ঢাকা, বুধবার,২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

শেষের পাতা

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ

উন্নয়নকাজের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সচেষ্ট হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বাসস

১২ জানুয়ারি ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

সরকারের উন্নয়ন কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে সততা, নিষ্ঠা ও একাগ্রতার সাথে নবনির্বাচিত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তিনি গতকাল তার তেজগাঁওস্থ কার্যালয়ে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানদের শপথ বাক্য পাঠ করানো শেষে প্রদত্ত ভাষণে এ কথা বলেন।
সংশ্লিষ্ট জেলা পরিষদ আইনটি ২০০০ সালে পাস হওয়ার ১৬ বছর পর গত ২৮ ডিসেম্বর ৫৯টি জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এটিই ছিল জেলা পরিষদের ১৩১ বছরের ইতিহাসে প্রথম সরাসরি নির্বাচন।
এ দিন ৫৯ জন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী।
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টারা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকেরা, উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মো: আবদুল মালেক শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।
শেখ হাসিনা বলেন, আপনাদের ওপর এটিই দায়িত্ব থাকবে যে, প্রতিটি উন্নয়নের কাজ যেন যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হয় এবং নিজ নিজ জেলার সার্বিক উন্নয়ন এবং সমস্যাবলী খুঁজে কের করা। কি করলে পরে সেই জেলার আরো উন্নতি হতে পারে সেই দিকে দৃষ্টি দেয়া এবং দেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়েই আপনাদের কাজ করে যেতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য দেশের মানুষকে সেবা দেয়া। আমরা যখন স্বাধীনতা অর্জন করি তখন দেশে সাড়ে সাত কোটি মানুষ ছিল। আজকে ১৬ কোটি মানুষ। আমাদের ভূখণ্ড সীমিত, তার মধ্যে এত মানুষের কাছে সেবা পৌঁছনো সত্যিই খুব কষ্টসাধ্য।
তিনি বলেন, সে কারণেই আমরা সব সময় মনে করি ক্ষমতাটাকে যতটা সম্ভব বিকেন্দ্রীকরণ করতে পারব জনসেবাও তত নিশ্চিত হবে। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন, আমরা জোর গলায় বলতে পারি- বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে। চিকিৎসাসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছে। শিক্ষার যেন অগ্রগতি হয় তার জন্য বিশেষ পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি। তার মধ্যে রয়েছেÑ আমরা বিনামূল্যে প্রি-প্রাইমারি থেকে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত বিনামূল্যে পাঠ্যবই দিচ্ছি। বৃত্তি-উপবৃত্তি দিচ্ছি, স্কুল-কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়সহ নানা অবকাঠামো গড়ে তুলছি। বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টার, ট্রেনিং ইনস্টিটিউট গড়ে তুলে বিভিন্নমুখী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি; যার সুফল দেশের মানুষ পাচ্ছে।
স্বাধীনতার পর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হয়েছে এবং ‘যেতে হবে বহু দূর’ এমন অভিমত ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজকে স্বাধীন দেশ। তবে, ৪৫ বছর কিন্তু স্বাধীনতার পার হয়ে গিয়েছে। এখনো অনেক কাজ বাকি, দেশের দুঃখী মানুষের মুখে আমাদের হাসি ফোটাতে হবে।
প্রথমবারের মতো নির্বাচিত ৫৯ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গতকাল শপথ গ্রহণ করেছেন। আইনি জটিলতার কারণে কুষ্টিয়া ও বগুড়া জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। এ ছাড়া তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাচন পৃথক আইনে অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান আগামী ১৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫