মাদক ব্যবসায়ীকে কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
মাদক ব্যবসায়ীকে কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মাদক ব্যবসায়ীকে কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাসস

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল মাদকমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক অবস্থান সুদৃঢ় করার আহবান জানিয়েছেন।
তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর ফার্মগেইটে আনন্দ সিনেমা হলের সামনের পুলিশ বক্সে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মাদকবিরোধী কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ আহবান জানান।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিভিন্নভাবে চেষ্টার পরও রাজধানীতে মাদকের বিস্তার রোধ করা যাচ্ছে না’।

ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকাতে কোনও মাদক ব্যবসায়ীর স্থান নেই এবং তাদের স্থান হবেও না এ কথা উল্লেখ করে আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন,‘আমরা এ কথা সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছি’। মাদক ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে হুঁশিয়ারি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদক ব্যবসায়ীকে কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। তালিকা অনুযায়ী সকল মাদক-ব্যবসায়ীকে আইনের আওতায় আনা হবে।

তিনি বলেন, ডিএমপি রাজধানীজুড়ে আগে থেকেই মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে আসছে। তবে, আজ বৃহস্পতিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এ অভিযান শুরু করা হলো।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরসহ সব গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে আমরা একটি তালিকা তৈরি করেছি। গত কয়েকদিন ধরে সেই অনুযায়ী দেশে অভিযান চলছে। এই তালিকা অনুযায়ী মাদক ব্যবসায়ীদের বিচারের আওতায় আনা হবে। যারা মাদক ব্যবসায়ী তাদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া রাজধানী থেকে মাদক নির্মূল করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার সব মাদক স্পট গুড়িয়ে দেয়া হবে। পহেলা রমজান থেকে মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের চিরুনী অভিযান শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য উদ্ধারসহ অনেক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মাদক যে কোনও অপরাধের চেয়ে ভয়াবহ উল্লেখ করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, রাজধানীর মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রত্যেককে ধরে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হবে। তিনি বলেন, জনগণের সহযোগিতা নিয়ে পাড়া-মহল্লার মাদক স্পটগুলো গুড়িয়ে দেয়া হবে। কারণ, মাদক যেকোনো অপরাধের চেয়ে ভয়াবহ।

মাদকবিরোধী কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম, ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার দেবদাশ ভট্টাচার্য, অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম) কৃষ্ণ পদ রায়, যুগ্ন কমিশনার (ক্রাইম) শেখ নাজমুল আলমসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.