ঢাকা, শনিবার,২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

নগর মহানগর

যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক ও সাভারে গাংচিল বাহিনীর প্রধান নিহত

নয়া দিগন্ত ডেস্ক

১২ জানুয়ারি ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

যশোরে বন্দুরকযুদ্ধে রাসেল ওরফে রনি নামে এক যুবক ও সাভারে গাংচিল বাহিনীর প্রধান আনোয়ার হোসেন আনার নিহত হয়েছে।
যশোর অফিস জানায়, যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাসেল ওরফে রনি নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং চৌগাছার সলুয়া বাজারের মাঝামাঝি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রনি চৌগাছা মাঠপাড়ার কমর আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে আটটি মামলা রয়েছে।
তবে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি বলছেন, ‘দুই দল ডাকাতের মধ্যে গুলি বিনিময়ে তিনি নিহত হয়েছেন।’ আর চৌগাছা থানার ওসির দাবি, ‘পুলিশের সাথে ডাকাতদের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে।’
চৌগাছা থানার ওসি এম মশিউর রহমান বলেন, ‘মঙ্গলবার রাত ২টায় সড়কে পিকআপ-মাইক্রোবাস থামিয়ে ডাকাতি হচ্ছে বলে ভুক্তভোগীরা পুলিশকে খবর দেয়। তার ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে যায় পুলিশ। এ সময় ডাকাতদলের সদস্যরা পুলিশকে ল্য করে গুলি ছুড়তে শুরু করলে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশীয় শুটারগান, এক রাউন্ড গুলি, একটি হাত করাত, ধারালো হাঁসুয়া-ছোরা ও রশি উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া ঘটনাস্থল থেকে একটি লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।
তিনি আরো জানান, এলাকাটি যশোর সদর উপজেলা ও চৌগাছা উপজেলার সীমান্তবর্তী হওয়ায় দুই থানার পুলিশ অভিযানে অংশ নেয়। তবে প্রথমে ঘটনাস্থলে যায় কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। নিহত রনির বিরুদ্ধে ডাকাতি ও দস্যুতার অভিযোগে আটটি মামলা রয়েছে।
তবে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘দুই দল ডাকাতের বন্দুকযুদ্ধে অজ্ঞাত একজন নিহত হয়েছে। পরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠার পুলিশ। এ সময় অস্ত্র-গুলি, ধারাল অস্ত্র, রশি উদ্ধার করা হয়েছে।’
সাভার (ঢাকা) সংবাদদাতা জানান, সাভারের কাউন্দিয়া ইউনিয়নের মেলারটেকের খেয়াঘাট এলাকার একটি বাড়িতে র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে গাংচিল বাহিনীর প্রধান নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম আনোয়ার হোসেন আনার (৪২)। তার বাবার নাম লাট মিয়া।
র‌্যাব-৩ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে কাউন্দিয়া ইউনিয়নের মেলারটেক খেয়াঘাট এলাকার স্থানীয় লিয়াকত আলীর তিন তলা ভবনে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। র‌্যাবকে গুলি ছোড়া হলে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। এতে আনোয়ার হোসেন আনার গুলিবিদ্ধ হন। আহত আনোয়ারকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
কাউন্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান খান শান্ত জানান, আমার গ্রামের লিয়াকত আলীর বাড়িতে র‌্যাবের এনকাউন্টারে এক ব্যক্তি নিহত হন। তিনি অজ্ঞাত, আমরা তাকে চিনি না। র‌্যাব-৩ এর এসপি বেলায়েত হোসেন জানান, আনোয়ার হোসেন আনার গাংচিল বাহিনীর প্রধান ছিলেন।
উল্লেøখ্য, ২০০২ সালের ১২ জুলাই সাভার থানার এসআই মতিউর রহমান এবং ২০০৭ সালের ৩ মার্চ র‌্যাব-১১ এর ডিএডি হুমায়ুন কবীর ও সদস্য ফুল মিয়াকে হত্যা করে গাংচিল বাহিনী।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫