ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ মার্চ ২০১৭

বিবিধ

প্রত্যাশিত হারে বেদনার কিছু নেই

জসিম উদ্দিন রানা

০৪ মার্চ ২০১৭,শনিবার, ২১:৩০


প্রিন্ট

মালয়েশিয়া আমাদের চেয়ে অনেক বেশি উন্নত। এটি সবারই জানা। সেটি হোক মাঠে কিংবা ঘাটে। বরং তাদের বিপক্ষে জয়ী হলেই হতো বাংলাদেশের জন্য পোয়াবারো আর মালয়েশিয়ার জন্য অঘটন। কোচিং স্টাফ থেকে শুরু করে খেলোয়াড় পর্যন্ত সবাই মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ভালো খেলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। কেউ জয়ের কথা বলেননি। এমন প্রত্যাশিত হারে বেদনার কিছু নেই। তবে বেশি গোলে হার মানতে হয়নি উন্নতি বলতে এতটুকুই। মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে ওয়ার্ল্ড হকি লিগ রাউন্ড টুয়ের উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশ ০-৩ গোলে হেরেছে শক্তিশালী মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। গোল তিনটি করেন জলিল মারহান, রহিম রাজি ও নিক রোসেমি আইমান।
শুরু থেকেই উভয় দলের শক্তিমত্তা পরিষ্কার হয়ে যায়। আম্পায়ারের বাঁশি বাজার সাথে সাথে চেপে ধরে বাংলাদেশকে। কারণ মালয়েশিয়ার বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় প্রিমিয়ার লিগে ঊষা ক্রীড়া চক্র ও মোহামেডানে খেলে গেছে। শুরুর সেই চাপ আর সামাল দিতে পারেনি বাংলাদেশ। নিজেদের পরিকল্পনা মোতাবেক খেলার সময়টুকুও দেয়নি মালয়েশিয়া সৈনিকেরা। বাংলাদেশ একটা সময়ে পুরো শক্তিই খাটাতে চেয়েছে রক্ষণভাগে। সে কৌশলে অনেকটাই সফল হওয়াতেই কম ব্যবধানে হার। তবে পাল্টা আক্রমণে কয়েকটি সুযোগও পেয়েছিল বাংলাদেশের সৈনিকেরা। দু’টি পেনাল্টি কর্নারও আদায় করতে সমর্থ হয়; কিন্তু কাজে লাগাতে পারেননি খোরশেদুর রহমান ও আশরাফুল।
চতুর্থ মিনিটেই গোল হজম করে বসে বাংলাদেশ। শারি ফিতরির হিটে পোস্টের সামনে দাঁড়ানো জলিল মারহান স্টিকের ছোঁয়ায় বল পাঠিয়ে দেন স্বাগতিকদের জালে। দ্বিতীয় কোয়ার্টারের ৪ মিনিটে অর্থাৎ ম্যাচের ১৯ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রহিম রাজি। তৃতীয় কোয়ার্টার কোনোরকম গোল হজম ছাড়া কাটালেও শেষ কোয়ার্টারে ম্যাচের ৫৪ মিনিটে চমৎকার ফিল্ড গোল করেন নিক রোজেম আইমান। তবে ৮ মিনিটে সারোয়ার ও আরশাদের কম্বিনেশন, ১৫ মিনিটে কামরুজ্জামান রানার হিট কানেক্ট করতে ব্যর্থ রোমান, ২৭ মিনিটে জিমির হিট রুখে দেয়া, ২৯ মিনিটে জটলা থেকে পুশ করতে ব্যর্থ সারোয়ার, ৩৮ মিনিটে সারোয়ারের হিট গোলপোস্ট ঘেঁষে বাইরে যাওয়া ইত্যাদি সমতায় না আসার বড় কারণ।
শুরু থেকেই এই ম্যাচটি নিয়ে অ্যানালাইসিস করেছেন বিকেএসপির প্রধান কোচ কাওসার আলী, সহকারী কোচ শেখ মো: নান্নু ও মওদুদুর রহমান শুভ। তাদের পর্যবেক্ষণে বেরিয়ে এসেছে যে, মার্কিংয়ে না থাকা, মিসপাস বেশি হওয়া এবং মালয়েশিয়ার সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য যে ফিজিক্যাল অ্যাবিলিটি থাকা দরকার, সেটি ছিল না বলেই হারতে হয়েছে।
আগের পরিকল্পনা অনুযায়ীই কোচ অলিভার কার্টজ সব মনোযোগ দিচ্ছেন শেষ দুই ম্যাচে। ফিজি আর ওমানকে হারিয়েই গ্রুপে দ্বিতীয় হওয়ার লক্ষ্য। তবে ওমান প্রথম ম্যাচে ফিজির বিপক্ষে যে গোছালো হকি খেলেছে তাতে বাংলাদেশের জন্য মনে হয় না পথটি মসৃণ হবে।
এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টায় টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ভারপ্রাপ্ত প্রধান এ ভি এম মশিউজ্জামান সেরনিয়াবাত, এভিএম আবুল বাশার, হকি ফেডারেশনের সহসভাপতি ও টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খাজা রহমতউল্লাহ, যুগ্ম সম্পাদক ও টুর্নামেন্ট কমিটির সেক্রেটারি আনভির আদিল খান, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ইনডেক্স গ্রুপের সিইও শফিউল্লাহ আল মুনির। এর পর বাংলাদেশ অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টসের (বাফা) সদস্যরা বর্নাঢ্য ডিসপ্লের মাধ্যমে দেশের ঐতিহ্য ফুটিয়ে তোলেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫