দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ (ফাইল ফটো)
দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ (ফাইল ফটো)

অর্থ পাচার দেশের অর্থনীতির জন্য চরম হুমকি : দুদক চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, অর্থ পাচার বিশেষ করে ট্রেড-বেইজড মানিলন্ডারিং বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য চরম হুমকি হিসেবে রয়েছে। এখন থেকেই ট্রেড-বেইজড মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

আজ রোববার দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে কমিশন সভায় তিনি একথা বলেন।

সভায় মানিলন্ডারিং অনুবিভাগের মহাপরিচালক সভায় সম্প্রতি বিশ্ববিখ্যাত ফোরবর্স’র প্রতিবেদনে এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে সর্বোচ্চ ঘুষ লেনদেনকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম না থাকার বিষয়টি উত্থাপন করলে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ঘুষ লেনদেন কিছুটা কমেছে তবে আত্মতৃপ্তির কোনো কারণ নেই।

তিনি বলেন, অর্থ পাচার বিশেষ করে ট্রেড-বেইজড মানিলন্ডারিং বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য চরম হুমকি হিসেবে রয়েছে।

তিনি বলেন, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ করতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংক ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাথে যৌথভাবে কমিশনকে কাজ করার ক্ষেত্র সৃষ্টি করতে হবে।

দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় কমিশনের ছয়টি অনুবিভাগের ৩০টি এজেন্ডা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় দুদক চেয়ারম্যান মানিলন্ডারিং বিষয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি জানতে চাইলে কমিশনার ড. নাসিরউদ্দীন আহমেদ জানান, তার নেতৃত্বে ইতোমধ্যেই ট্রেইড-বেইজড মানিলন্ডারিং প্রতিরোধের জন্য একটি রিসার্চ টিম গঠন করার বিষয়টি চূড়ান্ত পর্যায় রয়েছে।

এই কমিটির সদস্য হিসেবে থাকবেন যথাক্রমে দুদকের মানিলন্ডারিং অনুবিভাগের মহাপরিচালক আতিকুর রহমান, কাস্টমস ইনটেলিজেন্সের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান, বিআইবিএম’র অধ্যাপক ড. শাহ আহসান হাবিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইনান্সিয়াল ইন্টিলেজেন্স ইউনিটের যুগ্ম-পরিচালক আব্দুর রব, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অতিরিক্ত কমিশনার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান।

সভায় দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দ্রুত এই রিসার্চ কমিটির তথ্য পাওয়ার পর সম্মিলিতভাবে ট্রেড-বেইজড মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে। এছাড়া এজেন্ডাভিত্তিক আলোচনায় দুদক চেয়ারম্যন প্রতিটি অনুসন্ধান ও তদন্ত নির্ধারিত সময়ে শেষ করার বিষয়ে কঠোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

কমিশন সভায় অন্যান্যের মধ্যে কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলাম, সচিব আবু মোঃ মোস্তাফা কামালসহ প্রতিটি অনুবিভাগের মহাপরিচালক ও পরিচালকগণ উপস্থিত ছিলেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.