আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠায় ভাষার প্রয়োগ

মো: নাজমুল আলম (করণিক)

ভাষা মানুষের মনের ভাব প্রকাশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। ভাষা নিত্য বহমান নদীর মতো। দুঃখের বিষয়, আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া সত্ত্বেও অনেকেই ভাষার যথার্থ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে জানেন না।

ধরা যাক, ‘তুই’ শব্দটি। এটি সর্বত্র প্রযোজ্য নয়। বরং ‘তুমি’ শব্দটি ব্যবহার করা হলে কথোপকথন শ্রুতিমধুর ও হৃদয়গ্রাহী হবে। বিশ্বমানবতার মুক্তির দূত রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, ‘যখন তোমরা কাউকে ডাকবে, তখন উপাধিসহ সুন্দরতম নামে ডাকবে।’ যেমন, খালেকের পরিবর্তে আবদুুল খালেক, মালেকের পরিবর্তে আবদুুল মালেক বলাই শ্রেয়।

রাসূলুল্লাহ সা: আরো উল্লেখ করেছেন, ‘মহান আল্লাহর প্রতি আন্তরিক বিশ্বাস স্থাপনের পর কাউকে মন্দ নামে ডাকা গর্হিত অপরাধ।’

অনেকের ক্ষেত্রে না ভেবেচিন্তে নাম ব্যবহারের ফলে সমগ্র সৃষ্টি জগতের প্রতিপালকের সাথে বান্দার শরিক হওয়ার পাশাপাশি সম্মানহানির আশঙ্কা থাকে। যেমন : রহিম, করিম, রহমান, সাত্তার, লাল্টু, ঝন্টু, আকাশ প্রভৃৃতি। পাশ্চাত্য সংস্কৃতির কুপ্রভাবে আমাদের সংস্কৃতি দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে। সংস্কৃতির সুস্থ ধারা ফিরিয়ে আনতে রাষ্ট্রীয় ও সামাজিকভাবে ভাষার বিশুদ্ধতা রক্ষার অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। নইলে শিক্ষার হার যতই বাড়ুক না কেন, একটা বড় ত্রুটি রয়েই যাবে।

মনে রাখা বাঞ্ছনীয়, বাংলা ভাষার শুদ্ধ চর্চা ব্যতিরেকে আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠা অসম্ভব। শুদ্ধ ও প্রাঞ্জল ভাষা সুরুচির পরিচায়ক। আসুন, আমরা জাতির বৃহত্তর স্বার্থে সর্বত্র ভাষার যথার্থ প্রয়োগ নিশ্চিত করি। এতে আন্তরিকতা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ বৃদ্ধি পাবে।

পাংশা মহিলা কলেজ, রাজবাড়ী

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.