এনআইডি যাচাই সম্পন্ন ১ লাখ ২৬ হাজার

হজের নিবন্ধন সার্ভার বন্ধ অন্ধকারে এজেন্সিগুলো

নিজস্ব প্রতিবেদক

হজের প্রাক-নিবন্ধন সার্ভার অচল হয়ে যাওয়ায় গতকাল তা বন্ধ করে দেয়া হয়। ফলে গতকাল হজ এজেন্সি ও ব্যাংকগুলো এক ঘণ্টাও সার্ভারে কাজ করতে পারেনি। এ দিকে এরই মধ্যে জাতীয় পরিচয়পত্র সার্ভার থেকে এক লাখ ২৬ হাজার হজযাত্রীর ডাটা যাচাই-বাছাই সম্পন্ন হওয়ার খবরে হজ এজেন্সিগুলোর মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। মোট হজযাত্রীর কোটা এক লাখ এক হাজার ৭৫৮ জন এবং এর মধ্যে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার কোটা ৮৮ হাজার ২০০ জন হওয়ায় নির্ধারিত কোটার মধ্যে প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করতে পারবেন কি না তা নিয়ে অনেকে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। অনেক এজেন্সি অনলাইনের নিবন্ধনপ্রক্রিয়া প্রথম দিকে বুঝতে না পারায় হজযাত্রীর এনআইডি যাচাইয়ের ডাটা এন্ট্রি করতে পারেনি। তারা শেষ পর্যন্ত ডাটা এন্ট্রি করতে পারবে কি না এবং ডাটা এন্ট্রি করতে পারলেও মোয়াল্লেম ফি জমা দিয়ে প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করতে পারবেন কি না না তা নিয়ে উদ্বিগ্ন। কারণ এরই মধ্যে হজ অফিস থেকে জানানো হয়েছে, ব্যাংকগুলো বেসরকারি এজেন্সিগুলোর জন্য নির্ধারিত কোটা ৮৮ হাজার ২০০ জনের বেশি মোয়াল্লেম ফি জমা নেবে না।
হজ অফিসের আইটি শাখা জানিয়েছে, অতিরিক্ত চাপের কারণে সার্ভার হ্যাক হলে গতকাল সার্ভার বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে বুয়েটের বিশেষজ্ঞ দলসহ সংশ্লিষ্টরা সার্ভার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। তাতে দেখা যায়, ব্যাংকে টাকা জমা দেয়া, ডাটা এন্ট্রি ও এন্ট্রিকৃত ডাটার পরিসংখ্যান দেখার জন্য বারবার সার্ভারে প্রবেশের কারণে অতিরিক্ত চাপে সার্ভার অচল হয়ে যায়। বিশেষজ্ঞ দল সার্ভারের কিছু অপশন বন্ধ করে দেয়ার পর সার্ভার আবার সচল হলেও গতকাল আর সার্ভার না খোলার সিদ্ধান্ত হয়। আজ সকাল ৯টা থেকে আবার সার্ভার খুলে দেয়া হবে বলে হজ অফিস থেকে জানানো হয়েছে।
গতকাল সার্ভার বন্ধ হয়ে যাওয়া, হজযাত্রীদের ডাটা এন্ট্রি, এনআইডি যাচাই রিপোর্টসহ বিভিন্ন বিষয়ে অস্পষ্টতার কারণে অসংখ্য হজ এজেন্সি পত্রিকা অফিসগুলোতে ফোন করে তাদের হতাশার কথা জানান।
জানতে চাইলে হাবের সহসভাপতি ফরিদ আহমেদ মজুমদার বলেন, আমরা আসলে নিবন্ধনের বিষয়ে অনেকটাই অন্ধকারে রয়েছি। কিছুই বুঝতে পারছি না। এখনো অনেক এজেন্সি তাদের হজযাত্রীর তিন ভাগের এক ভাগও এনআইডি যাচাইয়ের জন্য পাঠাতে পারেনি বলে আমাদেরকে জানাচ্ছে। অথচ আমরা দেখছি এক লাখ ২৬ হাজারের বেশি এনআইডি যাচাই শেষ হয়ে গেছে। তিনি বলেন, আমরা বলেছিলাম ব্যাংকে টাকা জমা বন্ধ করে সার্ভার চালু করে দেয়ার জন্য। কিন্তু গতকাল আর চালুই করা হয়নি।
বেশ কয়েকজন হজ এজেন্সির মালিক বলেন, আসলে অনলাইনে নিবন্ধনের এ উদ্যোগটি ভালো। কিন্তু বাংলাদেশের জন্য নতুন হওয়ায় এবং সবাই শুরু থেকে নিবন্ধনের সব তথ্য জানতে না পারায় অসুবিধা হয়ে গেছে। তিনি বলেন, সব এজেন্সিকে তাদের হজযাত্রীদের ডাটা এন্ট্রি করার সুযোগ দিয়ে এজেন্সিগুলোকে হজযাত্রীর কোটা ভাগ করে দেয়া হলে সব এজেন্সি হজযাত্রী পাঠাতে পারবে। এ ক্ষেত্রে অতিরিক্ত হজযাত্রী হলে এজেন্সিগুলোতে হজযাত্রী কমানোর জন্য নির্দেশনা দিলে তারাই তাদের হজযাত্রী কমাতে পারবে। না হয় যারা অনলাইনে অনভিজ্ঞ এবং যথাসময়ে তথ্য না জানার কারণে ডাটা এন্ট্রি করে প্রাক-নিবন্ধনের কোটার মধ্যে থাকতে পারছে না তারা তো হজযাত্রী পাঠাতে পারবে না।
হজ অফিসের আইটি প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, গতকাল রাত ৮টা পর্যন্ত সরকারি হজযাত্রীর ডাটা এট্রির সংখ্যা ৩০৫ জন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীর সংখ্যা ১৩০ জন। বেসরকারি হজযাত্রীর ডাটা এন্ট্রির সংখ্যা ৮৮ হাজার ৪৪২ জন। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীর সংখ্যা ৩২ হাজার ৭৮৭ জন। ডাটা এন্ট্রিকৃত হজযাত্রীর মধ্যে পুরুষ ৬০ হাজার ৮৫ জন এবং মহিলা ২৮ হাজার ৭৬২ জন। ডাটা এন্ট্রিকৃত হজযাত্রীর মধ্যে ১৮ বছরের নিচে ৮৩১ জন, প্রবাসী ৬০৯ জন এবং ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে ৮৭ হাজার ৪০৭ জন। এনআইডি সার্ভার থেকে সফলভাবে যাচাইকৃত হজযাত্রীর সংখ্যা এক লাখ ২৬ হাজার ৪৩ জন। ডাটা এন্ট্রিকারী এজেন্সি সংখ্যা ৭৫৩টি।
উল্লেখ্য, গত বুধবার বেলা ৩টা থেকে চলতি বছরের জন্য হজের প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়। নিবন্ধন সার্ভার প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রাখার কথা। এর মধ্যে শনিবার সার্ভার বন্ধ ছিল।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.