ঢাকা, শুক্রবার,২৬ মে ২০১৭

বিবিধ

বয়স নির্ধারণের সঠিক প্রমাণপত্র কোনটি?

জসিম উদ্দিন রানা

০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ২১:৪০


প্রিন্ট

বয়সভিত্তিক যেকোনো ডিসিপ্লিনে অনিয়ম যেন বাংলাদেশের ক্রীড়ার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। সংগঠক থেকে শুরু করে কর্মকর্তারাও যেন একই পথের পথিক। আর এতে সুবিধা নিচ্ছেন বা পাচ্ছেন ক্ষমতাধর সংগঠকেরা। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সংগঠকেরা লড়াই করে রায় নিজেদের পক্ষে নিতে চান। আবার কোনো সময় টুর্নামেন্ট কর্তারাই তাদের হয়ে কাজ করেন, যে কারণে কোণঠাসা অবস্থায় থাকতে হয় বয়স নিয়ে প্রশ্ন তোলা প্রতিবাদকারীকে। মগের মুল্লুকের মতো যার যার সুবিধামতো নিয়ম করেই চালাচ্ছে বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টগুলো। একটা সময় এর প্রভাব পড়ে আন্তর্জাতিক কোনো টুর্নামেন্টে খেলতে গেলে।
আসলে বয়স নির্ধারণের সঠিক প্রমাণপত্র কোনটিÑ ডাক্তার কর্তৃক পরীক্ষিত, স্কুলের কোনো সার্টিফিকেট (পিইসি, জেএসসি কিংবা এসএসসি), কোনো চেয়ারম্যান কিংবা কমিশনারের দেয়া সনদপত্র, জন্মনিবন্ধন সনদপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র নাকি পাসপোর্ট?
এমনই এক ঘটনা ঘটল চলমান অগ্রণী ব্যাংক ২৬তম জাতীয় যুব হকি প্রতিযোগিতায়। ঢাকা জেলার খেলোয়াড়দের পাসপোর্ট অনুযায়ী কয়েকজনের বয়স বেশি দাবি করে অভিযোগ করলেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ড দলের কর্ণধার ও ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক ইউসুফ আলী। মৌখিক সেই অভিযোগের ভিত্তিতে টুর্নামেন্ট কমিটির সদস্যসচিব মাহবুব এহসান রানা উত্তরে ইউসুফ আলীকে বলেন, ‘অভিযুক্ত খেলোয়াড়ের বয়স বাইলজ অনুসারেই রয়েছে। তার স্কুল সার্টিফিকেটে বয়স ঠিকই আছে।’ অথচ ওই খেলোয়াড়ের বয়স পাসপোর্ট অনুযায়ী ৩ জুন ১৯৯৮।
ইউসুফ আলী জানান, ‘তাদের গোলরক্ষক ইয়াসিন আরাফাত হিমেল ও সিরাজুল ইসলাম নামের দু’জন খেলোয়াড়ের বয়স বেশি, যা টুর্নামেন্টের বাইলজের সাথে সাংঘর্ষিক। একজন নৌবাহিনীতে খেলছে অন্যজন সেনাবাহিনীতে। টুর্নামেন্টের নিয়ম অনুযায়ী যারা এই টুর্নামেন্টে খেলবে তাদের জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯৯৯ কিংবা তারপরে হতে হবে। কিন্তু পাসপোর্ট অনুযায়ী হিমেলের জন্ম ১৯৯৮ সালের জুন মাসে। সে গত বছর অনূর্ধ্ব ১৮ টুর্নামেন্টেও খেলেছে। যে কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তার পাসপোর্টই স্বীকৃত। আমি মৌখিক অভিযোগ করার পর টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক বলেন, হিমেলের স্কুল সার্টিফিকেট ও জন্মনিবন্ধন অনুযায়ী বয়স ঠিক আছে।’
এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক মাহবুব এহসান রানা বলেন, ‘আমরা সাধারণত ছাত্র হলে মেট্রিক সার্র্টিফিকেট ধরব। যদি সে এসএসসি পর্যন্ত না পড়ে থাকে, তাহলে অষ্টম শ্রেণীর (জেএসসি) সার্টিফিকেট ধরা হয়। আর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পাসপোর্ট ধরা হয়। তারপরও ইউসুফ ভাইকে লিখিত আবেদন করতে বলেছি। তাহলে হিমেলের সার্টিফিকেটের বয়স তাকে দেখাতে পারব। সার্টিফিকেট অনুসারে আমরা সবার বয়সেরই প্রমাণ রেখেছি।’
এমন কথায় বয়সের সনদ প্রশ্নবিদ্ধই থেকে যায়। যখন আপনি পাসপোর্ট করতে যাবেন তখন অনূর্ধ্ব ১৮ হলে বার্থ সার্টিফিকেট শো করতে হয়। যদি ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে হয় তাহলে জাতীয় পরিচয়পত্র লাগে। সে অনুপাতে পাসপোর্ট হয়। একজন ব্যক্তির একাধিক বয়সের সার্টিফিকেট থাকলে পাসপোর্টটিই তো প্রশ্নবিদ্ধ থেকে যায়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যে পাসপোর্ট দেখে সব কিছু আমলে নেয়া হয়, সেই পাসপোর্টেরই দেশের মাটিতে অবমূল্যায়ন। ক্রীড়াপ্রেমীদের দাবি, ‘সব জায়গায় বয়স নির্ধারণের ক্ষেত্রে একটিই নিয়ম করা হোক।’

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫