২১ জুলাই ২০১৯

ফিরে গেলেন সৌম্য

আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরছেন সৌম্য। - ছবি : সংগৃহীত

৩৮২ রানের পহাড়সম লক্ষ্য পাড়ি দিতে নেমে ৮ বলে ১০ রান করে রান আউট হয়ে ফিরে গেলেন বাংলাদেশ দলের ওপেনার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার।

মেষ খবর পওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ ওভারে ৩৭ রান। তামিম ইকবাল ১৯ ও ২ রান নিয়ে ক্রিজে রয়েছেন সাকিব আল হাসান।

এর আগে ডেভিড ওয়ার্নারের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের পহাড়সম লক্ষ্য দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। টস জিতে আগে ব্যাট করে ডেভিড ওয়ার্নরের (১৬৬) ও ওসমান খাজার (৮৯) রানের ওপর ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮১ রান সংগ্রহ করে অজিরা।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে হাতে চারটি ম্যাচ টাইগারদের। সেমিফাইনালে উঠতে হলে সবগুলো ম্যাচেই ভালো ফল বয়ে আনতে বাংলাদেশ দলকে। এমন চ্যালেঞ্জ নিয়ে ক্যাঙ্গারুদের বিপক্ষে মাঠে নামে বাংলাদেশ। ভালো কিছু করতে পারলে সেমিফাইনালের আশা আরো তীব্রভাবে জাগবে। আর হারলে সমীকরণটা আরো কঠিন হবে। এমন হিসেব-নিকেশ নিয়ে নটিংহ্যাম ট্রেন্ট ব্রিজে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেনে অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

আগে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যারন ফিঞ্চ ‍মিলে দুর্দান্ত শুরু করে অজিরা। ২০.৫ ওভারে ১২১ রান আসে দুজনের ওপেনিং জুটি থেকে। উইকেট তুল নিতে দলের নিয়মিত সব বোলিং অস্ত্র ব্যাবহার করে যখন ব্যর্থ প্রচেষ্টা টাইগার অধিনায়কের। তখনই আস্থা রাখলেন্ পার্ট টাইম পেস বোলার সৌম্য  সরকারের ওপর। কাপ্তানের আস্থার দাম দিতে দেরীও করেননি সৌম্য। ইনিংসের ২১তম ও নিজের প্রথম ওবারের পঞ্ম বলে ৫৩ রান করা অ্যারন ফিঞ্চকে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে রুবেলের ক্যাচের ফাঁদে ফেলে ফেরান সৌম্য। অন্যদিকে আরেক ওপেনার ওয়ার্নার দেখে-শুনে খেলে ১১৩ বলে  তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১৫তম সেঞ্চুরি। ফিঞ্চের আউটের পর পরবর্তী উইকেট নেয়ার জন্য বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ২৩.১ ও্ভার। খাজা-ওয়ার্নার মিলে ১২৪ বলে তোলেন ১৫০ রান তোলেন। সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন ওয়ার্নার। সেঞ্চুরি হাঁকানোর পর পরবর্তী পঞাশ রান ছুঁতে ব্যবহার করেন ২৬ বল। শেষ পর্যন্ত ১৪৭ বলে ১৪ চার ও ৫ ছয়ে ১৬৬ রান করে সৌম্যর দ্বিতীয় শিকার হয়ে রুবেলের তালুবন্দী হয়ে ফেরেন ওয়ার্নার। ওয়ার্নারের ঝড় থামানোর পর, মাঠে নেমে ফের ঝড় তোলেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ১০ বলে করেন ৩ ছক্কা ও দুই চারে ৩২ রান করে রান আউটের শিকার হন ম্যাক্সি।  ৭২ বলে ৮৯ রান করে ওসমান খাজাও ফেরেন সৌম্যর তৃতীয় শিকার হয়ে। এরপর শেষদিকে মার্কোস স্টয়নিসের ১১ বলে ১৭ ও অ্যালেক্স কেরির অপরাজিত ৮ রানের সুবাধে ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮১ রান সংগ্রহ করে অস্ট্রেলিয়া।

তবে ৪৯ ওভারে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ে বৃষ্টি হানা দেয়। কিছু সময় খেলা বন্ধ থাকে। বৃষ্টি বন্ধ হলে বাকি এক ওভারের খেলাও মাঠে গড়ায়।

বাংলাদেশী বোলারদের মধ্যে সৌম্য সরকার ৩টি ও মোস্তফিজুর রহমান একটি উইকেট শিকার করেন।

এই ম্যাচে বাংলাদেশ দলের একাদশে দুটে পরিবর্তন আনা হয়েছে। অবশেষে বিশ্বকাপের মাঠে নামা হচ্ছে রুবেলের। অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনের জায়গায় একাদশে ঢুকেছেন পেসার রুবেল হোসেন। এই ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের এবারের আসরে প্রথমবার মাঠে নামবেন রুবেল। অন্য দিকে আরেক অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বদলে একাদশে নেয়া হয়েছে সাব্বির রহমানকে।

এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের কম্বিনেশন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা হয়েছে। বিশেষ করে রুবেলে হোসেন দলে না থাকায় নিয়ে। ইংলিশ কন্ডিশনে দলের একমাত্র জেনুইন পেসার রুবেলকে একাদশের বাইরে রেখে সমালোচিত হতে হয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। অবশ্য রুবেলের পরিবর্তে খেলা সাইফউদ্দিনও ভালো পারফর্ম করেছেন। তথাপি রুবেল একাদশকে থাকলে কন্ডিশনের সুবিধা কাজে লাগাতে পারতেন বলে মনে করেন অনেকে।

লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পাকে দলে ফিরিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। দলে এসেছেন মার্কাস স্টয়নিস ও নাথান কাল্টার নাইল।

এএলএমটি


আরো সংবাদ

gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi