১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

মোদির গরু কূটনীতি

-

ভারতে গরুর গোশত খাওয়ার কারণে যখন মানুষ হত্যা করা হচ্ছে তখন দেশটির প্রধানমন্ত্রী গরু কূটনীতি শুরু করছেন। গরুর গোশত ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় আফ্রিকার এমন একটি দেশে গরু প্রদান করেছেন নরেন্দ্র মোদি। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ইতিহাসে সম্ভবত এই প্রথম বিষয়টির আমদানি করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আফ্রিকা সফরে রয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। আফ্রিকার রুয়ান্ডার একটি দরিদ্র গ্রামে ২০০টি গরু উপহার দিয়েছেন তিনি। রুয়ান্ডা সরকারের ‘গিরিনকা’ কর্মসূচির আওতায় এই গো-দান করা হলো।
‘গিরিনকা’র অর্থ দরিদ্র পরিবারপিছু একটি গরু। সে দেশের শতাব্দী প্রাচীন ঐতিহ্য অনুসারে সম্মান ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য গরু উপহার দেয়া হয়ে থাকে।
ভারতে গো-রকদের তাণ্ডব নিয়ে এখন বিশ্বজুড়ে তুমুল বিতর্ক চলছে, এরই মধ্যে আফ্রিকার একটি দেশে গিয়ে গো-দান করলেন মোদি এবং এমন একটি দেশে, যেখানে অন্যতম প্রিয় খাদ্য হলো আলু, মটরশুঁটি ও গাজর দিয়ে গোমাংসের পাতলা ঝোল। ‘গিরিনকা’ কর্মসূচির ল্য অবশ্য দীর্ঘমেয়াদি পুষ্টি। গরুর দুধ ও গোশতের মাধ্যমে যাতে পুষ্টিহীনতা সমস্যার সমাধান করা যায়। মোদি যেসব গরু দান করেছেন, সেগুলোও শেষ পর্যন্ত জবাই করা হবে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যÑ মোদি যেখানে ২০০টি গরু দিয়েছেন, সেখানকার গ্রামবাসীর কাছে কোনো গরু ছিল না। রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কাগামের উপস্থিতিতে এই গো-দান পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।
নরেন্দ্র মোদি ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী, যিনি রুয়ান্ডা সফরে গেলেন। উদ্দেশ্য অবশ্যই বাণিজ্যিক-সামরিক ও অন্যান্য েেত্র সহযোগিতার সম্পর্ক গড়ে তোলা। রাশিয়া, চীনের মতো বহু দেশের সঙ্গেই বাণিজ্যিক-সামরিক সম্পর্ক রয়েছে আফ্রিকার এ দেশটির। আফ্রিকায় চীনা বিনিয়োগের তুলনায় ভারতের উপস্থিতি খুবই নগণ্য। গরু দিয়ে রুয়ান্ডায় যাত্রা শুরু করল ভারত। রুয়ান্ডার রাজধানী কিগালিতে হাইকমিশনও খুলবে দিল্লি।
গো-দান অনুষ্ঠানে মোদি রুয়ান্ডা সরকারের ‘গিরিনকা’ কর্মসূচির ভূয়সী প্রশংসা করে জানান, গ্রামের অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য গরুকে এতটা গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে, জানলে ভারতবাসীও খুশি হবেন। ভারত ও রুয়ান্ডার গ্রামীণ জীবনের মধ্যে মিল রয়েছে বলে মন্তব্য করেন মোদি। হ


আরো সংবাদ