স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যুর পর স্বামীর ট্রেনের নিচে ঝাপ

রাজশাহী ব্যুরো

রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠ কাটাখালি শাহাপুর এলাকায় গৃহবধূ নাসরিন খাতুন ওরফে সুমির (২৪) রহস্যজনক মৃত্যুর পর তার স্বামী মিঠুন আলী ওরফে ফিডার (২৭) আত্মহত্যা করেছেন। রোববার সকালে জেলার চারঘাট উপজেলার শলুয়া রেলগেট এলাকায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। ফিডার নগরীর মতিহার থানার শাহাপুর এলাকার আবদুল মজিদের ছেলে।
গত শনিবার বিকেলে ফিডার তার স্ত্রী সুমিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় শনিবার রাতে সুমির বাবা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। সুমি নগরীর উপকণ্ঠ হরিয়ান সুগারমিল এলাকার মো. আসাদুজ্জামানের মেয়ে। প্রায় সাড়ে চার মাস আগে ফিডারের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল।
মতিহার থানা পুলিশ জানায়, মামলায় ফিডার ছাড়াও তার বাবা আবদুল মজিদ (৫২), মা আন্নাজান মালেকা (৪০) ও ছোট ভাই চান্দু মিয়াকে (২৪) আসামি করা হয়েছে। আসামিদের মধ্যে ফিডারের বাবাকে শনিবারই গ্রেফতার করা হয়। আর অন্যরা পলাতক রয়েছেন। এরই মধ্যে ঘটনার পরদিনই রোববার আত্মহত্যা করেন ফিডার। রেলওয়ে পুলিশের কাছ থেকে তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
পুলিশ আরো জানায়, যৌতুক নিয়ে বিরোধের জের ধরে সুমিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় বলে মামলার এজাহারে দাবি করা হয়েছে। তবে আসামি পক্ষের দাবি, সুমি জানালার সঙ্গে গলায় মাফলার পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।
রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের একটি সূত্র জানায়, ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলে সুমির গলায় চিহ্ন পাওয়া যেত। কিন্তু তা পাওয়া যায়নি; বরং তার ডান কানের কাছে জখমের চিহৃ পাওয়া গেছে। রোববার দুপুরে রামেক হাসপাতালের মর্গে সুমির লাশের ময়ানতদন্ত করা হয়।
চারঘাট থানা পুলিশ জানায়, রোববার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার শলুয়া রেলগেট এলাকায় রেললাইনের পাশে দাঁড়িয়ে ফিডার ধুমপান করছিলেন। এসময় পাবনার ঈশ্বরদী থেকে একটি কমিউটার ট্রেন রাজশাহীর দিকে যাচ্ছিল। ট্রেনটি কাছাকাছি এসে পৌঁছলে ফিডার তার সামনে ঝাঁপ দেন। এতে ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে খবর পেয়ে তার স্বজনেরা লাশ উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যান। বিষয়টি রেলওয়ে পুলিশকে জানানো হয়েছে। এ ঘটনায় তারাই আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে। তবে পুলিশের একটি সূত্র জানায়, নিহত ফিডারের লাশের ময়নাতদন্ত করা হতে পারে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.