ঢাকা, বুধবার,২৬ এপ্রিল ২০১৭

আগডুম বাগডুম

হাঁসেরা পানিতে ভেজে না কেন

রফিকুল আমীন খান

১৭ ডিসেম্বর ২০১৬,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট
পুকুর কিংবা বাথটাব থেকে গোসল করে উঠলে শরীর ভেজা থাকে, তাই নয় কি? ঠিক তাই। কিন্তু একটি হাঁসের কথা চিন্তা করে দেখি। পুকুরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ডুবাডুবি করল, অথচ তীরে ওঠার পর এক ফোঁটা পানির চিহ্ন নেই। কেন বলো তো? পারলে না, তাই না। বিচলিত হওয়ার দরকার নেই। হাঁসের না ভেজার রহস্য অনেকেই জানে না। এ লেখা না লেখার আগে আমিও জানতাম না। 
হাঁসের পানিতে না ভেজার রহস্য এর পালকে নিহিত রয়েছে। যার মাধ্যমে হাঁসেরা পানিতে নামলেও এর শরীরকে পানি ছুঁতে পারে না। অর্থাৎ এক কথায় বলতে গেলে হাঁসদের শরীর কখনো পানিতে ভেজে না। সে যাকগে, আসল কথায় আসা যাক। 
প্রাণিবিদদের মতে পানিতে ভাসার সময় হাঁসের শরীর থেকে একধরনের তেলজাতীয় পদার্থ নিঃসৃত হয়। পানিতে ভেসে বেড়ানোর সময় এই তেল হাঁসেরা  পালক ও ঠোঁটে ছড়িয়ে দেয়। আর পানি আর তেল কখনো একসাথে মিশে না, যে কারণে হাঁসেরা সারা দিন পানিতে ডুবোডুবি করলেও শরীর শুকিয়ে থাকে। পানিতে দেহকে না ভিজিয়েই পালক বেয়ে গড়িয়ে যায়। 
এবার জানা যাক হাঁসেরা পানিতে কিভাবে সাঁতরে বেড়ায় তার কৌশল। এ রহস্য হাঁসের পায়ে। দু’টি পায়ই হাঁসের সাঁতরানোর যন্ত্রের মতো কাজ দেয়। পায়ের আঙুলগুলো বিশেষ ধরনের চামড়ার সাহায্যে একটা আরেকটার সাথে যুক্ত থাকে। পায়ের এ অংশকে প্রাণিবিদেরা অ্যাডহেসিব প্যাড বলে থাকেন। এটি পানিতে ভেসে বেড়াতে প্যাডেলের মতোই কাজ করে। 
সংক্ষেপে এই হলো হাঁসের পানিতে না ভেজা ও সাঁতরে বেড়ানোর রহস্য। বেশ চমৎকার, তাই না। সৃষ্টিকর্তা এভাবে প্রতিটি প্রাণী সৃষ্টির সময় প্রয়োজন অনুযায়ী আলাদা বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত করেছেন।


 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫