ঢাকা, মঙ্গলবার,২৫ এপ্রিল ২০১৭

নারী

অদম্য সংগ্রামী তিন বোনের জীবনকথা

ফরহাদ খান নড়াইল

১১ ডিসেম্বর ২০১৬,রবিবার, ১৮:০১


প্রিন্ট

মহব্বত বিশ্বাস ও নাজমা বেগমের ঘর আলো করা তিন মেয়ে। নাম ভিক্টোরিয়া, নাইগেরিয়া ও এলিজাবেথ। ভূমিহীন বাবার সংসারে অভাব-অনটন তাদের পিছু ছাড়েনি। তবুও পড়ালেখা চালিয়ে যায় তিন সন্তান।
প্রায় বছর দুয়েক আগে হঠাৎ করে মহব্বত বিশ্বাস ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন। এরপর শুরু হয় বড় মেয়ে ভিক্টোরিয়ার (২৩) জীবনযুদ্ধ। ভূমিহীন বাবার সংসারে মিষ্টির প্যাকেট তৈরি করে লেখাপড়ার খরচসহ সংসার চালান ভিক্টোরিয়া আক্তার। পাশাপাশি প্রাইভেট পড়ানোসহ (গৃহশিক্ষক) শিশু-কিশোরদের গান শেখান তিনি। প্রায় দুই লাখ টাকা ঋণ নিয়ে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া এলাকায় বসতবাড়িতে (টিনের ঘর) প্যাকেট তৈরির ছোট কারখানা গড়ে তোলা হয়েছে। বাঁশঝাড় ও অরণ্যঘেরা অন্ধকারাচ্ছন্ন এই ঘরে প্রতিদিন প্যাকেট তৈরি করেন ভিক্টোরিয়া। এই কাজে ভিক্টোরিয়াকে সহযোগিতা করেন তার বাবা-মাসহ দুই বোন। খুলনা থেকে উপকরণ কেনার পর বাড়িতে প্যাকেট তৈরি করেন তারা। ভিক্টোরিয়ার বাবা দিঘলিয়াসহ স্থানীয় বাজারগুলোতে ভ্যানে মিষ্টির প্যাকেট সরবরাহ করেন। প্রতিদিন প্রায় দুই শ’ মিষ্টির প্যাকেট তৈরি করেন তারা। প্রতিটি মিষ্টির প্যাকেট তৈরিতে খরচ পাঁচ টাকা। সে ক্ষেত্রে বিক্রি হয় ছয় টাকায়। এ সামান্য আয় থেকে তিন বোনের লেখাপড়ার খরচসহ সংসার চলছে।
ভিক্টোরিয়া আক্তার নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের বিএ শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। গানের পাশাপাশি পারদর্শী আবৃত্তি ও উপস্থাপনা। এসব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ২০১৬ সালের ১ এপ্রিলে বাড়ির বারান্দায় ‘ভিক্টোরিয়া সঙ্গীত নিকেতন’ প্রতিষ্ঠা করেছেন। বর্তমানে ১২ জন শিশু-কিশোরকে প্রতি শুক্রবারে গান, আবৃত্তি, হাতের সুন্দর লেখা ও উপস্থাপনা শেখানোর পাশাপাশি আদর্শ মানুষ করে গড়ে তোলার নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। গানের স্কুলটিকে সমাজসেবার অধীনে নিবন্ধনও করতে চান ভিক্টোরিয়া। এ ছাড়া ভিক্টোরিয়া আক্তার গোপালগঞ্জের শেখ ফজিলাতুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজে উচ্চমাধ্যমিক পড়াকালীন বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের (বিএনসিসি) অধীনে অর্জন করেন ক্যাডেট আন্ডার অফিসার (সিইউও) পদমর্যাদা। এ দিকে ভিক্টোরিয়া আক্তারের উদ্যোগেই ২০১৪ সালের প্রথম দিকে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজে বিএনসিসির মহিলা প্লাটুন খোলা হয়। রোভার স্কাউটসহ বিভিন্ন সংগঠনের সাথেও জড়িত তিনি।
ভিক্টোরিয়া জানান, তার বাবার অসুস্থতার কারণে প্রায় দুই বছর আগে তাকে সংসারের হাল ধরতে হয়েছে। ঢাকায় একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি নেয়ার দুই মাসের মধ্যে এক প্রতারকের খপ্পরে পড়ে গ্রামের বাড়িতে চলে (২০১৫ সালের জুলাইয়ে) আসেন ভিক্টোরিয়া। পরে মিষ্টির প্যাকেট তৈরি, গান শিখিয়ে ও প্রাইভেট পড়িয়ে লেখাপড়ার খরচসহ সংসারের চাকা সচল রেখেছেন। তবে স্থানসঙ্কুুলান না হওয়ায় বাড়িতে প্রাইভেট পড়ানোসহ গানের স্কুল পরিচালনার ক্ষেত্রে অসুবিধা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।
মেঝো বোন নাইগেরিয়া খানম বলেন, এত দিন স্থানীয় (দিঘলিয়া) স্কুল ও কলেজে পড়ালেখা করলেও উচ্চশিক্ষার জন্য গোপালগঞ্জের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে সম্মান শ্রেণীতে (প্রথম বর্ষ) ভর্তি হয়েছি। গত ১২ নভেম্বর কলেজ হোস্টেলে (হল) সিট বরাদ্দের জন্য আবেদন করলেও এখনো পর্যন্ত সিট (আসন) পাইনি। অসচ্ছলতার কারণে এ মুহূর্তে মেসে বা বাসাবাড়িতেও উঠতে পারছি না। এ ক্ষেত্রে নিয়মিত ক্লাস করতে পারব কি?
এদিকে, ছোট বোন এলিজাবেথ পড়ছে স্থানীয় আকড়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণীতে।
ভিক্টোরিয়ার বাবা মহব্বত বিশ্বাস জানান, বসতভিটার (নড়াইলের দিঘলিয়া) ৫ শতাংশ জমি ছাড়া তাদের আর কোনো সম্পত্তি নেই। তিনি বলেন, এই জমির ওপর নির্মিত টিনের ঘরে আমরা বসবাস করি এবং ঘরের এক কোণে প্যাকেট তৈরির কারখানা। প্যাকেট তৈরি কারখানাকে আরো গতিশীল করতে এবং ঋণের বোঝা থেকে মুক্তি পেতে প্রয়োজন আলাদা জায়গাসহ সরকারি-বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতা। এ দিকে ভিক্টোরিয়া আক্তারসহ তিন সন্তানের জীবনসংগ্রামের কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন মা নাজমা বেগম। তিনি বলেন, ঋণ ও দেনার বোঝা মাথায় নিয়ে অনেক কষ্ট করে পড়ালেখা করছে আমার তিন মেয়ে।
স্থানীয় প্রগতি প্রি-ক্যাডেট স্কুলের শিক্ষক কানন পাল বলেন, ভিক্টোরিয়া খুব কষ্ট করে এগিয়ে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতা পেলে আরো ভালো করতে পারবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন
চেয়ারম্যান, এমসি ও প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

ব্যবস্থাপনা পরিচালক : শিব্বির মাহমুদ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫