ঢাকা, মঙ্গলবার,১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭

প্যারেন্টিং

শিশুর ক্ষুধা কমে যায় কেন

ডা: প্রণবকুমার চৌধুরী

২৯ নভেম্বর ২০১৬,মঙ্গলবার, ১৭:৪১


প্রিন্ট

শিশু ইনফেকশনে আক্রান্ত হলে কিংবা জোর করে খাওয়ানোর চেষ্টা করলে তাদের ক্ষুধা কমে যায়। শিশুর পুষ্টি, স্বাস্থ্য এবং ওজন নিয়ে মা-বাবার বেশি বেশি দুশ্চিন্তা তাদের ক্ষুধা কমিয়ে দেয়। জন্মের প্রথম ছয় মাস শিশু যতটুকু খাবে, দ্বিতীয় ছয় মাসে স্বাভাবিকভাবেই তার পরিমাণ কমে যায়।

প্রথম তিন মাস শিশুর সাপ্তাহিক ওজন বাড়ে গড়ে ২০০ গ্রামের মতো। চার থেকে ছয় মাসে তা দাঁড়ায় ১৫০ গ্রামে। সাত থেকে ৯ মাসে সাপ্তাহিক ওজন বাড়ে ৯৯ গ্রাম আর ১০ থেকে ১২ মাসে গড় ওজন বাড়ে সপ্তাহে ৭১ গ্রাম। ৯ থেকে ১৮ মাস বয়সের শিশুরা যখন নিজে নিজে খেতে চায়, তখন তারা খাওয়ার চেয়ে খাবার নিয়ে খেলতে থাকে বেশি। এতে করে মা হয়ে যান আরো চিন্তিত। তাকে খাওয়াতে মরিয়া হয়ে ওঠেন তিনি। কেউ স্বল্পাহারী আবার কেউ বা একটু পেটুক। যে শিশু বেশি দৌড়ঝাঁপে সক্রিয়, অলস নিস্তেজ শিশুর তুলনায় সে কিছুটা বেশি খাবে। অল্প আহারী শিশুকে বেশি গেলানোর চেষ্টা বিফলে যায়। শিশুকে যখনই জোর করে খাওয়ানো হবে, না খাওয়ার ব্যাপারে শিশুর মনোভাব তখন তুঙ্গে যাবে।
৯ মাস থেকে তিন বছর বয়সে শিশুর মধ্যে এমনিতেই ‘না’ধর্মী মনোবৃত্তি থাকে, খাবার নিয়ে তখন তা চাড়া দিয়ে ওঠে। জোর করে খাওয়ানোর পরিবেশে শিশু অভ্যস্ত হতে থাকলে তার ধারণা জন্মাবে- খাওয়ায় কোনো আনন্দ নেই। ফলে সে সত্যি সত্যিই খাবার পছন্দ করবে না।

লেখক : শিশুস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫