ঢাকা, সোমবার,২৪ জুলাই ২০১৭

উপসম্পাদকীয়

ইংলিশ ব্রেকফাস্ট

আবু এন এম ওয়াহিদ

২০ মার্চ ২০১৭,সোমবার, ০০:০০


প্রিন্ট

আজকের শিরোনাম এবং ছবি দেখে আপনারা ভাবতে পারেন বিষয়বস্তুটি আমার লেখার গতানুগতিক ধারায় একটি ব্যতিক্রম; কিন্তু আসলেই কি তাই? খাওয়া-দাওয়ার ওপর তো আগেও একাধিক লেখা লিখেছি। এ ছাড়াও আমার অন্যান্য লেখায় কখনো প্রাসঙ্গিক, কখনো অপ্রাসঙ্গিকভাবে রান্নাবান্না ও খাদ্যসংক্রান্ত বিষয়কে টেনে এনেছি। বলতে পারেন, এ আমার এক চিরাচরিত বদাভ্যাস। এত দিনে এটা আপনাদের গাসহা হয়ে গেছে বলেই আমার বিশ্বাস। তবে আমার এমন ধারণা ভুলও হতে পারে। যা হোক, এবার আসল কথায় আসি। আজ ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ নিয়ে লেখার একটি সুনির্দিষ্ট কারণ আছে। এটা জানতে চাওয়া আপনাদের আবদার নয়, বরং অধিকার বলেই মনে করি।
আপনারা জানেন, কনফারেন্স উপলক্ষে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় যাই। সফরকালে স্বাভাবিকভাবেই হোটেলে থাকি, হোটেলের ক্যাফেটেরিয়াতে খাই, রেস্তোরাঁতেও যাই। কোনো সময় নিজে যাই, কোনো সময় অন্যরা নিয়ে যায়। লাঞ্চ ও দু’বেলার (লাঞ্চের আগে ও পরে) চা/কফি সম্মেলন স্থলেই অন্য সবার সাথে সেরে ফেলি। কদাচিৎ স্থানীয় হোস্টদের বাড়িতে গিয়েও খাওয়ার সুযোগ হয়। এগুলোর প্রত্যেকেই একেকটি চমৎকার অভিজ্ঞতা হিসেবে আমার স্মৃতির খাতায় লেখা হয়ে আছে।
সবচেয়ে মূল্যবান, তৃপ্তিদায়ক ও আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা হলো, কারো বাড়িতে স্বল্প সময়ের আতিথেয়তা গ্রহণ করা। এমন সৌভাগ্য আমার বেশ কয়েকবারই হয়েছে। এর মাঝে বিশেষ করে, বোস্টন (আমেরিকা), নাগোয়া (জাপান), পার্থ (অস্ট্র্রেলিয়া), প্রিটোরিয়া (দক্ষিণ আফ্রিকা), গ্লাসগো (স্কটল্যান্ড) ও লন্ডনের (ইংল্যান্ড) অভিজ্ঞতাগুলো কখনো ভোলার মতো নয়। না ভোলার কারণ কিন্তু মজাদার খাদ্যতালিকা ও হোস্টদের মধুর ব্যবহারের মধ্যেই সীমিত নয়। বিষয়টি আরো ব্যাপক ও বিস্তৃত। একবেলা কারো বাড়িতে যাওয়া মানে শুধু খাওয়া নয়, বরং একজন অজানা অচেনা মানুষ ও একটি পরিবারের সাথে কিছুক্ষণ অন্তরঙ্গ পরিবেশে সময় কাটানো, কথা বলা, ভাবের আদানপ্রদান করা, তাদের জীবনযাত্রা, জীবনপ্রণালী, জীবনমান ও সংস্কৃতি আপন চোখে দেখা, জানা ও বোঝার সুযোগ পাওয়া। এ পর্যন্ত পাওয়া সব সুযোগের জন্য আলহামদুলিল্লাহ্!
ভ্রমণকালে হরেক রকমের দেশী-বিদেশী মজাদার খাবার, নতুন নতুন মানুষের সাথে পরিচয়, নতুন জায়গা ও পরিবেশে মনোমুগ্ধকর অনুভূতির ফাঁকে ফাঁকে আরেকটি নগণ্য বিষয় বারবার আমার নজর কেড়েছে, আর সেটাই হলো আজকের লেখার মূল সূত্র। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেশে খাবার টেবিলে একটি বিশেষ বস্তুর সাক্ষাৎ পেয়েছি যেটা আমার কাছে একটু অবাকই লেগেছে! বস্তুটি খাবার ঘরে ‘টি-কর্নার’-এ গরম পানির পাত্র, চায়ের পেয়ালা-পিরিচ, চামচ ও দুধ-চিনির পাশেই সুন্দর করে সাজানো থাকে। এ আর কিছু নয়, এর নাম ‘টি-ব্যাগ’। বস্তুতপক্ষে, ‘টি-ব্যাগ’ আমার চোখে যতটা না চমক লাগিয়েছে তার চেয়ে অনেক বেশি চমক লাগিয়েছে তার মোড়ক। অনেক জায়গায় এই ‘টি-ব্যাগ’-এর রঙিন মোড়কে লেখা দেখেছি দু’টি শব্দ - ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’!
ভিয়েতনামে ‘হো চি মিন সিটি’র হোটেল নভোটেলের ক্যাফেটেরিয়ায় দেখেছি ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি-ব্যাগ’। একই টি-ব্যাগ দেখেছি পোল্যান্ডের স্ট্যাচিন নগরের বিখ্যাত পটেটো কেকের দোকানে গত বছর আমার ছোট মেয়ে নায়লা লন্ডন থেকে আমার জন্য একটি স্যুভেনির এনেছিল, সেটাও খুলে দেখি- ভেতরে ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি-ব্যাগে’ ভরা। এই জাতীয় টি-ব্যাগ আমি আরো অনেক জায়গায় দেখেছি, সব জায়গার কথা এখন মনে নেই।
বলে রাখা জরুরি, এসব টি-ব্যাগে ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ লেখা থাকলেও মোড়কের আকার, রঙ এবং নকশা একেক জায়গায় একেক রকম। এর মানে, বিভিন্ন কোম্পানি ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি-ব্যাগ’ বাজারজাত করে থাকে। এতটুকু বুঝলেও যেটা আমার মাথায় আসেনি সেটা হলো, চায়ের সাথে ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’-এর সম্পর্কটা কী? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে প্রথমে শিখলাম ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ কাকে বলে। তাই প্রথমে ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ নিয়েই দু’কথা বলব, তারপর আসব আজকের মূল প্রসঙ্গে।
খাওয়া-দাওয়া মানুষের সংস্কৃতির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। আমার বিবেচনায় এ ব্যাপারে আমেরিকানরা যতটা ইনফরম্যাল, ব্রিটিশরা তার চেয়ে বেশি ফরম্যাল। শুধু ফরম্যালই নয়, তারা খাদ্য আয়োজনে অনেক যতœশীল এবং শৌখিনও বটে, আর তাই তো তাদের খাবার মেন্যু হরেক রকম মুখরোচক খাবারে ভরপুর থাকে। খেতে বসলে রসনাতৃপ্তি যতটা তারা বিবেচনায় রাখে, ক্যালোরির হিসাব ততটা মাথায় রাখে না। লাঞ্চ-ডিনারের কথা না হয় বাদই দিলাম, ব্রেকফাস্টের নমুনা দেখলেই বুঝতে পারবেন- ইংরেজরা কতটা ভোজনরসিক। ইনফরম্যালি যে কেউ যে কোনোভাবে সকালের নাশতাটা সেরে ফেলতে পারে; কিন্তু তাদের ফরম্যাল ব্রেকফাস্টের একটি মানসম্মত (স্ট্যান্ডার্ড) মেন্যু আছে এবং সেটা তার ‘খান্দানি’ তরিকামতোই হতে হবে।
ওপরের প্রথম ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন প্লেটে সাজানো একটি ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’। এটাকে পূর্ণাঙ্গ বলব না, কারণ সম্পূর্ণ ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টে’ আরো কিছু আইটেম যোগ হতে পারে যেগুলো এই ছবিতে নেই। সে কথায় আসব একটু পরে। এই প্লেটের দিকে ভালো করে তাকালে দেখতে পাবেন, এতে আছে একটি ডিমপোচ (এর বিকল্প হিসেবে ওমলেট থাকতে পারে), দু’টি সসেজ (বিফ অথবা পোর্কের তৈরি), দুই পিস ‘ হোয়াইট পুডিং’ এবং এক পিস ‘ব্ল্যাক পুডিং’, (এগুলো কিন্তু বাংলাদেশের পুডিংয়ের মতো মিষ্টি জাতীয় খাবার নয়), দুই পিস বেইকন, (ঐতিহ্যগতভাবে এগুলো হতে পারে ‘ব্যাক বেইকন’) পাঁচ-ছ’টি ভাজা মাশ্রুম, এক কাপ আন্দাজ বেইক্ড বিন্স, এক পিস হ্যাশ্ ব্রাউনস, দুই পিস তেলে ভাজা পাউরুটি (এর বিকল্প হিসেবে থাকতে পারে মাখন মাখানো টোস্ট) এবং আধখানা বেইক্ড টমেটো।
একটি সম্পূর্ণ ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টে’ যোগ হতে পারে ‘বাব্ল অ্যান্ড স্কুইক’, এবং তেলে ভাজা অথবা গ্রিল করা ওটকেক। খেয়াল করলে এখানে কয়েকটি বিষয় সহজেই আপনাদের নজরে আসবে। প্রথমত ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টে’ কোনো প্রকার তাজা ফল নেই, ফলের রস নেই, তাজা সবজি যেমনÑ শশা, গাজর, ব্রকোলি জাতীয় কিছু নেই। এখানে দুধ-সিরিয়েল নেই, মধু, জলপাইয়ের তেল, ডোনাট-মাফিন ইত্যাদিও নেই। যা আছে তার মধ্যে ‘আধখানা বেইকড টমেটো’ নিয়ে একটা প্রশ্ন আছে। এটি পুরো একটা টমেটো না হয়ে আধখানা কেন? এর উত্তর খুঁজে পাইনি।
আরেকটি বিষয় কোনোক্রমেই দৃষ্টি এড়ানোর মতো নয়। ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টের’ প্রায় প্রতিটি আইটেমই তেলে ভাজা, যা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ, আর তাই আজকাল এই ঐতিহ্যবাহী ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টের’ প্রতি মানুষজনের, এমন কি ব্রিটিশদেরও আকর্ষণ আর আগ্রহ কমে যাচ্ছে। সব সময় সব ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্টে’ সব আইটেম থাকে না। সব আইটেমের উপস্থিতি থাকলে এটাকে বলা হয় ‘ফুল ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ অথবা ‘ফুল ফ্রাই-আপ’, অথবা ‘ফুল ইংলিশ’, অথবা ‘ফুল মন্টি’। যেহেতু এর প্রায় সবক’টি আইটেমই তেলে ভাজা, তাই তাকে বলা হয়ে থাকে ‘ফুল ফ্রাই-আপ’। এবার বলছি, ‘ফুল ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’কে ‘ফুল মন্টি’ বলে কেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর সময়ে ব্রিটিশ রয়েল আর্মিতে একজন জাঁদরেল জেনারেল ছিলেন। তার নাম ছিল বার্নার্ড মন্ট্গোমারি। তিনি প্রতিদিন সকালবেলা ‘ফুল ইংলিশ ব্রেকফাস্ট’ খেয়ে দিনের কাজ শুরু করতেন। তার ডাকনাম (nick name) ছিল ‘মন্টি’ আর তাই, ‘ফুল ইংলিশ ব্রেকফাস্টের’ আরেক নাম হয়ে গেল ‘ফুল মন্টি’।
এবার আসছি ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি-ব্যাগের’ কথায়। শুরু করতে চাই চায়ের ইতিহাস দিয়ে। এই অতি উপকারী পানীয়টির ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে চীনের সম্রাট শেন নাং-এর সময় চা আবিষ্কৃত হয়। তিনি শুধু সম্রাটই ছিলেন না, বিজ্ঞানমনস্ক মানুষও ছিলেন। শেন নাং তার দেশে প্রথম পানি পরিশোধন করার কাজ শুরু করেন। ব্যবহারের আগে তিনি পানিকে ভালো করে ফুটিয়ে নিতেন। সম্রাটের নির্দেশে তার চাকরবাকরেরা প্রতিদিন বড় বড় পাত্রে অনেকক্ষণ ধরে পানি ফুটাত। একদিন পানি পরিশুদ্ধিকরণ প্রক্রিয়া চলাকালে সম্রাটের গরম পানির পাত্রে কিছু পাতা উড়ে এসে পড়ে। পাতা সমেত গরম পানি যখন দেখা গেল ঘন বাদামি রঙ ধরেছে তখন বোঝা গেল, ওই পাতাগুলো ছিল চায়ের পাতা। সংক্ষেপে এটা হলো চা আবিষ্কারের ইতিহাস।
চায়ের আবার নানান রকমফের আছে, যেমন কালো চা, সবুজ চা, সাদা চা, পুয়ের চা, ডিকেফ চা, উলোঙ চা, ইত্যাদি। এ সবের বাইরে বাজারে এক কিসিমের ‘মিশ্রিত কালো চা’ পাওয়া যায়, তাকে বলা হয়, ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’। এটা দুনিয়াব্যাপী অত্যন্ত জনপ্রিয়। ভারতের আসাম, শ্রীলঙ্কা এবং কেনিয়াÑ এই তিন জায়গার চা-কে একটি বিশেষ অনুপাতে মিশিয়ে তৈরি করা হয় ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’। এটি ঘন, কালো, কড়া এবং লিকারে খুবই সমৃদ্ধ। এটি শুধু কালো চা হিসেবে খাওয়া যায়, আবার দুধ-চিনির সাথেও খুব ভালো জানায়। যে সব কোম্পানি ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’কে ব্র্যান্ডিং করেছে তারা হলো Twinings, Dilmah, Taylors of Harrogate, Ahmad Tea, Qualitea, Darvilles of Windsor, Yorkshire Tea, PG Tips, ইত্যাদি।
‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’তে আজকাল কোনো কোনো কোম্পানি মালাবি এবং চীনা চায়ের মিশেলও দিয়ে থাকে। ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’ প্রথম আবিষ্কার হয় ঊনবিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে স্কটল্যান্ডের এডিনবরা শহরে। যে ‘টি-মাস্টারের’ হাতে এই চায়ের উৎপত্তি তার নাম ছিল Drysdale। তিনি প্রথমে তার আবিষ্কৃত ‘মিশ্রিত চায়ের’ নাম দিয়েছিলেন, ‘ব্রেকফাস্ট টি’। পরে লন্ডনের ‘টি হাউজ’গুলোর কেউ ওই নামের সাথে যোগ করে দেয় ‘ইংলিশ’ শব্দটি। আর সেই ‘ব্রেকফাস্ট টি’ হয়ে যায় ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’।
এখন প্রশ্ন হলো, ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’ থাকলেও ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট কফি’ বলে কিছু নেই কেন? এ প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে বুঝতে হবে সে সময়কার ইংরেজদের খাদ্যাভ্যাস ও খাদ্যসংস্কৃতি। ঊনবিংশ শতাব্দীর কিছু আগে থেকেই ইংরেজরা দিনে দুটো মেইন মিল খেত। সকালে বিফ, পোর্ক, ব্রেড আর বিয়ার দিয়ে হেভি ব্রেকফাস্ট এবং রাতে বড় পাঁচমিশালি ডিনার। তখন দুপুরে তারা চায়ের সাথে একেবারে হালকা কিছু খেয়ে নিত।
ওই শতাব্দীর শুরুতে ‘ডাচেস অফ বেডফোর্ড’ বিকেল ৫টায় ‘চা-বিস্কুট’ খাওয়া চালু করেন। পরে এই রেওয়াজ সারা ইংল্যান্ডব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। যেহেতু দিনে আরো দু’বেলা (দুপুরে ও বিকেলে) চা খাওয়া ব্রিটিশ সংস্কৃতির অংশ হয়ে গেল, তাই Drysdale যখন তার ‘মিশ্র চা’ আবিষ্কার করলেন তখন তিনি এটাকে সকালের নাশতার সাথে জুড়ে দিয়ে নাম দিলেন ‘ব্রেকফাস্ট টি’। তা থেকে পরে এটা হয়ে গেল ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’। দিনের অন্য দু’বেলা যদি ব্রিটিশরা নিয়ম করে কফি খেতো, তা হলে ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট কফি’ বলেও কিছু একটা আবিষ্কৃত হতে পারতো।
পুনশ্চ: আপনাদের জন্য লেখাটি এখানেই শেষ করে এনেছি। হঠাৎ মনের কোণে একটি নতুন জিজ্ঞাসা উঁকি মারলো। স্কটিশ ‘টি মাস্টার’ Drysdale আবিষ্কার করল ‘ব্রেকফাস্ট টি’, কিন্তু কালের আবর্তে এর নাম ‘স্কটিশ ব্রেকফাস্ট টি’ না হয়ে, হয়ে গেল ‘ইংলিশ ব্রেকফাস্ট টি’! ব্যাপারটি কেমন হলো?
Email: wahid2569@gmail.com

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫