ঢাকা, রবিবার,২০ আগস্ট ২০১৭

প্রথম পাতা

শতভাগ পেনশন উত্তোলনকারীরা ডুবেছেন : অর্থমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা

১২ জানুয়ারি ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

যেসব পেনশনভোগী ১০০ ভাগ পেনশনের টাকা তুলে নিয়েছেন, তারা ডুবেছেন বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন, একবারে শতভাগ পেনশন উত্তোলনকারীরা আর কোনো সুবিধা পাবেন না।
গতকাল সচিবালয়ে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, যেসব পেনশনভোগী ১০০ ভাগ পেনশনের টাকা তুলে নিয়ে গেছেন, তারা ডুবেছেন। এখন তারা কোনো বেনিফিট পাবেন না।
তিনি আরো বলেন, ভবিষ্যতে পেনশনভোগীদের যেন কোনো সমস্যা না হয়, সে জন্যই নতুন বিধান করা হয়েছে। এখন ৫০ শতাংশ তারা উঠিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন এবং ৫০ শতাংশ মাসিক ভিত্তিতে তুলতে পারবেন।
বেসরকারি খাতে অবসরে যাওয়া চাকরিজীবীদের জন্য কিছু করবেন কি না, জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘হ্যাঁ, সেটাও করব, কিন্তু সময় লাগবে। অবসর-ভাতাভোগীদের জন্য কোম্পানিগুলোরও দায়বদ্ধতা আছে। এটা নিয়ে আমরা সব পরে সাথে বাজেটের পরে বসব।
নতুন নিয়ম অনুযায়ী, সরকারি কর্মচারীরা পেনশনের পুরো টাকা আর একবারে তুলে নিতে পারবেন না। তবে অর্ধেক তুলে নিতে পারবেন। বাকি অর্ধেক নিতে হবে তাদের মাসে মাসে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ বেসামরিক ও সামরিক সরকারি কর্মচারীদের জন্য নতুন এ বিধান চালু করেছে। গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ বিভাগ।
পেনশনধারীদের আর্থিক ও সামাজিক সুরা নিশ্চিত করার স্বার্থে বিধানটি চালু করা হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন বিধান কার্যকর হবে। অর্থাৎ এ বছরের ৩০ জুন বা তারপর যাদের অবসর-উত্তর ছুটি শেষ হবে, তারাই নতুন নিয়মের আওতায় আসবেন। তবে পেনশনার বা পারিবারিক পেনশনাররা মাসিক পেনশনের ওপর ৫ শতাংশ হারে বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট পাবেন। এটাও কার্যকর হবে আগামী ১ জুলাই থেকে।
বর্তমানে কেউ চাইলে পুরো টাকা তুলে নিয়ে যেতে পারেন, আবার মাসে মাসেও নিতে পারেন। অর্থাৎ দু’টি বিকল্পই খোলা আছে। নতুন বিধানের মাধ্যমে পেনশনের ৫০ শতাংশ মাসিক ভিত্তিতে নেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫