১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি : জবি ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেফতার

ধর্ম
ফরহাদ হোসেন ফাহাদ - ছবি: সংগৃহীত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হজরত মোহাম্মদ (সা:)কে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী ফরহাদ হোসেন ফাহাদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আজ শুক্রবার সকাল ৭টায় পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ফরহাদকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালী থানার ওসি মশিউর রহমান।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত শিক্ষার্থী ফাহাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তাকে গ্রেফতারের সুপারিশ করে পুলিশের কাছে চিঠি দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

জানা যায়, একটি টেলিভিশন চ্যানেলের ফেসবুক পেইজে শেয়ার করা নিউজের নিচে ‘Forhad H Fahad’ নামের অ্যাকাউন্ট থেকে ইসলাম ধর্ম ও মহানবীকে নিয়ে কটূক্তির বেশ কয়েকটি স্ক্রিনশট ছড়িয়ে পড়ে। এর আগেও ফাহাদ বিভিন্ন সময় নিজেকে ‘ধর্মীয় মাওলানা’ দাবি করে ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আসছিল বলে অভিযোগ আছে। এর পরই ফাহাদের ‘ফাঁসির’ দাবিতে কয়েক দিন ধরে ক্যাম্পাসে মিছিল-সমাবেশ করে আসছে তাবলীগ জামাত ও ধর্মভিত্তিক ছাত্র সংগঠন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা নূর-ই-আলম কোতয়ালি থানায় ফাহাদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। আরেক ছাত্রলীগ নেতা মিজানুজ্জামান খান শামীম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে তার স্থায়ী বহিষ্কার চেয়ে আবেদন করেন।

কোতোয়ালী থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, ফরহাদের বিরুদ্ধে মামলার ভিত্তিতে আমরা তাকে গ্রেফতার করেছি। তবে তদন্তের সাথে এর চেয়ে বেশি কিছু বলা আমাদের পক্ষে এখন সম্ভব না।

আরো পড়ুন :

মহানবীকে অবজ্ঞা বাকস্বাধীনতা নয় : ইউরোপীয় আদালত
ডেইলি সাবাহ, ৩১ অক্টোবর ২০১৮
ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত (ইউরোপীয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইটস-ইসিএইচআর) এক রুল জারি করে বলেছে, মহানবী (সা.)কে নিয়ে অপমানজনক বক্তৃতা দেয়ায় অস্ট্রিয়ার এক নারীকে অপরাধী সাব্যস্ত করা এবং জরিমানা করা হয়েছে তাতে ওই নারীর বাক স্বাধীনতা লঙ্ঘিত হয়নি। কারণ ইসলাম ধর্মের নবীকে নিয়ে অবজ্ঞাসূচক বক্তৃতা কিছুতেই বাকস্বাধীনতা হতে পারে না।

২০০৮-০৯ সালে অস্ট্রিয়ার কট্টর ডানপন্থী ফ্রিডম পার্টির পক্ষে কয়েকটি সেমিনার আয়োজন করে সেখানে ওই নারী ইসলাম বিদ্বেষী বক্তব্য দিয়েছিলেন। সে সময় তিনি বেশ কয়েক জায়গায় মহানবী (সা.) এর সাথে হযরত আয়শা (রা) এর বিয়ে নিয়ে আপত্তিকর কথা বলেন। এই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয় অস্ট্রিয়ার একটি আদালত। ২০১১ সালে আদালত ধর্ম অবমাননার দায়ে ওই নারীকে অভিযুক্ত করে আর্থিক জরিমানা করে।

কিন্তু ওই নারী নিজের এই বক্তব্যকে বাকস্বাধীনতা উল্লেখ করে আদালতের রায় মানতে অস্বীকৃতি জানান এবং পরপর দুবার আপিল করেন স্থানীয় উচ্চ আদালতে। তবে উচ্চ আদালতও তার পক্ষে রায় দেয়নি। দেশে শাস্তি বাতিল করতে না পেরে ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালতের দারস্থ হন তিনি। শুনানি শেষে গত বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালতের ৭ সদস্যের বিচারক প্যানেল ওই নারীর শাস্তি বহাল রেখে এবং বাকস্বাধীনতার নামে মহানবীকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয় মর্মে রুল জারি করেন।

ইসিএইচআর তাদের জারিকৃত রুলে ওই নারীর নাম উল্লেখ না করে তাকে ই.সি. নামে সম্মোধন করেছে। পর্যবেক্ষণে বলেছে, আবেদনকারীর (ওই নারী ) বক্তব্য মুসলিমদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করতে পারে এবং যথাযথ ভিত্তি ছাড়া বক্তব্য হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। আদালত আরো বলেছে, তার বক্তব্য কিছুতেই বাকস্বাধীনতা হিসেবে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। তারা এ বিষয়ে অস্ট্রিয়ার আদালত যে রায় দিয়েছে তাকে যথাযথ বলেছে। আরো বলেছে, বৃহত্তর চিন্তা থেকেই আদালত তাকে শাস্তি দিয়েছে, কারণ প্রত্যেকের ধর্মীয় অনুভূতিকে সুরক্ষিত রাখাও তার মানবাধিকার। অস্ট্রিয়ায় ধর্মীয় শান্তি বজায় রাখার লক্ষ্যে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

আদালত আরো বলেছে, অস্ট্রিয়ার আদালতের রায়ে ইউরোপীয় কনভেনশনের বাকস্বাধীনতা বিষয়ক ধারা ‘আর্টিকেল টেন’ লঙ্ঘিত হয়নি।

প্রসঙ্গত ফ্রান্সের স্ট্রাসবার্গ শহরে অবস্থিত ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালতের কার্যালয়। ইউরোপীয় নাগরিকদের মানবাধিকার সুরক্ষিত রাখা নিয়েই মূলত কাজ এই আদালতের।

৮৮ লাখ জনসংখ্যার দেশ অস্ট্রিয়ার অবস্থান মধ্য ইউরোপে। জার্মান ভাষাভাষীদের দেশটিতে মুসলিমদের সংখ্যা ৬ লাখের মতো। সাম্প্রতিক সময়ে দেশটিতে ইসলামবিদ্বেষ ব্যাপকভাবে মাথাচাড়া দিয়েছে। বিশেষ করে গত কয়েক বছরে আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইউরোপে অভিবাসীর ঢল নামার পর পর দেশটিতে ইসলাম বিদ্বেষীরা স্বোচ্চার হয়েছে। গত নির্বাচনেও রক্ষণশীল ও ডানপন্থীদের জোট ক্ষমতায় এসেছে। অভিবাসীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় সভা সমাবেশও করেছে ডানপন্থীরা। গত এপ্রিলে দেশটির চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ হুমকি দিয়েছেন ভিয়েনায় অবস্থিত দেশটির সবচেয়ে বড় মসজিদ বন্ধ করে দেয়ার।


আরো সংবাদ




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik