১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দুই গোয়েন্দার অভিযান

-

পঁয়তাল্লিশ.

‘ভাবছি, ব্রিন্ডল জ্যাকের সঙ্গে জো সারটনের সম্পর্কটা কেমন?’ নিজেকেই প্রশ্ন করল সুজা। ‘জোসি হয়তো বলতে পারবে।’
অর্ধেক পথ এসে জোসির সঙ্গে দেখা হয়ে গেল ওদের। জোসি বলল, ‘এলে। আমি তো আরো ভাবলাম, হারিয়েই গেলে বুঝি তোমরা।’
জো সারটনের নৌকার কথা জোসিকে জানাল সুজা। তারপর জ্যাক আর জোর সম্পর্ক নিয়ে যে কথাটা তার মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল এতক্ষণ, সেটা বলল।
‘বহু বছর ধরেই ওদের সম্পর্ক ভালো না,’ জোসি জানাল। ‘তবে তাতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। জ্যাকের সম্পর্ক কারো সঙ্গেই ভালো না, একমাত্র টেডের বাবা মিস্টার সিউল ছাড়া।’
রেজার মনে পড়ল, জো বলছিল ইডিটারোড নিয়ে নানারকম প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে ওকে। ডগস্লেজ রেসের সঙ্গে জো কোনোভাবে জড়িত কি না, জোসিকে জিজ্ঞেস করল।
‘ও একজন প্রথম শ্রেণীর রেসার,’ জোসি বলল। ‘আশপাশের ৫০ মাইলের মধ্যে ওর মতো মাশার নেই। হাস্কি সম্পর্কে গভীর জ্ঞান। তবে এখন আর মাশিং করতে পারে না। কয়েক বছর আগে ছেলের অপারেশনের টাকা জোগাড়ের জন্য বাধ্য হয়ে গাড়িসহ কুকুরগুলোকে বিক্রি করে দিয়েছিল। বেচারা! ’
‘দুঃখজনক!’ আফসোস করল সুজা। ‘কিন্তু সে যদি আর রেসেই না যায় লোকে ইডিটারোড রেসের ব্যাপারে তাকে প্রশ্ন করে কেন?’
(চলবে)

 


আরো সংবাদ