ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ মার্চ ২০১৭

বিবিধ

ঘরের মাঠে হেরে রেকর্ড করল বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

০৭ মার্চ ২০১৭,মঙ্গলবার, ২০:৫৩


প্রিন্ট

বাংলাদেশ ২-৩ ওমান
(চয়ন, রোমান) (বাইত, হাসানি, বাতাসি)

হকিতে এখন পর্যন্ত ঘরের মাঠে ওমানের বিপক্ষে হারেনি বাংলাদেশ। মঙ্গলবার সে লজ্জাও পেল। এই হারে ফের একবার প্রশ্নবিদ্ধ হলো স্থানীয়দের ইউরোপিয়ান স্টাইল। তার ওপর রয়েছে টিম সিলেকশন। ঘুরে ফিরে একটি কথাই হাওয়ায় ভাসছে পুস্কর ক্ষিসা মিমো ও হাসান যুবায়ের নিলয়কে দল থেকে বাদ দেয়ার নমুনা এই পরাজয়।
ওয়ার্ল্ড হকি লিগ রাউন্ড টুয়ের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ওমানের কাছে ৩-২ গোলে হারল বাংলাদেশ। এই হারে তিন ম্যাচে মাত্র তিন পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে তৃতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে হার ও দ্বিতীয় ম্যাচে ফিজির বিপক্ষে জয়। প্রাক-স্থান নির্ধারণী ম্যাচে মিসরের বিপক্ষে খেলবে লাল-সবুজরা।
অন্য ধারা রপ্ত করতে গিয়ে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা নিজেদের খেলাই যেন ভুলে বসেছে। বুঝতেই পারছেন না, কোন স্টাইলে খেলবেন। দেশীয় স্টাইল- না ভিনদেশী স্টাইল। নিজের প্রতি আস্থাই যেন হারিয়ে ফেলেছেন। রিসিভিং, ডেলিভারির সময় যেন চিন্তা করতে হচ্ছে আসলে কোন স্টাইলে রিসিভ করবেন কিংবা কোন স্টাইলে ডেলিভারি দেবেন। মাঝে মধ্যে মনে হয়েছে এই তো আসল জিমি। যিনি ২০১৩ সালে ওয়ার্ল্ড হকি লিগে ম্যাচ সেরার পুরস্কার পেয়েছেন। যিনি অনেকের কাছে আইকন। মাঝে মধ্যে মনে হয়েছে ৭ নম্বর জার্সির আড়ালে অন্য কেউ। এটি শুধু জিমি নয়- সবার জন্য প্রযোজ্য।
ম্যাচের প্রথমার্ধ ছাড়া বাকি তিন কোয়ার্টারে বাংলাদেশ ছিল অসংগঠিত। প্রথম দুই কোয়ার্টারে ডিফেন্স ছিল ভুলে ভরা। ওই সময় যে ক্ষতি হয়েছে পরবর্তী দুই কোয়ার্টারে সেটি পুষিয়ে নিতে পারেনি। ২০১৩ সাল থেকে ওমানের বিপক্ষে টানা চারটি ম্যাচ হারল বাংলাদেশ। বিকেএসপি প্রধান কোচ কাওসার আলীর পর্যবেক্ষণে বেরিয়ে এলো বাংলাদেশ ৫ বার ওমানের পোস্টে শট নিতে পেরেছে। ওমান তিনবার। প্রতিপক্ষের সীমানায় ঢুকেছে ১৯ বার। বিপরীতে ওমান ঢুকেছে মাত্র ১০ বার। পিসি বাংলাদেশ তিনটি থেকে একটি গোল। ওমান দু’টি থেকে কোনো গোল নেই। তাদের থেকে বল কেড়ে নেয়া হয়েছে ৩৩ বার। ওমান কেড়ে নিয়েছে ৩০ বার। এমন পরিসংখ্যানেও ব্যর্থতা হলো ফিনিশারের অভাব। পজিশনে না থাকা। সবচেয়ে বড় কারণ হলো মার্কিংয়ে না রাখা। ওমানের তিনটি গোলের মধ্যে দু’টি গোলই হয়েছে মার্কিংয়ে না রাখার কারণে।
ম্যাচের ৮ ও ৯ মিনিটে পরপর দু’টি পেনাল্টি কর্নার আদায় করে নেয় বাংলাদেশ। প্রথমটি মিস করলেও দ্বিতীয়টি থেকে চয়ন শুভ সূচনা করেন (১-০)। পাঁচ মিনিট পরই বিপদ সীমানায় গোলকিপার অসীম গোপ ফাউল করলে স্ট্রোক থেকে ওমানকে সমতায় আনেন বাইত জানদাল (১-১)। ১৭ মিনিটে জিমির থ্রু থেকে রোমান কৌশলে ওমানি কিপারের পায়ের ফাঁক দিয়ে গোল করে এগিয়ে রাখেন নিজ দলকে (২-১)। কিন্তু ২৫ ও ২৬ মিনিটে ওমান দু’টি গোল করলে (২-৩) শেষ পর্যন্ত আর সমতায় আসতে পারেনি বাংলাদেশ। এই জয়ে গ্রুপে দ্বিতীয় হলো ওমান।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫