর ব্রিজ না থাকায় দীর্ঘ দিন ধরে এলাকাবাসীকে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নিরুপায় হয়ে ২০১১ সালে চারিতুপা গ্রামবাসী তিন লাখ টাকা চাঁদা তুলে কাঠের পুল নির্মাণ করে যাতায়াত করে আসছেন। এতে জনসাধারণের যাতায়াতসহ শিক্ষার্থীদের স্কুল, কলেজ, মাদরাসায় যাতায়াত সহজ হয়। তবে পুলের দুই পাশে রেলিং না থাকায় দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থীসহ অনেককে আহত হতে হয়েছে। এলাকাবাসীর উদ্যোগে নির্মিত পুলের ওপর দিয়ে মৌকারা ইউনিয়নের মৌকারা, মহেশ্বর, পরকরা, চারিতুপা গ্রামের প্রায় ৩০ হাজার লোক যাতায়াত করে। তা ছাড়া পার্শ্ববর্তী চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ওপর দিয়ে যাওয়া ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ের চিওড়া পর্যন্ত এলাকাবাসীর যাতায়াত করতে সহজ হয়। এলাকার শিক্ষার্থীরা পুল দিয়ে মৌকারার মহেশ্বর প্রাথমিক বিদ্যালয়, ময়ূরা উচ্চবিদ্যালয়, রায়কোট ইউনিয়নের তুলাতুলি উচ্চবিদ্যালয় এবং চৌদ্দগ্রামের কনকাপৈত নূর মিয়া ডিগ্রি কলেজে যাতায়াত করে। ২৪০ ফুট দীর্ঘ পুলটি বর্ষাকালে খুবই জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে। যেকোনো সময় পুলটি ভেঙে প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে।
সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে চারিতুপা গ্রামের শহীদ, শামসুল আলম, মামুন, রশিদ ও আবু তাহের জানান, ব্রিজটি নির্মাণের জন্য তারা উপজেলা প্রকৌশল অফিসে বারবার আবেদন করেও কোনো ফল পাচ্ছেন না। জরুরি ভিত্তিতে ব্রিজটি নির্মাণের দাবি জানান। নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রকৌশলী জাবেদ হোসেন বলেন, ব্রিজটির বিষয়ে আমরা অবগত আছি। ইতোমধ্যে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রাক্কলন প্রেরণ করা হয়েছে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫