ঢাকা, শুক্রবার,২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আরো খবর

সাংবাদিক মুজীবুর রহমান খাঁর মৃত্যুবার্ষিকী আজ

০৫ অক্টোবর ২০১৬,বুধবার, ০০:০০


প্রিন্ট

আজ ৫ অক্টোবর সাংবাদিক মুজীবুর রহমান খাঁর ৩২তম মৃত্যুবার্ষিকী। জাতীয় প্রেস কাবের প্রতিষ্ঠাতা সভপতি সাংবাদিক মুজীবুর রহমান খাঁ ৭৪ বছর বয়সে ১৯৮৪ সালের ৫ অক্টোবর ঢাকায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। রাজধানীর শাহজাহানপুরে কবি বেনজীর আহমদের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।
তিনি ১৯১০ সালের ২৩ অক্টোবর নেত্রকোণা জেলার উলুয়াটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৩০ সালে নেত্রকোণা আঞ্জুমান হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। ১৯৩৪ সালে তিনি আনন্দ মোহন কলেজ থেকে বি এ এবং ১৯৩৮ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এম এ পাস করেন।
১৯৩৬ সালে কলকাতার সাপ্তাহিক মোহাম্মদীতে মুজীবুর রহমান খাঁর সাংবাদিকতা জীবন শুরু। ১৯৩৬ সালে সেখানে তিনি সহ-সম্পাদক হিসেবে দৈনিক আজাদে যোগ দেন। পরে তিনি সহযোগী সম্পাদকের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। ১৯৪৮ সালে আজাদ ঢাকায় এলে তিনি একই পদমর্যাদায় কাজ করেন। ১৯৫৩ সালে মাসিক মোহাম্মদীর সম্পাদকের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত তিনি আজাদ ও মোহাম্মদীর সাথে যুক্ত ছিলেন। অতঃপর তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক পয়গামের সম্পাদক নিযুক্ত হন এবং ১৯৭১ সাল পর্যন্ত এ পদে বহাল থাকেন। ১৯৭৬ সালের মার্চে আজাদ পুনঃপ্রকাশিত হলে তিনি সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি নিযুক্ত হন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এই পদে দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৪৬ সালে তিনি প্রথম বঙ্গীয় গণপরিষদের সদস্য মনোনীত হন। ১৯৫২ সালে তিনি মিসর ও ১৯৫৪ সালে হল্যান্ড সফর করেন। সাংবাদিকতা ও সাহিত্যে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য তিনি সিতারা-ই-কায়েদে আযম উপাধি লাভ করেন। ১৯৮৪ সালে তিনি একুশে পদকে ভূষিত হন।
মুজীবুর রহমান খাঁর গ্রন্থের মধ্যে ১৯৪২ সালে কলকাতায় প্রকাশিত পাকিস্তান, ইকনমিক প্রবলেম অব ইস্ট পাকিস্তান, বিলাতে প্রথম ভারতীয় (১৯৩৯), সাহিত্য ও সাহিত্যিক (১৯৭১), সাহিত্যের সীমানা (১৯৭৪), মহানবী (১৯৮০), সাহিত্যেও বুনিয়াদ, আমাদের ইতিহাস, নয়া তারিখ উল্লেখ্য। সাংবাদিক মুজীবুর রহমান খাঁর ৩২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে। বিজ্ঞপ্তি।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫