১৮ নভেম্বর ২০১৮

তল্লাশির সময় ভিডিও করার অধিকার কি পুলিশের আছে?

তল্লাশির সময় ভিডিও করার অধিকার কি পুলিশের আছে? - ছবি : সংগ্রহ

সম্প্রতি ঢাকায় পুলিশের একটি নিরাপত্তা চৌকিতে তল্লাশি চালানোর সময় এক নারীকে জিজ্ঞাসাবাদের ঘটনার ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, ঐ ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে এবং তাদের সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে, পুলিশি অভিযানের সময় ভিডিও করে সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ করা হয়েছে।

পুলিশের এই ধরণের আচরণ কতটা আইনসম্মত?
আইনজীবিদের মতে, কোনো নারী পুলিশের অনুপস্থিতিতে একজন নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তার অনুমতি ছাড়াই সেই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ করে আইনগতভাবে অপরাধ সংঘটন করেছেন ঐ নিরাপত্তা চৌকির পুলিশ সদস্যরা।

আইনজীবি তানজীব উল আলম বিবিসি বাংলাকে বলেন, "ঐ নারীর সাথে তিনটি অন্যায় করেছে পুলিশ। কোনো নারী পুলিশ সদস্য ছাড়া তাঁকে তল্লাশি করা, তল্লাশির সময় ঘটনার ভিডিও করা এবং ঐ ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করা।"

আইনজীবি আলমের মতে, আইন অনুযায়ী এরকম ক্ষেত্রে একজন সাধারণ নাগরিককে হয়রানির দায় প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুরো পুলিশ বাহিনীর ওপর বর্তায়।

পুলিশের মিডিয়া শাখার অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল রানা জানান, এই ঘটনায় কোনো মামলা বা অভিযোগ দায়ের করা হয়নি, তবে ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশ সদস্যদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ তদন্ত চলছে।

বাংলাদেশে সম্প্রতি বেশ কয়েকটি ঘটনার ক্ষেত্রে পুলিশি তদন্ত, জিজ্ঞাসাবাদ বা অভিযান চলার সময় সেই ঘটনার ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করেছে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরাই।
কিন্তু তদন্ত বা জিজ্ঞাসাবাদের সময় পুলিশ কেন সেসবে ঘটনার ভিডিও করছে?

পুলিশের মিডিয়া শাখার অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল রানা জানান, বিশেষ অভিযানের ক্ষেত্রে প্রমাণ হিসেবে পুলিশ ঘটনার ভিডিও করে থাকে।

"অস্ত্র উদ্ধার, মাদক উদ্ধারের মত গুরুত্বপূর্ণ অভিযানের ক্ষেত্রে পুলিশ সাধারণত ঘটনার ভিডিও করে যা পরবর্তীতে শক্তিশালী প্রমাণ হিসেবে কাজ করতে পারে।"

তবে সম্প্রতি আলোচনায় আসা ঘটনাটির ক্ষেত্রে পুলিশের তদন্তকারী দল ভিডিও করার যৌক্তিকতা খুঁজে পাননি বলে নিশ্চিত করেন মি. রানা।

তবে আইনজীবিদের মত পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারাও বলছেন, প্রমাণ রাখার স্বার্থে পুলিশের ভিডিও করার এখতিয়ার থাকলেও, অনুমতি ছাড়া সেগুলো সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করা সন্দেহাতীতভাবে বেআইনি একটি কাজ।

এএসআই বরখাস্ত ৪ কনস্টেবল শনাক্ত
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর রামপুরায় রাতে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকিতে তল্লাশির নামে এক নারী যাত্রীকে হেনস্তা করার অভিযোগে পুলিশের এক এএসআইকে সাময়িক প্রত্যাহার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। গত সোমবার রাতে রামপুরা টিভি ভবনের সামনে ওই ঘটনার সময় দায়িত্বরত পুলিশের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টের (পূর্ব বিভাগ) চারজন কনস্টেবলের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মতিঝিল বিভাগের ডিসি মো: আনোয়ার হোসেন। 

তিনি বলেন, ডিএমপির সিনিয়র এসি (খিলগাঁও জোন) নাদিয়া জুঁইকে বিষয়টি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে দায়ীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
গত সোমবার রাত আড়াইটার দিকে পুলিশ চেকপোস্টে অটোরিকশা আরোহী ওই তরুণীকে হেনস্তা এবং পুলিশ সদস্যদের সাথে তার বাগি¦তণ্ডার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ওই তরুণী থানায় মামলা বা অভিযোগ করেননি। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে। 

রামপুরা থানার ওসি এনামুল হক বলেন, ওই রাতে সেখানে কর্তব্যরত দলের নেতৃত্বে ছিলেন এএসআই ইকবাল হোসেন। তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কর্তৃপ। 

এসি নাদিয়া জুঁই বলেন, এককভাবে তাকে চিঠি দিয়ে বিষয়টি তদন্ত করে দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত চলছে। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। তবে হেনস্তার শিকার ওই নারীর খোঁজ মিলেনি। জুঁই বলেন, তার অধীনে রামপুরা থানার একজন এএসআইকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টের চার পুলিশ সদস্যকে শনাক্ত করা হয়েছে। তবে তাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা তিনি জানেন না। 

ভিডিওটি যিনি ছড়িয়ে দিয়েছেন, ফেসবুকে তার পরিচয় রাকিব রাজ। পরনে ঢাকা মহানগর পুলিশের পোশাক, ব্যাজে নাম মিজানুর। তিনি নিজেকে বাংলাদেশ পুলিশের একজন কনিষ্ঠ কর্মকর্তা বলেও পরিচয় দিয়েছেন। রাকিব রাজ ফেসবুকে তার পোস্টে ওই নারী সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য লিখে বলেন, ‘আজ রাত ২টায় এই মেয়েটিকে চেকপোস্টে পুলিশ চেক করতে চাইলে সে পুলিশের সাথে এ রকম ব্যবহার করেন। সবাই প্লিজ শেয়ার করবেন।’ সাড়ে ছয় মিনিটের ভিডিওটির নিচে যারা মন্তব্য করেছেন, তাদের বড় অংশ পুলিশের আচরণের সমালোচনা করছেন।


আরো সংবাদ

নির্বাচনী প্রার্থীদের নদী রার অঙ্গীকার মঙ্গলকর : তথ্যমন্ত্রী ধর্মহীন রাজনৈতিক দলের সাথে জোট করে কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয় : সৈয়দ রেজাউল করীম লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচন করবে জাতীয় পার্টি : মহাসচিব রাষ্ট্রপতি হওয়ার স্বপ্নে বিভোর ড. কামাল : হানিফ নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি হয়নি : বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি বিচারিক ক্ষমতা ছাড়া সেনাবাহিনী মোতায়েনের সফলতা নিয়ে সংশয় মহাজোটে ভিড়ছে ভুঁইফোড় দল লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করবে নির্বাচন কমিশন : ওবায়দুল কাদের আ’লীগ-বিএনপি উভয় দলেই একাধিক প্রার্থী আওয়ামী লীগ-বিএনপিতে কোন্দল জামায়াত নীরবে চালাচ্ছে তৎপরতা বিভিন্ন স্থানে বিরোধী নেতাকর্মী গ্রেফতার অব্যাহত

সকল