ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

থেরাপি

রোধে করণীয়

এস আর শানু খান

০৫ জানুয়ারি ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সসাইড বৃদ্ধির একমাত্র কারণ বিভিন্নভাবে উৎপন্ন হওয়া ধোঁয়া। আসুন দেখি, নতুন বছরে সেই ধোঁয়া কিভাবে হাওয়ায় মিলিয়ে দেয়া যায়।
লিখেছেন এস আর শানু খান

বিড়ি-সিগারেটের ধোঁয়া নিয়ন্ত্রণ
প্রতিদিন যে কত হাজার টন বিড়ি-সিগারেট বা তামাকজাতীয় দ্রব্যজ্বালিত ধোঁয়া বায়ুমণ্ডলে মিশে যাচ্ছে, তা আমরা তেমন লক্ষ করি না। এর ফলে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে। নতুন বছরে এটা নিয়ন্ত্রণের জন্য আমরা বিড়ি-সিগারেটের ধোঁয়া গিলে ফেলার কথা ভাবতে পারি এবং শরীরে নল সংযোগ করে বিশেষভাবে তা সরাসরি কমোডে চালান করার ব্যবস্থা করতে পারি। এতে বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড বৃদ্ধি কম হবে। জনস্বাস্থ্যও রক্ষা পাবে।
গৃহিণীদের ইন্ডিয়ান সিরিয়ালমুখীকরণ
রান্নায় ব্যবহৃত জ্বালানির জন্য ও প্রচুর কার্বন ডাই-অক্সসাইড তৈরি হয়। ধরুন, সমগ্র বাংলাদেশে এক হাজার পরিবার আছে এবং একবার রান্নার সময় যদি ২০০ গ্রাম কার্বন ডাই-অক্সসাইড উৎপন্ন হয়। তাহলে ২ লাখ গ্রাম কার্বন ডাই-অক্সাইড উৎপন্ন হবে এবং দিনে কম করে তিনবার রান্না করলে দাঁড়ায় ৬ লাখ গ্রাম।
এই ধোঁয়া প্রতিদিন আমাদের অজান্তে বাতাসে মিশে যাচ্ছে। গত কয়েক বছরে লক্ষ করা গেছে, ইন্ডিয়ান সিরিয়াল দেখার কারণে আমাদের দেশের গৃহিণীদের মধ্যে রান্না করার প্রবণতা কমেছে। কাজেই নতুন বছরে আমরা যদি গৃহিণীদের আরো বেশি ইন্ডিয়ান সিরিয়ালমুখী করতে পারি, তাহলে বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড রোধ সম্ভব হবে।

যানবাহনের ধোঁয়া
যানবাহনের কালো ধোঁয়া ব্যাপক বায়ুদূষণের একটি বড় কারণ। যেসব গাড়ি থেকে কালো ধোঁয়া নির্গত হয়, সেসব গাড়ির এগজেস্টার পাইপের সাথে বাড়তি নল সংযুক্ত করে গাড়ির মালিকদের বাড়িতে সংযুক্ত করতে হবে, যা তারা নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করবেন। তাহলে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইড রোধ করা সম্ভব হবে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫